ব্যাঙ্কের ফিক্সড ডিপোজিটের চেয়ে বেশি সুদ দেবে যে যে প্রকল্পে

আজকের মধ্যবিত্ত চাকুরিজীবি মানুষদের একটাই চিন্তা। তাদের কষ্টার্জিত টাকা কোথায় বিনিয়োগ করবেন, যেখানে সুদের হার, ব্যাংকের স্থায়ী আমানতের সুদের হারের চেয়ে বেশি হয়। এমনিতেই রোজ রোজ বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি ব্যাঙ্কের স্থায়ী আমানতের উপর সুদের হার কমছে। আর তাছাড়া বিভিন্ন রকম ব্যাংক জালিয়াতির ঘটনা সাধারণ গ্রাহক থেকে সকল শ্রেণীর  মানুষের কাছেই চিন্তার বিষয়। কিন্তু তবুও সাধারণ মানুষ থেকে মধ্যবিত্ত চাকুরিজীবিদের এখনও সঞ্চয়ের প্রধান ভরসার জায়গা ব্যাঙ্ক। তবে এইসব চিন্তা ছেড়ে আমরা আজ বিশেষ কিছু  স্কিমের কথা জানাবো যা থেকে পাওয়া সুদের  হার ব্যাংকের স্থায়ী আমানতে রাখা সুদের চেয়ে বেশি। অর্থাৎ আপনার উপার্জন বেশি হবে।

PPF (Public provident Fund)

এই স্কিমে আপনার জমানো টাকার উপর সুদের হার সাধারণত FD বা স্থায়ী আমানতের উপর পাওয়া সুদের উপর থেকে সবসময়  বেশি। বর্তমানে এই স্কিমে রাখা টাকার উপর সুদের পরিমান ৭.৬%। আর এই স্কিমে রাখা বাৎসরিক ১.৫ লক্ষ টাকার উপর আপনাকে আয়কর দিতেও হয় না। আবার পাওয়া সুদের উপরও বাড়তি কোনো ট্যাক্স দিতে হয় না। অর্থাৎ আপনার কাছে  এক ঢিলে দুই পাখি মারার মতো সুবিধা। এক বছরে সবচেয়ে বেশি ১.৫ লক্ষ টাকা একবারে বা ধাপে ধাপে প্রতি মাসে  এই স্কিমে আপনি রাখতে পারবেন। তবে এই ক্ষেত্রে আপনার সঞ্চিত টাকার লক ইন পিরিয়ড হল ১৫ বছর। অর্থাৎ আপনাকে এই সময় ধরে টাকা রাখতে হবে। তবে বিশেষ কারণে ৫ বছর পর আপনি টাকা তুলতে পারবেন। তবে সেক্ষেত্রে সুদের হারের তারতম্য হতে পারে। ১৮ বছর বা তার বেশি যেকোন ভারতীয় নাগরিক এই স্কীম সরকারি বা বেসরকারি ব্যাংকে খুলতে পারবেন। তবে ১৮ বছরের নীচে যেকোন নাগরিকদের জন্য পরিবারের বাবা মায়েরা এই স্কীম খুলতে পারেন। তবে একজন ব্যক্তি শুধুমাত্র একটি এই একাউন্ট খুলতে পারবে। ন্যুনতম ৫০০ টাকা দিয়ে এই একাউন্ট আপনি খুলতে পারেন।

আরো পড়ুন : ব্যাঙ্ক ছেড়ে পোস্ট অফিসে টাকা রাখুন; জেনে নিন ৯ টি স্কিম

EPF(Employees Provident Fund)

এই স্কীম সাধারণত সরকারি বা বেসরাকরি সংস্থায় কর্মরত কর্মচারীদের জন্য খুবই লাভজনক। সাধারণত যেসব সংস্থা সরকারি রেজিস্ট্রিকৃত এবং যেখানে নিযুক্ত কর্মচারীর সংখ্যা ১০ বা তার বেশি তারা এই প্রকল্পে টাকা রাখতে পারবেন। এক্ষেত্রে যারা ১৫,০০০ টাকা বা তার বেশি মাসিক বেতন পায় তারা এই স্কিমে টাকা রাখতে পারেন। এক্ষেত্রে যে কোম্পানি বা সরকারি সংস্থায়  আপনি কর্মরত তারা আপনার বেতনের একটা নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থাৎ বেসিকের ১২% এই স্কিমে জমা দেয় আর সমপরিমাণ টাকা আপনাকে দিতে হয়।বর্তমানে এই স্কিমে সুদের হার ৮.৫৫%। এই স্কিমে রাখা আপনার  বাৎসরিক সর্বোচ্চ ১.৫ লক্ষ টাকা আয়করের আওতায় পড়ে না। তবে আপনার রিটায়ারমেন্ট হওয়ার পূর্বে আপনার বিশেষ কিছু ক্ষেত্রে এই স্কীম থেকে আপনার জমানো টাকার কিছুটা অংশ আপনি তুলতে পারেন। যেমন বিবাহ, শিক্ষা, ঘর নির্মাণ ,জমি ক্রয় ইত্যাদি ক্ষেত্রে  তবে বিশেষ কিছু নিয়ম মেনে তা পাওয়া যায়। হঠাৎ যদি ২ মাসের বেশি সময় আপনি কর্মহারা বা বেকার হয়ে পাড়েন তাহলে এই স্কীম থেকে আপনার সঞ্চিত টাকা তুলতে পারবেন সুদসহ।

