মাদকের নেশায় জর্জরিত জীবন, দেখেছেন বন্ধুদের মৃত্যুও, নিজের অন্ধকার অতীত নিয়ে স্মৃতিমেদুর অনিন্দ্য

মাদকের নেশায় জর্জরিত ছিল জীবন, নিজের অন্ধকার অতীত স্মরণ করলেন গাঁটছড়ার রাহুল

একটা সময় ছিল যখন ভয়ংকর মাদকের নেশায় জর্জরিত হয়ে পড়েছিলেন টলিউড (Tollywood) অভিনেতা অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায় (Anindya Chatterjee)। তাকে ইদানিং স্টার জলসার গাঁটছড়া ধারাবাহিকে রাহুলের চরিত্রে অভিনয় করতেই দেখছেন দর্শকরা। এখন তিনি নেশা মুক্ত, তবে আজ থেকে ১৫ বছর আগে তার জীবনে এক ভয়ঙ্কর কালো অধ্যায় ছিল। সেসব দিনের কথা স্মরণ করলে শিউরে ওঠেন অভিনেতা।

মাদকাসক্তি যে কি ভয়ঙ্কর জিনিস তা হাড়ে হাড়ে টের পেয়েছিলেন অনিন্দ্য। মাদকাসক্তি যে জীবন ছিনিয়ে নিতে পারে তার সাক্ষীও রয়েছেন তিনি। ছোট বয়সের এই ভুল নিয়ে তিনি আজ সতর্ক, সেই সঙ্গে তার অভিজ্ঞতার কথা শেয়ার করে সকল মানুষকে তিনি সতর্ক করতে চান। এবার ফেসবুকে মাদকাসক্তির সময়কার একটি ছবি শেয়ার করে তিনি আবারও এই নিয়ে মুখ খুললেন।

I Have not been invited to any Award Show Says Anindya Chatterjee

অনিন্দ্য তার পোস্টে লিখেছেন, “এই ছবিটা পেলাম। সম্ভবত ২০০৪ কিংবা ২০০৫ এর। আমি সে সময় মাদক সেবন করতাম। আমার শরীরে কোনও শিরাই আর অবশিষ্ট ছিল না। আমি বন্ধুদের চোখের সামনে মরেও যেতে দেখেছি। এখন আমি পরিষ্কার ও শান্ত। মাদকের নেশা থেকে মুক্ত আমি। এখনও ভাবতে বিস্ময়কর লাগে, কীভাবে এই নরক থেকে বেরিয়ে এসেছিলাম সেই সময়। সত্যিই চমৎকার ঘটে। আর আমি চমৎকারে বিশ্বাস করি।”

ছোট বয়সের এই ভুলের কারণে জীবন প্রায় তছনছ হয়ে যেতে বসেছিল অনিন্দ্যর। তবে তিনি এক কঠিন লড়াইয়ের শেষে আবার সুস্থ স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে পেরেছেন। তাকে বেশ কিছুদিন রিহ্যাবে থাকতে হয়েছিল। এখন তিনি নেশা মুক্ত। জীবনকে নতুনভাবে দেখতে শিখেছেন অনিন্দ্য। এখন আর তার মধ্যে মাদকাসক্তি নেই।

এই মুহূর্তে সবকিছু ছেড়ে অভিনয়েই মন দিয়েছেন অনিন্দ্য। ধারাবাহিকের পাশাপাশি টলিউডের বিভিন্ন ছবিতেও তিনি অভিনয় করছেন। স্টার জলসার ‘গাঁট ছড়া’ ধারাবাহিকটিতে তিনি একজন ভিলেনের চরিত্রে অভিনয় করছেন। এই ধারাবাহিক মাঝে মাঝেই টিআরপি তালিকাতে শ্রেষ্ঠ আসন দখল করে নেয়। সিরিয়ালের পাশাপাশি বহু বাংলা সিনেমাতেও তাকে দেখা গিয়েছে বহুবার।

‘বেলা শুরু’, ‘বেলা শেষে’, ‘দ্য পার্সেল’, ‘কড়া পাক’, ‘অন্দর কাহিনী’ ইত্যাদি বিভিন্ন ছবিতে তিনি অভিনয় করেছেন। মাদকমুক্ত হওয়ার পর নিয়মিত এক্সারসাইজ করতে হয় অনিন্দ্যকে। শরীর সুস্থ রাখাই এখন তার একমাত্র লক্ষ্য। সোশ্যাল মিডিয়াতে তিনি তার ওয়ার্ক আউটের মুহূর্তের নানা ছবি এবং ভিডিও শেয়ার করে থাকেন।