বলিউডের রাজনীতির শিকার সুশান্ত, প্রকাশ্যে চাঞ্চল্যকর তথ্য

রবিবার দুপুরে নিজের ফ্ল্যাটে আত্মহত্যা করেন সুশান্ত সিংহ রাজপুত। ৩৪ বছরে অভিনেতার জীবনে এমন কি বিষাদ এসেছিল সেটি সঠিকভাবে কেউই জানেন না। অজ্ঞাত কারণে তার এই মৃত্যু  মেনে নিতে পারেনি তার পরিবার-পরিজন এবং পুরো দেশজুড়ে ছড়িয়ে থাকা তার ফলোয়ার্সরা। তার এই হঠাৎ মৃত্যুকে অনেকেই মানতে পারেননি। সুশান্তর মামা বলেছেন- ও আত্মহত্যা করতে পারে না। পূর্ণ তদন্ত চাইছি।

সুশান্তের মৃত্যুর পর ই একটি পোস্ট করেন কর্ণ জোহর।সেই পোস্টে সুশান্তের মৃত্যুর দায় তিনি নিজের কাঁধে ই তুলে নেন স্বেচ্ছাকৃত। তারপর এই পোষ্টের জন্য কর্ণ কে ট্রোলড হতে হয়। এই পোস্ট থেকে বিতর্ক তৈরি হয়েছে কেন কর্ণ জোহরের মধ্যে অপরাধবোধ প্রবণতা কাজ করছে? তবে কি বলিউডের রাজনীতির শিকার হয়েছিলেন সুশান্ত?

এরপরই সুশান্তের উদ্দেশ্যে শেখর কাপুর একটি টুইট করেন। এই টুইট আরো বেশি জোরালো করে তোলে বলিউডে রাজনীতি কেই। শেখর কাপুর সুশান্তের উদ্দেশ্যে টুইটে লিখেছেন-‘আমি জানি কাদের জন্য তোমার এই হতাশা।গত ছয় মাসে যদি তোমার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারতাম।যা হয়েছে সেটা ওদের কর্মফল তোমার নয়।’

নাম উহ্য থাকলেও এই পোস্ট বলিউডের অন্দরে থাকা গোপন সত্যির দিকেই নিশানা করছে! আবার কঙ্গানার বিস্ফোরক মন্তব্য-‘বলিউডের ইতিহাস লিখতে উচ্চাকাঙ্ক্ষী ব্যক্তিত্বরা সুশান্তকে দুর্বলচিত্ত হিসেবেই দেখাতে চাই।’গাল্লি বয়’এর মত খারাপ ছবি ও পুরস্কৃত হয় অন্যদিকে ‘ছিছোরে’ র মত যোগ্য ছবির জন্য ও সুশান্ত কে সম্মান দেওয়া হয় না।তবে সুশান্তের ভুল এটাই যে যারা ওকে প্ররোচিত করেছে ও তাদের কথা মেনে নিয়েছে…’

ক্যারিয়ারের প্রথম দিকেই যশরাজ ফিল্মসের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ থাকার কারণেই সুশান্ত ছাড়া হয়েছিল সঞ্জয় লীলা ভন্সালীর  ‘রামলীলা’। সঞ্জয় যশরাজ এর কাছে অভিনেতাকে নেওয়ার প্রস্তাব করলেও সুশান্ত কে ছাড়েননি যশরাজ। অপরদিকে যশরাজের সাথে চুক্তিবদ্ধ অপর অভিনেতা রণবীর সিংহকে ছবিটি করার জন্য অনুমতি দেয় যশরাজ।

আদিত্য চোপড়ার পরিচালনায় ‘বেফিকরে’ ছবিটি করার কথা ছিল সুশান্তের কিন্তু সেটিও রণবীর সিংহের হাতে চলে যায়।পরিবর্তে সুশান্তকে দেওয়া হয় যশরাজ ফিল্মসের তরফ থেকে ‘পানি’ নামের একটি ছবি। যার পরিচালনা করার কথা ছিল শেখর কাপুরের।