আরো পড়ুন : ভারতীয় ব্যাঙ্ক দুর্নীতি তে ভর্তি কেন?

VPF(VOLUNTARY PROVIDENDT FUND)

এই স্কিমে যারা কর্মজীবী অর্থাৎ চাকুরিজীবি তারা তাদের টাকা রাখতে পারেন বেশি সুদ বা লাভের আশায়। এক্ষেত্রে আপনার নিয়োগকারী সংস্থা বা কোম্পানিকে এই স্কিমে টাকা রাখতে হয় না। পুরোটাই রাখেন আপনি আপনার মাসিক বেতনের টাকায়।এক্ষেত্রে সুদের হার ৮.৫৫%। এই স্কিমেও রাখা বাৎসরিক সর্বোচ্চ ১.৫ লক্ষ টাকা আয়করের আওতায় পড়ে না। আপনার মাসিক বেসিক বেতনের ১২% টাকা আপনি এই স্কিমে রাখতে পারেন।সংগঠিত ক্ষেত্রের কর্মচারী যারা পেস্লিপ এর মাধ্যমে মাসিক বেতন পান তাদের ক্ষেত্রে এই স্কিমে টাকা রাখা যায়। তবে এই ক্ষেত্রে চাকরি থেকে অবসর না পাওয়া পর্যন্ত টাকা এই স্কীম থেকে তুলতে পারে না। তবে বিশেষ কিছু ক্ষেত্রে ৫ বছর পর এই স্কিমে রাখা টাকা  তুলতে পারবেন।

আরো পড়ুন : ২০১৮ সালের ভারতের সেরা ৮টি পেমেন্ট ব্যাঙ্কের খুঁটিনাটি সম্পর্কে জেনে নিন

PSU Bonds

এক্ষেত্রে বিভিন্ন পাবলিক সেক্টর উইনিট বিভিন্ন বন্ড বাজারে ছাড়ে আপনি তাতে টাকা লাগিয়ে কিনতে পারেন। একটা নির্দিষ্ট সময়ের জন্য। এক্ষেত্রে সুদের পরিমান ৮-৮.৫%। সাধারণত এইসব বন্ড রাখার সময়সীমা হয় ১৫ থেকে ২০ বছর। তবে একটা নির্দিষ্ট সময় অন্তর আপনি তা বিক্রি করে দিতেও পারেন। তবে এক্ষেত্রে আপনার নিয়োজিত টাকায় আয়কর দিতে হয় যদি তা আয়করের সীমা অতিক্রম করে।

আরো পড়ুন : কালো টাকার খবর দিলেই মিলবে ৫ কোটি!

SCSS(SENIOR CITIZEN SAVING SCHEME)

এই স্কীম যদিও সবার জন্য নয়। সাধারণত বিভিন্ন অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারী  যাদের বয়স ৫৫ বা ৬০ বছর, যারা তাদের কাজ থেকে অবসর নিয়েছেন এবং তাদের কর্মজীবনের সঞ্চিত টাকার উপর বেশি সুদের আশা করেন তাদের জন্য এই স্কীম একদম উপযুক্ত। এক্ষেত্রে  সর্বোচ্চ এককালীন ১৫ লক্ষ টাকা রাখা যেতে পারে। এক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ১.৫ লক্ষ  রাখা টাকার উপর আয়কর লাগে না। তবে প্রাপ্ত সুদের হার যদি ১০,০০০ টাকা বা তার বেশি হয় তাহলে TDS দিতে হয়। একা বা যুগ্মভাবে স্বামী স্ত্রী এই স্কিমে টাকা রাখতে পারেন। তবে অবশ্যই প্রথম নামধারীর বয়স ৫৫ – ৬০ এর মধ্যে হতে হবে। তবে অবসর গ্রহণ করার পর অবসরকালীন সুবিধা পাওয়ার এক মাসের মধ্যেই এই স্কীম খুলতে হয়। এক্ষেত্রে একজন বয়স্ক নাগরিক একের থেকে বেশি এই স্কীম খুলতে পারে। তবে তাতে মোট নিযুক্ত মূলধন যেন সর্বমোট ১৫ লক্ষ টাকা অতিক্রম না করতে পারে। এই স্কিমে বর্তমানে সুদের পরিমান ৮.৪%। তবে এই স্কিমে টাকা রাখার ন্যুনতম একবছর পর্যন্ত  আপনি  টাকা তুলতে পারবেন না। সাধারণত ৫ বছর বা ৩ বছরের সময়কাল ধরে এই স্কিমে টাকা রাখা হয়।

