ঐন্দ্রিলাকে হারিয়ে গুরুতর অসুস্থ সব্যসাচী! এখন কেমন আছেন অভিনেতা? অবশেষে মুখ খুললেন বন্ধু সৌরভ

ঐন্দ্রিলার মৃত্যুতে অসুস্থ সব্যসাচী! সত্যি খবরটা জানিয়ে মুখ খুললেন সৌরভ দাস

ঐন্দ্রিলা শর্মার (Aindrila Sharma) মৃত্যুর পর দেখতে দেখতে প্রায় পাঁচটা দিন কেটে গেল। ব্রেন স্টোকে আক্রান্ত হওয়ার পর তৃতীয়বার মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছিলেন তিনি। ২০ দিন সেই লড়াই চলার পর অবশেষে মৃত্যুর কাছেই হার মেনে নেন ঐন্দ্রিলা। ঐন্দ্রিলার জন্য সোশ্যাল মিডিয়াতে সকলের কাছে মিরাকেলের প্রার্থনা করার অনুরোধ জানিয়েছিলেন তার কাছের মানুষ সব্যসাচী চৌধুরী (Sabyasachi Chowdhury)। তবে নিয়তি ঐন্দ্রিলাকে তার কাছ থেকে কেড়েই নিল।

ঐন্দ্রিলা চলে যাওয়ার কয়েক ঘন্টা আগে ফেসবুক থেকে তাকে নিয়ে করার সমস্ত পোস্ট মুছে ফেলেন সব্যসাচী। তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হওয়ার পর ফেসবুক অ্যাকাউন্টটাও ডিলিট করে দেন তিনি। একদিন পর তার ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টাও ডিলিট হয়ে যায়। এভাবে সোশ্যাল মিডিয়া থেকে নিজেকে পুরোপুরি আলাদা করে ফেলেন তিনি।

তবে তিনি সোশ্যাল মিডিয়া ছাড়লেও তাকে নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ার মাথাব্যথা বেড়েছে বই কমেনি। বর্তমানে সব্যসাচীকে নিয়ে একের পর এক খবর শোনা যাচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়াতে। শোনা যাচ্ছে তিনি নাকি মানসিক এবং শারীরিকভাবে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। এমনকি তাকে নাকি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে খবর ছড়িয়ে পড়ে।

সব্যসাচীকে নিয়ে এমনই সব খবরে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন নেটিজেনরা। সোশ্যাল মিডিয়া এইসব খবরে তোলপাড় হতে শুরু করে। জল্পনা এমন পর্যায়ে ছড়িয়ে পড়েছে যে অবশেষে এই বিষয়ে মুখ খুলতে বাধ্য হন ঐন্দ্রিলা ও সব্যসাচীর দুজনেরই কাছের বন্ধু সৌরভ দাস। সব্যসাচীর হয়েই সব প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন তিনি। জানিয়েছেন যেসব খবর এখন রটানো হচ্ছে সেগুলো সম্পূর্ণ মিথ্যে।

সৌরভ এও জানিয়েছেন সব্যসাচী আসলে এখন সোশ্যাল মিডিয়াতে নেই বলেই তাকে নিয়ে গুজব রটানোটা যেন সহজ হয়ে গিয়েছে কিছু মানুষের জন্য। তবে তিনি মানুষকে এই ধরনের কাজ থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিয়েছেন। গতকাল মাঝরাতে সৌরভ সোশ্যাল মিডিয়াতে একটি পোস্ট করে লেখেন, “সব্যসাচী সুস্থ আছে। সাথে আমি আছি ও থাকব। যারা ভুয়ো খবর রটাচ্ছেন তারা অসুস্থ, বিব্রত হবেন না।”

সব্যসাচীকে নিয়ে এই ধরনের খবর রটানোতে ভীষণই বিরক্ত হয়েছেন সৌরভ। তিনি লিখেছেন যেহেতু তিনি চান তার এই পোস্ট থেকে সব্যসাচীর সম্পর্কে আসল খবরটা অনেক মানুষের কাছে পৌঁছে যাক তাই তিনি গালমন্দ করতে চাইছেন না এই পোস্টে। তবে আগামী দিনে ভুয়ো খবর শেয়ার করা হলে আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে হুমকিও দিয়ে রেখেছেন তিনি।