কিন্তু বছর দুয়েক আগে প্রজেক্ট স্থগিত করে দেয় যশরাজ। এই কয়েকটি ঘটনায় যশরাজের সাথে মনোমালিন্য শুরু হয় সুশান্তের।এর জন্য অভিনেতাকে যথেষ্ট মাশুল ও দিতে হয়েছিল। তাকে  বিগত দেড় বছর ধরে  কোনো ফিল্ম পার্টিতে আমন্ত্রণ  অবধি করা হতো না।এই সকল বিষয় নিয়েই আদিত্যের সাথে ঝামেলায় জড়িয়ে পড়েন সুশান্ত।

অপরদিকে কর্ন জোহরের পরিচালিত সুশান্ত অভিনীত ‘ড্রাইভ’ছবিটি মুক্তি পায় নেটফ্লিক্সে। সব জায়গা থেকেই ছবির বিষয়ে নেগেটিভ রিভিউ আসতে থাকে। তখন কর্ণের সঙ্গে‌ও দূরত্ব তৈরি হয় সুশান্তের।

অপরদিকে কঙ্গনা অভিযোগ তোলেন, বলিউড মাফিয়াদের জন্যই বলি হতে হলো সুশান্তকে। কঙ্গনার কথায়-ইন্ডাস্ট্রি কেন সুশান্ত কে আপন করে নিচ্ছেন না! বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে এরকম আক্ষেপ ও করেছিলেন সুশান্ত! বলেছিলেন নিজেকে উচ্ছিষ্ট বলে মনে হয়।

কঙ্গনা বলেন ‘এটা আত্মহত্যা নয় খুন’তিনি এই দিন এই প্রসঙ্গে আরো বলেন-‘তার সম্পর্কে কি কি বলছে তাতে গুরুত্ব দিয়েই বড্ড ভুল করে ফেলেছে সুশান্ত।ওদের কথা মানায় উচিত হয়নি ওর। মা কি বলেছিলেন তা মনে রাখিনি সুশান্ত। ঐ সমস্ত লোক এটাই তো চাই। ওরা একাই ইতিহাস লিখতে চাই, আর সুশান্তকে দুর্বল বলে প্রতিপন্ন করতে চাই। আসল সত্যিটা কেউ বলবেনা। আসলে কার ইতিহাস লেখা উচিত আমাদের  ই ঠিক করতে হবে।’

ছবি পাওয়া, ছবি হস্তান্তর, বড় ব্যানারের প্রিয় হওয়া ইত্যাদি অর্থ সর্বোচ্চ বলিউড ইন্ডাস্ট্রি হিসেব-নিকেশ মেলাতে পারেনি সুশান্ত। শুধু মাত্র প্রতিভার জোরেই সে ঠাঁই পেয়েছিল বলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে। কিন্তু বলিউডের অভ্যন্তরীণ রাজনীতি এই প্রতিভাকে তিলে তিলে শেষ করে দিল। সুশান্তের কোন গডফাদার ছিলনা। তাই এক ভক্তকে তিনি লিখেছিলেন-‘আপনারা আমার ছবি দেখুন। আমার ছবি না দেখলে ওরা আমাকে তাড়িয়ে দেবে। আমার কোনো গডফাদার নেই। আপনারাই আমার সব।’

এক ভিডিও টুইট করে দক্ষিণী অভিনেতা প্রকাশ রাজ লিখেছেন, “স্বজনপোষণের মধ্যে দিয়ে আমাকেও যেতে হয়েছে। আমি লড়াই করে টিকে গিয়েছি। কিন্তু বাচ্চাটা পারল না।” তিনি আরও লিখেছেন, “এরপর আমরা কি কিছু শিখব? আমরা কি উঠে দাঁড়িয়ে বলব, আর কোনও স্বপ্নের এ ভাবে মৃত্যু হবে না?”

প্রকাশ রাজের এই টুইট নতুন প্রশ্ন তুলে দিয়েছে। তাহলে কি সুশান্ত মনে করছিলেন, তাঁর যোগ্যতাকে আটকে দেওয়া হচ্ছে? স্বজনপোষণের মধ্যেও বাধা দেওয়া হচ্ছে নতুন প্রতিভাকে ইন্ডাস্ট্রিতে ঢুকতে দেওয়ায়?