স্টিফেন হকিং এর কিছু অমর উক্তি যা আপনার জীবন দর্শন বদলে দেবে

শারীরিক রোগে জর্জরিত হয়ে তাঁর অঙ্গপ্রত্যঙ্গ কাজ করা বন্ধ করে দিলেও, কেবল মস্তিক সচল রেখে তিনি নিজেকে যে উচ্চতায় নিয়ে গিয়েছিলেন তার জন্য কোনও বিশেষণই যথেষ্ট নয়। অবশেষে বুধবার নিজের বাড়িতেই শেষ নিঃশ্বাস ফেলে ব্ল্যাক হোলের অতলে তলিয়ে গেলেন তিনি। শুধু রেখে গেলেন তার একরাশি গবেষণা। যা আগামী প্রজন্মকে সুস্থ এবং নিরাপদ রাখতে ও পৃথিবীকে আরও সুন্দর করে গড়ে তুলতে সাহায্য করবে।

1539

বর্তমানের বিজ্ঞানের আকাশের উজ্জ্বলতম নক্ষত্র, বৈজ্ঞানিক আলবার্ট আইনস্টাইনের পর অন্যতম উল্লেখযোগ্য বৈজ্ঞানিক  ছিলেন স্টিফেন হকিং।ছোটবেলা থেকে যদিও তার বুদ্ধিমত্তা তেমন ছিল না ,কিন্তু তার বিজ্ঞান বিষয়ে সহজাত আগ্রহ তাকে এই বিষয়ের সকল গূঢ় রহস্য উন্মোচনে সাহায্য করেছে।আর এইসব রহস্য আমাদের সামনে তুলে ধরে, তিনি আমাদের জানিয়েছেন অনেক অজানা তথ্য। ৯ বছর বয়সে তিনি তার ক্লাসে সবচেয়ে খারাপ রেজাল্ট করেছিলেন।কিন্তু তবুও তিনি হয়েছিলেন বিশ্বের সবচেয়ে বন্দিত আধুনিক তাত্ত্বিক পদার্থ বিজ্ঞানী।২১ বছর বয়সে আময়ট্রফিক লাটারল স্কেলেরোসিসে আক্রান্ত হয়ে তিনি যখন চরম শারীরিক অসুবিধার মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন তখনও তিনি হার মানেন নি রোগের কাছে। রোগাক্রান্ত শরীরে তার ২১ বছর থেকে ৭৬ বছর অর্থাৎ  ৫০ বছরেরও বেশি সময় ধরে তিনি যা কিছু আমাদের দিয়েছেন তা একজন সুস্থ স্বাভাবিক মানুষ তার শতবর্ষ এর জীবনে আমাদের দিতে পারবে না।তার পুরো জীবনই আমাদের কাছে এক চরম শিক্ষা ।সমস্ত শারীরিক প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে একটা মানুষ যে জীবনে চরম সফলতা অর্জন করতে পারে তার প্রকৃষ্ট উদাহরণ ছিলেন তিনি।তার কাছে আমরা পেয়েছি অসংখ্য উক্তি যা আমাদের জীবনের চলার পথে লাগবে প্রতিক্ষেত্রে।তার সেইসব বিখ্যাত বিখ্যাত কিছু উক্তি রইল নিচে

