ব্যর্থ মা, টাকার পেছনে ছুটে নিজের সন্তানকেই মানুষ করতে পারেননি! আক্ষেপ সিরিয়ালের ‘শ্রীময়ী’র

মা হিসেবে ব্যর্থ, অভিনয়ের জন্য ছেলের দায়িত্ব নিতে পারেননি, আক্ষেপ রুপালীর

বাংলা সিরিয়ালের মধ্যে শ্রীময়ী বেশ জনপ্রিয় একটি সিরিয়াল ছিল। স্টার জলসার এই সিরিয়ালটি দর্শকদের মাঝে এতটাই জনপ্রিয়তা পায় যে দ্রুত অন্যান্য ভাষাতেও এর রিমেক কিংবা ডাবিং শুরু হয়ে যায়। বাংলার শ্রীময়ী বন্ধ হয়ে গিয়েছে বহু আগে। হিন্দিতে এখনও শ্রীময়ীর রিমেক ‘অনুপমা’ (Anupama) চলছে রমরমিয়ে।

এই ধারাবাহিকের প্রধান চরিত্রে অভিনয় করছেন রূপালী গঙ্গোপাধ্যায় (Rupali Ganguly)। বাংলার এই মেয়ে হিন্দি সিরিয়ালের জনপ্রিয় মুখ। তবে ‘অনুপমা’ ধারাবাহিকটি তাকে জনপ্রিয়তার শিখরে নিয়ে গিয়েছে। সারা দেশ জুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে তার এই জনপ্রিয়তা। প্রচুর খ্যাতি, নাম, যশ এবং অর্থ পাচ্ছেন সিরিয়ালে কাজ করে। তবে কাজের পেছনে ছুটতে ছুটতে ছেলের প্রতি নিজের দায়িত্ব কর্তব্য পালন করে উঠতে পারেননি অভিনেত্রী।

রুপালি গঙ্গোপাধ্যায় বাস্তব জীবনে বিয়ে করেছেন অশ্বিন কে বর্মা নামের এক ব্যক্তিকে। তাদের একটিই মাত্র সন্তান, রুদ্রাংশ। দূর্গা পূজার প্যান্ডেলেও স্বামী এবং পুত্রের সঙ্গে দেখা মিলেছিল অভিনেত্রীর। রুদ্রাংশের বয়স এখন খুব বেশি নয়। সিরিয়ালের শুটিংয়ের চাপে ছেলেকে সময় দিয়ে উঠতে পারেন না অভিনেত্রী। ছেলে দেখাশোনা করতে হয় তার বাবাকেই।

সম্প্রতি রূপালী একটি সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন তার স্বামী কীভাবে দায়িত্ব পালন করে তাকে দায়মুক্ত করেছেন। তার স্বামীই তাদের ছেলের মা এবং বাবা হয়ে উঠেছেন একইসঙ্গে। এমন একজন স্বামী পেয়ে নিজেকে ভাগ্যবতী বলে মনে করেন অভিনেত্রী। কারণ তিনি বরাবর তার স্বামীর থেকে সমর্থন পেয়েছেন। তার স্বামী আর পাশে দাঁড়ানোর জন্য তাড়াতাড়ি আমেরিকা থেকে রিটায়ারমেন্ট নিয়ে ভারতে চলে আসেন।

রূপালি জানিয়েছেন তার স্বামী আমেরিকাতে কর্মরত ছিলেন। স্ত্রী সিরিয়ালে কাজ করেন তাই নিজে চাকরি ছেড়ে ছেলেকে সময়ে দেওয়াটাই তিনি জরুরি বলে মনে করেছিলেন। অভিনেত্রী জানিয়েছেন তাদের চাহিদা কোনদিনই খুব বেশি কিছু ছিল না। তার স্বামী তাকে বলেছিলেন তাদের সন্তানের অন্তত একজন অভিভাবক দরকার। আর সেই জায়গাটা তিনি নিজে পূরণ করেছেন।

রূপালি এও বলেছেন ছেলেকে কখনও তারা হাউজ হেল্পের ভরসায় ছাড়েননি। অবশ্য তাদের একজন দুর্দান্ত কেয়ারটেকার রয়েছেন। তিনি তাদের পরিবারেরই একটি অংশ। তবে তার স্বামী যেহেতু ভীষণ সাপোর্টিভ তাই রুদ্রাংশ তার মা এবং বাবা দুজনকেই পেয়েছে। মা হিসেবে রূপালি নিজেকে ব্যর্থ বলে মনে করেন। তবে তিনি খুশি তার স্বামী ছেলের জন্য বাবা এবং মা দুজনেরই দায়িত্ব পালন করছেন।