SSY(SUKANYA SAMRIDDHI YOJANA)

এই যোজনায় আপনার যদি বাড়িতে কন্যা সন্তান থাকে, আর তার বয়স যদি ১০ বছরের মধ্যে হয় তাহলে আপনি তার নামে এই যোজনায় টাকা রাখতে পারেন। সদ্যজাত থেকে ১০ বছরের সীমায় থাকা মেয়ের জন্য এই যোজনায় আপনি যেকোন ব্যাংকেও পোস্ট অফিসে এই একাউন্ট খুলতে পারেন। এক্ষেত্রে আপনি বাৎসরিক সর্বোচ্চ ১.৫ লক্ষ টাকা  ও সর্বনিম্ন ১০০০ টাকা জমা করতে পারেন। এই প্রকল্পে রাখা বাৎসরিক  টাকার উপর আয়কর লাগে না। আর তাছাড়া সুদের টাকা বা ম্যাচুরিটির সময় পাওয়া টাকার উপরও কোনো কর দিতে হয় না। এক্ষেত্রে টাকা রাখার সময় কাল ২১ বছর। তবে বিশেষ অবস্থায় মেয়ের বয়স ১৮ হলেও এই টাকা তুলে নেওয়া যায়। প্রথমে ১০০০ টাকা দিয়ে এই যোজনা শুরু করতে হয়। বর্তমানে এই প্রকল্পে সুদের হার ৮.১%। নারীর আর্থিক সুরক্ষার জন্য এই প্রকল্প ভারত সরকার শুরু করেছে। একজন মাতা পিতার সর্বোচ্চ দুই মেয়ের জন্য এই প্রকল্পে টাকা রাখা যেতে পারে।

আরো পড়ুন : আপনার কষ্টার্জিত টাকা কোথায় ও কীভাবে বিনিয়োগ করলে তাড়াতাড়ি বাড়বে

Government Saving Bonds

এই বন্ড সরকার কতৃক বাজারে ছাড়া হয়। এই বন্ড কিনে আপনি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত রাখতে পারলে লাভবান হবেন। এক্ষেত্রে এই বন্ড রাখার সময়সীমা হল ৬ বছর। সুদের পরিমান ৭.৭৫%। এক্ষেত্রে নিয়োজিত টাকার উপর আয়কর লাগে যদি তা আয়করের সীমা অতিক্রম করে। তবে এক্ষেত্রে আপনার মূলধন নিয়োজিত করার মধ্যে কোন সর্বোচ্চ সীমা থাকে না।

Debt  Mutual Fund Investment

বিভিন্ন মিউচ্যুয়াল ফান্ড কোম্পানি বাজার থেকে টাকা তোলার জন্য এই ঋণ জনিত বন্ড বাজারে ছাড়ে আর তা তে আপনি আপনার টাকা দিয়ে তা কিনতে পারেন। এক্ষেত্রে পাওয়া সুদের পরিমান ৮-৯%। তবে তা আয়করের আওতায় পড়ে। যদিও সুদের পরিমান বাজারের উপর নির্ভর করে। তবে দীর্ঘস্থায়ী বিনিয়োগের ক্ষেত্রে একদম আদর্শ এই বিনিয়োগ। যদি আপনার ঝুঁকি নেওয়ার ক্ষমতা থাকে। তবে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়েই এই ফান্ডে টাকা নিয়োজিত করা দরকার। কারণ বাজার সম্বন্ধে আপনার আমার ধারনা উপযুক্ত নয়।

আরো পড়ুন : ব্যাঙ্ক ছেড়ে পোস্ট অফিসে টাকা রাখুন; জেনে নিন ৯ টি স্কিম

আশাকরি উপরের বর্ণিত বিভিন্ন প্রকল্প সম্বন্ধে জেনে আপনার কষ্টার্জিত টাকা সঠিক প্রকল্পে বিনিয়োগ করে তা  কাঙ্খিত বৃদ্ধি করতে পারবেন।