শুক্রবার শিবরাত্রি, জেনে নিন পঞ্জিকা মতে শিব পুজোর মহেন্দ্রক্ষণ ও নির্ঘণ্ট

কথায় আছে বাঙালীর বারো মাসে তেরো পার্বন এর তার মধ্যেই একটি শিবরাত্রি। হিন্দু ধর্মে যত ব্রত রয়েছে তার মধ্যে মহাশিবরাত্রিকে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়। পূরানে কথিত আছে এই শিবরাত্রির দিন শিব ও পার্বতীর বিবাহ হয়েছিল আবার এই শিবরাত্রির দিনই নাকি মহাদেব সৃষ্টি,স্থিতি ও প্রলয়ের তান্ডব নৃত্য করেছিলেন।

সাধারণত বলতে শোনা যায় এই শিবরাত্রি মূলত মেয়েদের ব্রতকথা। বিবাহিত হোক বা অবিবাহিত মহিলা এই শিবরাত্রির দিনটি নিষ্ঠার সাথে পালন করেন সবাই। গ্রাম হোক বা শহরের মন্দির, মহিলাদের ঢল পড়ে যায় শিবের মাথায় জল ঢালার। তবে শিবরাত্রি যে কেবলই মহিলারা পালন করতে পারেন সেই ভাবনাচিন্তা এখন অনেকটাই বদলেছে। তাই তো ফাল্গুন মাসে বাঁক নিয়ে মাইলের পর মাইল হেঁটে পুরুষরাও যান বাবার মাথায় জল ঢালতে।

এবছর শিবরাত্রি পড়েছে ফেব্রুয়ারির ২১ তারিখ, বাংলার ৮ ফাল্গুন। ২১ শে ফেব্রুয়ারি বিকেল ৫.৪১ মিনিট থেকে পরের দিন অর্থাৎ ২২শে ফেব্রুয়ারি ৬টা ৩৯ মিনিট পর্যন্ত তিথি থাকবে এই সময়ের মধ্যেই শিবের মাথায় জল ঢালতে হবে।

আরও পড়ুন :- শিব পুজো যেসব দিয়ে করলে সকল মনস্কামনা পূর্ন হবে

গঙ্গাজল, দুধ বেলপাতা ও ফুল দিয়ে এই দিন শিবের পূজো করা হয়। শিবরাত্রির একবেলা আগে ভক্তরা নিরামিষ খান। শিবের মাথায় জল ঢালার আগে স্নান কে দেহ ও মন শুদ্ধ করে তবেই শিবের মাথায় জল ঢালা দরকার। মহাশিবরাত্রির দিন শিবের মাথায় জল ঢেলে কোনো মনস্কামনা করলে নাকি তা পূরণ হয়। তাই ওই দিনটিতে মা, ঠাকুমা বা অবিবাহিত মহিলারা নিজের মনস্কামনা পূরণ করতে বা স্বামী সন্তানের মঙ্গল চেয়ে শিবের মাথায় জল ঢালে।

শুদ্ধ মনে শিবের মাথায় জল ঢালতে হয়। বাড়িতে হোক বা মন্দিরে মহাশিবরাত্রির দিন ভক্তরে উপবাস থেকে নিষ্ঠার সাথে শিবের মাথায় জল ঢালে। এই গোটা ফাল্গুন মাস তারকেশ্বরে লাখে লাখে ভক্ত বাবার মাথায় জল ঢালতে যায়। মহিলাদের সাথে সাথে পুরুষেরাও নিজের মনস্কামনা নিয়ে খালি পায়ে হেঁটে বাবার মাথায় জল ঢালতে যায়।

আরও পড়ুন :- কীভাবে শুরু হয়েছিল শিবরাত্রি ব্রত? জেনে নিন পুরো কাহিনী

এই পূজো করতে কোনো জটিল মন্ত্র লাগে না। শুধুমাত্র ওঁ নমঃ শিবায়’ মন্ত্র জপ করে শিব ঠাকুরের মাথায় জল ঢাললেই মানস পূরণ হয়। দুধ বেলপাতা ফুলের সাথে ধুতুরা, আকন্দ ও অপরাজিতা ফুল দিয়ে পূজো করেন ভক্তরা। এই দিনটিতে ভারতবর্ষের মোট বারোটি জ্যোতির্লিঙ্গ কেদারনাথ, মল্লিকার্জুন, মহাকালেশ্বর, বিশ্বেশ্বর,ত্র্যয়ম্বকেশ্বর , বৈদ্যনাথ, ভীমশঙ্কর, নাগেশ্বর, রামেশ্বর, ঘুশ্মেশ্বরে ভক্তরা জল ঢালতে যান দূরদূরান্ত থেকে। একমাত্র এই শিবরাত্রির দিন এই জ্যোতির্লিঙ্গগুলিকে ষ্পর্শ করতে পারেন ভক্তরা।