Source
  •  জীবনে হাসি ঠাট্টা না থাকলে জীবনটা খুবই ছন্দহীন হয়ে যেত।
  • পরিবেশের সাথে মানিয়ে চলাই হলো আপনার মধ্যে থাকা বুদ্ধিমত্তার পরিচয়।
  • জীবনে কৌতূহলী হতে শেখো।আর তা হওয়ার জন্য রাতের আকাশের অসংখ্য নক্ষত্রমন্ডলীর দিকে তাকাও,আর এই মহাবিশ্বের ব্যাপ্তি দেখে বিস্ময় করো,উপলব্ধি করার চেষ্টা করো।নিজের পায়ের দিকে তাকালে তুমি কিছু নতুন উপলব্ধি করতে পারবে না।
  • মাটির দিকে নয়, আকাশের দিকে তাকিয়ে কাজ করতে থাকো। কারণ, একমাত্র কাজই জীবনকে প্রাসঙ্গিক করে তোলে। আর ভাগ্য করে জীবনে যদি সত্যিকারের ভালোবাসা পেয়ে থাকো, তাঁকে ছুঁড়ে ফেলে দিও না।
  • প্রত্যেকের জীবনে কঠিন সময় থাকবেই।কিন্তু এই কঠিন জীবনে তুমি কিছু কাজ সফলতার সঙ্গে অবশ্যই করতে পারবে।
  • আপনার জন্য মূল্যবান সময় যারা দেবে তাদের প্রতি কোনোদিন রাগান্বিত হবেন না।আর তাদের  প্রতি সবসময়  অহেতুক অভিযোগ করবেন না।
  •  ‘আপনি ভুল করেছেন’, এমন কথা আপনাকে যদি কেউ বলে তাঁকে বলবেন ভুল করা জরুরি। ভুল না করলে আমি আপনি কেউই বেঁচে থাকবো না।
  • বিজ্ঞান একপ্রকার ভালোবাসা ও অনুরাগ যা সহজাত। বিজ্ঞানকে শুধুমাত্র পরীক্ষা নিরীক্ষা ও অনুসন্ধান বলা যাবে না।
  • আমাদের বর্তমানের ইন্টারনেটের ব্যবস্থা অনেকটা আমাদের মস্তিষ্কের ভিতর একটা নিউরোন অন্য সকল নিউরোনের সঙ্গে সংযুক্ত হওয়ার মতো ।
  • আপনার শারীরিক অক্ষমতা নিয়ে কোনো অভিযোগ করবেন না বা তার কারণ খুঁজতে গিয়ে আপনার অমূল্য সময় নষ্ট করবেন না।আপনার যা কিছু ভিতরের শক্তি থাকে তা দিয়ে অন্যকে সাহায্য করুন বা করার চেষ্টা করুন।
  • একদিনের আবহাওয়ার পূর্বাভাস বলার জন্য আপনাকে বিগত কয়েকদিনের আবহওয়া সম্পর্কে জানতে হবে।
  • শুন্য থেকে এই পৃথিবী সৃষ্টির মূল কারনই হল অভিকর্ষ।
  • প্রতিবন্ধকতা থাকার জন্য নিজেকে ছোটো বা হেয় করবে না। শারীরিক প্রতিবন্ধকতা আপনার মনকে প্রতিবন্ধী করতে পারবে না কোনোদিন।
  • যারা নিজের বুদ্ধিমত্তা নিয়ে অহংকার করে,তারাই সবচেয়ে বোকা হয়।
  •  আমার কাছে আজও রহস্য  নারীর সারাদিনের ভাবনাচিন্তা।
  • কোনোকিছুই পূর্বনির্ধারিত নয়।মনের বিশ্বাস থাকলে আপনি অনেক দূর পর্যন্ত এগিয়ে যেতে পারেন।
  • জীবনে যার কাছে থেকে তুমি ভালোবাসা পাবে তাকে তুমি ছুড়ে ফেল না।
  • সভ্যতার ধ্বংসের জন্য আগ্রাসন হচ্ছে সবচেয়ে খারাপ কাজ।
  • জীবনে মানুষ সবচেয়ে বেশি সাফল্য পায় কথা বলেই। আবার ব্যর্থতার কারণও কথা বলা। তবে আলাপচারিতা সব সময়ে চালিয়ে যাওয়া উচিত।
  •  জীবনই হল এমন একটা শক্তি যা সর্বদা আপনাকে পরিবর্তন করতে শেখায়।
  • যারা নিজের বুদ্ধিমত্তা নিয়ে নাক উঁচু করে থাকে, জীবন যুদ্ধে তারা আসলে পরাজিত।
  •  আশ্চর্যের বিষয় হল, যে মানুষেরা অদৃষ্টে বিশ্বাস করেন। রাস্তা পারাপার করার সময় তারাই দুদিক দেখে নেন।
  • আমি মৃত্যুকে ভয় করি না।কিন্তু আমি মৃত্যুর জন্য লালায়িতও নয়।মৃত্যুর আগে আমার অনেক কিছু করার আছে।
  • আমি জীবনে ক্লাসে কোনোদিন প্রথম না হয়েও আমি সবার কাছে “আইনস্টাইন” নামেই পরিচিত ছিলাম।
  • যদিও যন্ত্র ছাড়া আমি একজায়গা থেকে অন্য জায়গায় যেতে পারি না,আমার কথা কম্পিউটারে ভেসে ওঠে তবুও মনের দিক দিয়ে আমি স্বাধীন।
  •  এখনও আমি অত বড় হয়ে উঠতে পারিনি। আমি এখনও প্রশ্ন করে বেড়াই।
  • শারীরিক অক্ষমতা কখনোই আপনার ভালো কাজের ক্ষেত্রে বাধা হতে পারে না। এই ধরণের সীমাবদ্ধতার জন্য আক্ষেপ করবেন না। ভালো কাজের ক্ষেত্রে উদ্যমে ভাঁটা পড়ার মতো নেতিবাচক কিছু হয় না।
  • যদি আপনি কোনো বিষয়ে আশা না ত্যাগ করেন তাহলে এখনোও আপনি সেই বিষয় নিয়ে ভাবেন।
  • কর্মের কোনো নির্দিষ্ট বয়স নেই।কর্ম ছাড়া জীবন শুন্য।কর্ম জীবনকে অর্থপূর্ণ ও উদ্দেশ্যময় করে তোলে।
  • মহাবিশ্বে কোনও কিছুই নিখুঁত নয়।আর এটাই মহাবিশ্বের অন্যতম বৈশিষ্ট্য।
  • মানুষের ক্রোধই তার সবচেয়ে বড় শত্রু। একমাত্র এই ক্রোধই মানব সভ্যতাকে ধ্বংস করে দেওয়ার ক্ষমতা রাখে।
  • গত ৪৯ বছরে আমার মৃত্যু নিয়ে কম জল্পনা হয়নি। তাই মরার ভয় আর আমার নেই। কিন্তু মৃত্যুর আগে এখনও আমার অনেক কাজ করা বাকি।

এই মহান মানুষটিকে তখনই প্রকৃত সম্মান জানানো হবে যখন তার অমর উক্তি গুলো আমরা সকলেই মেনে চলবো।

Loading...