প্রকাশ্যে এল সিদ্ধার্থ-শেহনাজের অপ্রকাশিত মিউজিক ভিডিও, চোখের জলে ভাসছে দর্শকরা

২রা সেপ্টেম্বর গভীর রাতে সকলের অজান্তে ঘুমের মধ্যেই চিরঘুমের দেশে পাড়ি দিয়েছেন সিদ্ধার্থ শুক্লা (Sidharth Shukla)। মাত্র ৪০ বছর বয়সেই তিনি যেভাবে অপ্রত্যাশিত মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লেন, তা মানতে পারছেন না কেউই। সিদ্ধার্থকে হারিয়ে ভেঙে পড়েছেন তার প্রেমিকা শেহনাজ (Shehnaaz Gill)। অভিনেতার মৃত্যুতে ভেঙে গিয়েছে দর্শকের অতি প্রিয় সিডনাজ জুটি। তবে সিদ্ধার্থের মৃত্যুর পরেও ফিরে এলো সিডনাজ! প্রকাশ্যে এল তাদের ভালোবাসার কিছু অপ্রকাশিত মুহূর্ত।

শ্রেয়া ঘোষালের (Sherya Ghoshal) মিউজিক ভিডিও ‘হ্যাবিট’ এ ধরা পড়েছে সিদ্ধার্থ এবং শেহনাজের সম্পর্কের কেমিস্ট্রি। সিডনাজকে নিয়েই বানানো হয়েছে এই মিউজিক ভিডিও। ভিডিওটি এতদিন অপ্রকাশিত ছিল। গত বছর এই ভিডিও বানানোর কাজ শুরু হয়। সিদ্ধার্থের মৃত্যুর পর সেই গানের ভিডিওর কিছু দৃশ্য প্রকাশ করা হয়েছে নেট মাধ্যমে। ফটোগ্রাফার ওভেজ শায়েদ এই ছবিগুলি নেট মাধ্যমে শেয়ার করেছেন।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Bollywood Pap (@bollywoodpap)

এই মিউজিক ভিডিওর শুটিং হয়েছিল গোয়াতে। সেখানে সিদ্ধার্থ এবং শেহনাজ ছিলেন রংমিলান্তি জুটি। নীল রংয়ের মনোকিনীর সঙ্গে নীল রঙের টুপি পরে সমুদ্রপাড়ে আরামে রোদ পোহাচ্ছেন শেহনাজ। তার পাশেই রয়েছেন সিদ্ধার্থ। প্রেমিকার সঙ্গে মিলিয়ে নীল রঙা শর্টস এবং নীল-সাদা ফ্লোরাল প্রিন্টেট শার্ট পরেছেন তিনিও। এই ছবি দেখে সিডনাজের অনুরাগীরা চোখের জল ধরে রাখতে পারেননি। তারা এখন অধীর আগ্রহে সিডনাজকে শেষবার কাছাকাছি আসতে দেখতে চান।

কবে মুক্তি পাবে এই গান? অধীর আগ্রহে দিন গুনছেন ভক্তরা। যদিও গানের প্রকাশের দিনক্ষণ এখনও জানানো হয়নি। সিদ্ধার্থ এবং শেহনাজের মাখোমাখো প্রেমের কেমিস্ট্রি এই ছবিতে স্পষ্ট ধরা পড়েছে। সিদ্ধার্থ এবং শেহনাজ যে একে অপরকে চোখে হারাতেন, একথা জানেন তাদের ভক্তরা। এই ছবিতেও তাদের সম্পর্কের সেই দিকটি বেশ ধরা পড়েছে।

২ বছর একসঙ্গে কাটানোর পর চলতি মাসের ডিসেম্বর মাসেই তাদের বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু নিয়তির কাছে হেরে গেল ভালোবাসা। শেহনাজের কোলে মাথা রেখেই চিরতরে ঘুমের দেশে পাড়ি দিলেন সিদ্ধার্থ। এদিকে সিদ্ধার্থকে হারিয়ে ভেঙে পড়েছেন শেহনাজ। খাওয়া-দাওয়া, ঘুম একপ্রকার ছেড়েই দিয়েছেন তিনি। শোক কাটিয়ে কবে আবার স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারবেন শেহনাজ? অপেক্ষায় দিন গুনছেন পরিবারের সদস্যরা।