স্টার জলসায় নতুন চমক, আসছে নতুন ধারাবাহিক, প্রকাশ্যে এল ট্রেলার

দর্শকের জন্য একের পর এক চমক নিয়ে হাজির স্টার জলসা (Star Jalsha)। লকডাউনের পর চ্যানেল কর্তৃপক্ষ দর্শকের মনোরঞ্জনের জন্য একেবারে কোমর বেঁধে নেমেছে। দর্শকের মনে রোমান্টিসিজম ছড়িয়ে দিয়েছে ‘মন ফাগুন’। শ্রীকৃষ্ণের ভক্ত মীরার ভক্তির সাগরে ডুব দিয়েছেন দর্শক। এবার এক নিখাদ নিটোল বন্ধুত্বের পসরা সাজিয়ে আসছে ‘আয় তবে সহচরী’ (Aay Tobe. Sohochori)। আর পাঁচটা ধারাবাহিকের তুলনায় এই ধারাবাহিকের স্বাদ কিন্তু একেবারেই আলাদা।

যদিও ধারাবাহিকের নায়িকার সঙ্গে আমরা বেশ পরিচিত। বাংলার বলতে গেলে প্রত্যেক ঘরেই এই নায়িকা চরিত্রের খোঁজ মেলে। বাংলার যে সকল গৃহবধূ সংসারের চাপে নিজেদের স্বপ্ন মাঝপথেই ছেড়ে দিতে বাধ্য হন, তাদের সেই অসম্পূর্ণ স্বপ্ন পূরণের গল্পই বলতে আসছেন ‘সহচরী সেনগুপ্ত’। হ্যাঁ, সহচরীই নতুন গল্পের নায়িকা। যিনি স্বামী-সন্তানদের স্বপ্নপূরণের থাকে নিজেও পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন দেখেন। কলেজে পড়ে গোল্ড মেডেল জয়ের স্বপ্ন দেখেন।

হয়তো তারা স্বপ্নটা অধরাই থেকে যেত, তবে তিনি সংসার-সন্তান সামলেও নিজের স্বপ্ন পূরণের দিকে এগিয়ে চলেছেন। তাই একটু বেশি বয়সেই ভর্তি হয়েছেন কলেজে। কলেজের অন্য পড়ুয়ারা তার ছেলেমেয়ের বয়সী। ফলে স্বভাবতই কলেজ প্রাঙ্গণে সহচরীকে দেখে টিটকিরি দেয় অন্য পড়ুয়ারা। তবে এই কলেজ প্রাঙ্গণেই নতুন বান্ধবীর খোঁজ পেয়েছেন সহচরী। সহচরী পাশে পেলেন বরফিকে।

প্রোমোতে দেখা যাচ্ছে, প্রথমদিন কলেজে এসেছেন সহচরী। কিছুটা ভীত, কিছুটা অস্বস্তি রয়েছে তারমধ্যে। আচমকা কলেজেরই এক স্টুডেন্টের সঙ্গে ধাক্কা লেগে তার ব্যাগ নীচে পড়ে গেল। ব্যাগের মধ্যে থেকে বেরিয়ে এলো মন্দিরের পূজার কাজে ব্যবহৃত কিছু সামগ্রী। যা দেখে অন্য পড়ুয়ারা বলে উঠলো, “মাসিমা আপনি ভুল জায়গায় চলে এসেছেন। এটা মন্দির নয়, কলেজ”। তারপরেই এন্ট্রি হলো বরফির। কলেজের ফার্স্ট ইয়ারের স্টুডেন্ট সে। বলতে গেলে সহচরীরই সহপাঠী।

সেই বাকি সকলকে বকে-ধমকে সহচরীর পাশে এসে দাঁড়ালো। সহচরীকে মাটি থেকে তুলে মুহূর্তের মধ্যেই তার সঙ্গে বন্ধুত্ব পাতিয়ে ফেললো। কলেজে নতুন বন্ধুর আজ প্রথম দিন। নিজের সাইকেলের পেছনে বসিয়ে বন্ধুকে সারা কলেজ ঘুরে দেখালো বরফি। দুই অসমবয়সী বন্ধুর এই নিখাদ বন্ধুত্ব দেখে মুগ্ধ দর্শক। সত্যিই তো, বন্ধুত্বের তো কোনও বয়স হয় না। স্বপ্নপূরণেরও বয়স হয় না।

ধারাবাহিকের এই প্রোমো ইতিমধ্যেই দর্শকের নজর কেড়ে নিয়েছে। এক সামান্য বাঙালিবধূর স্বপ্নপূরণের অসামান্য গল্প শোনাবে ‘আয় তবে সহচরী’। ধারাবাহিকের প্রোমো দেখে ধারাবাহিক সম্পর্কে বেশ উৎসাহিত দর্শক। প্রধান চরিত্র অর্থাৎ চরিত্রে অভিনয় করছেন কনীনিকা বন্দ্যোপাধ্যায় (Koneenica Banerjee)। আর তার সহচরীর ভূমিকায় অভিনয় করছেন যিনি, তিনিও টেলিভিশনের পর্দার একেবারে আনকোরা নতুন মুখ। ‘বরফি’ চরিত্রটিকে পর্দায় ফুটিয়ে তুলছেন অরুনিমা হালদার (Arunima Haldar)।

নতুন এই ধারাবাহিকে রয়েছেন টেলিভিশনের জগতের অনেক পরিচিত মুখ। কনীনিকা বন্দ্যোপাধ্যায় তো আছেনই। তার স্বামীর চরিত্রে অভিনয় করছেন ইন্দ্রজিৎ চক্রবর্তী। উল্লেখ্য, এই ধারাবাহিকের হাত ধরে প্রায় ৪ বছর পর আবার টেলিভিশনের পর্দায় ফিরে এলেন কনীনিকা। শেষ অন্দরমহল ধারাবাহিকে অভিনয় করেছিলেন তিনি। এবার নিজের বয়সের তুলনায় অধিক বয়সী এক মহিলার চরিত্রে অভিনয় করতে হবে তাকে। বিষয়টিকে বেশ চ্যালেঞ্জ হিসেবেই দেখছেন অভিনেত্রী।