“দেবলীনার মা দুর্গাপুজোয় গরুর মাংস রান্না করেন?” অভিনেত্রীকে পাল্টা দিলেন রুদ্রনীল

‘গো-মাংস রান্না’ ইস্যুতে বিতর্ক এখনও অব্যাহত। যে বিষয়ে মুখ খুলে বর্তমানে গেরুয়া শিবিরের চক্ষুশূল হয়ে দাঁড়িয়েছেন অভিনেত্রী দেবলীনা দত্ত (Debolina Dutta)। বেজায় সরগরম নেটদুনিয়াও।

Deboleena Dutta and Rudranil Ghosh

কিছুদিন আগে অভিনেত্রী দেবলীনা দত্তের (Debolina Dutta) একটি কথাকে ঘিরে বিতর্কের ঝড় উঠেছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়। তিনি বলেছিলেন, নিজে নিরামিষাশী হলেও প্রয়োজনে কারোর বাড়িতে অষ্টমী বা নবমীর দিন গিয়ে তিনি গোমাংস রান্না করে দিতে পারেন। তার এই কথাকে ঘিরে বিভিন্ন রকম হুমকি এমনকি ধর্ষণের হুমকির সন্মুখীন হতে হয় অভিনেত্রীকে। এবার সেই প্রসঙ্গে মুখ খুললেন অভিনেতা রুদ্রনীল ঘোষ (Rudranil Ghosh)।

দেবলীনা কে ধর্ষণের হুমকির প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “দেবলীনা দত্ত সম্বন্ধে যদি কোন নারী বিদ্বেষী মন্তব্য করা হয়ে থাকে তাহলে সে প্রসঙ্গে আগে সাইবার সেলে অভিযোগ করা উচিত। সেখান থেকে কি কোনো সুরাহা মেলেনি? তবে রাস্তায় নামার ঘটনা ঘটেছে কেন?

অভিনেতার কথায়, ধর্ষণের হুমকিকে তিনি একদমই সমর্থন করেননা।কিন্তু তার কথায়, স্বাধীনতা মানে সচেতন হওয়া।দেবলীনাকে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, “নিজেকে আধুনিক প্রমাণ করতে গিয়ে অন্যের মনে দুঃখ দেওয়া উচিত নয়।” তিনি এও জানান, মেট্রো চ্যানেলে “অতি উৎসাহী মানুষের উসকানিমূলক বক্তব্যকেও” সমর্থন করেনা তিনি।

শুধু তাই নয়, গোমাংস খাওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন “কোন বাঙালি বাড়িতে গোমাংস রান্না হয়েছে? আমি তো জানিনা!” তার কথায়,মাংস দুর, অষ্টমীর দিন অধিকাংশ বাঙালি বাড়িতে মাছ পর্যন্ত রান্না করা হয় না,খাওয়া হয় নিরামিষ। তার মতে, কথা বলার আগে সচেতন থাকা প্রয়োজন।

তিনি আরো জানান, “দেবলীনা দত্ত যেভাবে গোটা দেশের সামনে টেলিভিশনে পুজোর সময় গরুর মাংস রান্না করার কথা বলেছেন তাতে আমাদের দেশের একটি বিরাট মানুষ তাঁদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত পেয়েছেন। সেই বিরাট অংশের মানুষরা যে শুধুমাত্র বিজেপির সাথে সংযুক্ত এটা ভাবলে ভুল করা হবে। শুনলাম অভিনেত্রীর বৃদ্ধা মা আতঙ্কিত হয়ে রয়েছেন। তিনি নিজেও পুজোতে গরুর মাংস কোনদিন রান্না করার কথা ভেবেছেন? জিজ্ঞেস করুন তাঁকে।”

তবে শিল্পীদের খুন-ধর্ষণের হুমকি দেওয়ার বিষয়টির বিরোধিতাও করেছেন অভিনেতা। এর বিরুদ্ধে যে রাজ্য সরকারের কড়া পদক্ষেপ নেওয়া উচিত, সেকথাও জানান অভিনেতা। তাঁর কথায়, “যে বা যাঁরা এই হুমকিগুলো দিয়েছে, তাদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ করা উচিত।”

বিগত কিছুদিন ধরেই অভিনেতার গেরুয়া শিবিরে নাম লেখানো নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে।সদ্য বিজেপিতে যোগ দাওয়া তৃণমূলের দাপুটে নেতা শুভেন্দু অধিকারীর সাথেও দেখা করেছেন তিনি। নেতাজির জন্ম বার্ষিকী দিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়ের সঙ্গে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছবি পোস্ট করেন রুদ্রনীল।

এরপরই রুদ্রনীলের লেখা “সাতে পাঁচে থাকি না” কবিতার লাইন পালটে তাঁকে সোশ্যাল মিডিয়ায় বিদ্রুপ করা হয়। পরিচালক অনিকেত চট্টোপাধ্যায় (Aniket Chattopadhyay) সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি কবিতা আপলোড করেছেন। সেখানে তিনি বলেছেন, “দাদা আমি সাতে পাঁচে থাকি না, তবে দুধ চাই, মধু চাই, লালবাতি গাড়ি চাই, তিন লাখি পদ চাই, সে সব তো ছাড়তেই পারি না! দাদা আমি সাতে পাঁচে থাকি না, তবে দেখেছি অনেক ভেবে কী কোথায় পাওয়া যাবে, সেই হিসেবের শেষে সে গোয়ালে কে কে যাবে? যদি লাভ থাকে সে হিসেবে, সে সুযোগ আমি কভু ছাড়ি না।”

এর উত্তরে অভিনেতা রুদ্রনীল বলেছেন, “আমার ওনার প্রতি শুভেচ্ছা রইল। সাম্প্রতিককালে বোধহয় ওনার হাতে কোনও ছবি নেই। লেখালেখি নিয়েই থাকুন। ওনার আমি আরোগ্য কামনা করছি।” বিজেপিতে যোগ দেওয়া প্রসঙ্গে অভিনেতা জানিয়েছেন, সবদিক ভেবেই সিদ্ধান্ত নেবেন তিনি।