‘সেক্স’ আমার সৌন্দর্যের চাবিকাঠি, পতিহীনা শ্রীলেখার মুখে অসতি সুলভ কথা

সোশ্যাল মিডিয়ায় অনুরাগীদের একের পর এক প্রশ্নের জবাব দিয়ে বারবার লাইমলাইটে চলে আসছেন শ্রীলেখা মিত্র (Sreelekha Mitra)। পর্দায় এখন আর সেভাবে দেখা যায় না তাকে। তবে অভিনেত্রী দীর্ঘদিন আগে থেকেই সোশ্যাল মিডিয়াকে হাতিয়ার করে অনুরাগীদের সঙ্গে সংযোগ বজায় রেখে চলেছেন। কখনও স্নানের পর তোয়ালে জড়ানো ভেজা শরীর, কখনও আবার শরীরচর্চার ছবি কিংবা যোগাসনে বসে ছবি অথবা ভিডিও অনুরাগীদের উদ্দেশ্যে শেয়ার করতেই থাকেন অভিনেত্রী।

৪৫ এর কোঠায় পৌঁছে গিয়েছে বয়স। অথচ তাকে দেখে তা বোঝার উপায় নেই। আজও সেই ২৫ বছর আগের মতোই সুন্দরী রয়েছেন শ্রীলেখা। অভিনেত্রীর এত রূপের রহস্য কী? যোগা? শরীরচর্চা? নাকি অন্যকিছু? জানালেন তিনি নিজেই। ইদানিং সোশ্যাল মিডিয়ায় অনুরাগীদের সঙ্গে প্রশ্নোত্তর পর্বের খেলা খেলছেন শ্রীলেখা। সেখানেই তার এক মুগ্ধ অনুরাগী প্রশ্ন করেন, “আপনার বয়স কত? আপনার সৌন্দর্যের রহস্য কী?”

জিমে শরীরচর্চা করার ফাঁকেই শ্রীলেখা তার অনুরাগীর দুটি প্রশ্নেরই জবাব দিলেন। প্রথম প্রশ্নের উত্তরে তার জবাব, আর কয়েক বছর পরেই হাফ সেঞ্চুরি করব। আর সৌন্দর্যের চাবিকাঠির রহস্য? শ্রীলেখার জবাব, “এজ নো বার, কাস্ট নো বার, সেক্স বারবার”। এই জবাব পাওয়ার পর থেকেই কার্যত ওই পোস্টের কমেন্ট বক্সে নেটিজেনদের রিয়াকশন এবং কমেন্টের বন্যা বয়ে গিয়েছে। যদিও অশ্লীল মন্তব্য এবং শরীর নিয়ে কটাক্ষও হজম করতে হচ্ছে শ্রীলেখাকে।

প্রসঙ্গত, শ্রীলেখা মিত্র অনুরাগীদের সঙ্গে যে মজার খেলায় মেতে উঠেছেন তার শর্ত হলো, তিনি প্রতিদিন অনুরাগীদের একটি করে মজার প্রশ্নের উত্তর দেবেন। যেমন গত বুধবার তার সঙ্গে দেখা করা যাবে কিভাবে তার উত্তর দিয়েছিলেন অভিনেত্রী। সঞ্জীব নামের এক অনুরাগী প্রশ্নের জবাবে তিনি জানিয়েছিলেন, যদি তুমি সত্যিই আমায় ভালোবাসো তা হলে রাস্তার কুকুর-বেড়ালদের একটু দেখো। ওদের নিয়ে ভালোবেসে তুমি যদি ছবি দাও তা হলে আমি কফি ডেটে নিয়ে যাব, ডান।

সঞ্জীবও কমেন্ট বক্সে শ্রীলেখাকে লিখেছিলেন ডান। শশাঙ্ক ভাভসর নামের আরেক যুবকও শ্রীলেখার প্রস্তাব লুফে নেন। এক সারমেয় ছানাকে দত্তক নিতে চেয়ে শ্রীলেখার সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন তিনি। অনুরাগীদের তরফ থেকে এমন সাড়া পেয়ে আপ্লুত শ্রীলেখা শশাঙ্ককে কফির ডেটে নিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতিও পূরণ করবেন বলে জানিয়েছেন। শ্রীলেখাকে নিয়ে সেই খবরও ভাইরাল হয়েছিল নেট মাধ্যমে। এবার বয়স নিয়ে শ্রীলেখার এই সোজাসাপ্টা জবাবও নেট মাধ্যমে বেশ সাড়া ফেলে দিয়েছে।

অভিনেত্রীরা সাধারণত নিজেদের বয়স লুকিয়ে রাখতে চান। তবে শ্রীলেখা সেই ক্যাটাগরিতে পড়েন না। তাই একমাত্র তিনিই নিজের আসল বয়স অকপটে স্বীকার করতে পারেন। মানুষ হিসেবে বরাবর স্পষ্টবক্তা শ্রীলেখা। যদিও এই নিয়ে তাকে বরাবর নেটিজেন এবং সহকর্মীদের ট্রোল সহ্য করতে হয়েছে। চেহারা নিয়ে কটাক্ষের শিকার হতে হয়েছে। অবশ্য ইদানিং সোশ্যাল মাধ্যমে অভিনেত্রীদের চেহারা, গায়ের রং, ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে সমালোচনা খুব স্বাভাবিক ঘটনার পর্যায়ে পড়ে গিয়েছে।