২১ মে পর্যন্ত বাড়তে পারে লকডাউন, প্রস্তুতি নিচ্ছে রাজ্য সরকার

কোরোনা ভাইরাসের জেরে সমগ্র দেশে চলছে দ্বিতীয় দফার লকডাউন যা শেষ হওয়ার কথা আগামী ৩রা মে। পরবর্তী পদক্ষেপ কি হবে সেই নিয়ে আজ, ২৭ তারিখ সকালে সকল রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী দের সাথে ভিডিও কনফারেন্স করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ভিডিও কনফারেন্সে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও।

আজকে বিকালে এই বিষয় নবান্ন থেকে সাংবাদিক বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী। ওই বৈঠকেই তিনি জানান যে আগামী ২১ তারিখ পর্যন্ত লক ডাউনের সময়সীমা বাড়ানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে রাজ্য। তিনি এও বলেন যে সংক্রমণের হারের ওপর ভিত্তি করে সমগ্র রাজ্যকে গ্রিন জোন, অরেঞ্জ জোন এবং রেড জোনে ভাগ করা হবে এবং তার সাথেই জায়গা বিশেষ কিছু পরিষেবায় ছাড় দাওয়া হবে।

করোনা রুখতে সিল হচ্ছে একাধিক এলাকা, লকডাউন আর সিলের পার্থক্য কি

লক ডাউনের মেয়াদ ৩ মে শেষ হবে নাকি সেই নিয়ে প্রশ্ন করা হলে মুখ্যমন্ত্রী জানান, লক ডাউন কতদিন চলবে তা এখনও স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছেনা। এক্ষেত্রে কেন্দ্রের নির্দেশ মানবে রাজ্য। তার সাথেই তিনি জানান যে ভিডিও কনফারেন্স থেকে অনুমান করা যায় লক ডাউন পরিস্থিতি আরও দীর্ঘায়িত হবে এবং সেই হিসেবেই পূর্ব প্রস্তুতি নিচ্ছে রাজ্য। রাজ্যের মধ্যে রেড জোন, অরেঞ্জ জোন বা গ্রিন জোন কোনগুলি তা শ্রীঘ্রই প্রকাশ করবে রাজ্য সরকার।এক্ষেত্রে মুখ্যমন্ত্রীর মতে যেসব অঞ্চল রেড জোনে আছে, সেই অঞ্চলের নাম প্রকাশ করলে সেখানকার বাসিন্দারা আরও বেশী সতর্ক হবেন।

কোন অঞ্চলে কিরকম ব্যবস্থা নেওয়া হবে?

মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, যেসব অঞ্চল রেড জোনে আছে সেখানে কমপ্লিট লক ডাউন চলবে। বাড়ি থেকে বেরোতে পারবেন না বাসিন্দারা। অত্যাবশ্যকীয় দ্রব্য বা খাবারদাবার হোম ডেলিভারির মাধ্যমে পৌঁছিয়ে দাওয়া হবে বাড়িতে। অরেঞ্জ জোনের ক্ষেত্রে লক ডাউনের কড়াকড়ি রেড জোনের থেকে খানিকটা কম হবে। কিছু কিছু পরিষেবা চালু থাকবে সেখানে এবং গ্রিন জোন অঞ্চলগুলোতে হালকা করা হবে লক ডাউন। বেশ কিছু পরিষেবা চালু করার সম্ভাবনা আছে এই অঞ্চলগুলোতে।

 

এক্ষেত্রে গ্রিন জোন হিসেবে সেই অঞ্চলগুলোকে ধরা হবে যেখানে গত ২১ দিনে কোনো সংক্রমন হয়নি। গ্রিন জোন এলাকায় যদি পরবর্তীকালে কোনো সংক্রমণের ঘটনা ঘটে তবে তাকে অরেঞ্জ জোনে নিয়ে যাওয়া হবে।মুখ্যমন্ত্রী জানান যে আগামী ২১ মে পর্যন্ত সাবধানতা অবলম্বন করতেই হবে।

কোরোনা মোকাবিলায় COVID ম্যানেজমেন্ট কমিটি

করোনা মোকাবিলার জন্য পৃথক COVID ম্যানেজমেন্ট কমিটি গঠন করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তিনি জানান যে কোরোনা পরিস্থিতি সরকারের অন্যন্য কাজের ওপর প্রভাব ফেলেছে, অনেক কাজই থেমে গেছে। তিনি নিজে সবদিকে খেয়াল রাখলেও অন্যান্য যে কাজগুলি থেমে গেছে সেইদিকে নজর দাওয়া প্রয়োজন, এবং সেই কারণেই এই বিশেষ গোষ্ঠী গঠন করা হয়েছে যার সভাপতিত্ব করবেন অমিত মিত্র।এই গোষ্ঠীতে আরও থাকবেন ফিরহাদ হাকিম, চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য এবং পার্থ চট্টোপাধ্যায়।