বাবার মৃত্যুর ১১ বছর পর চোখের জলে বাবাকে খোলা চিঠি লিখলেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত

Rituparna Sengupta Writes an Open Letter to Her Father

সন্তানের জীবনে বাবা-মায়ের বিকল্প বলে কিছু হয়না। বাবা-মাকে যারা হারিয়েছেন, তারাই একমাত্র তাদের অভাব বেশ ভালোমতোই বুঝতে পারেন। মা-বাবা বরাবর সন্তানদের গায়ে বাইরের ঝড়ঝাপটার আঁচ লাগতে দেন না। সন্তানের আবদার মেটাতে সদা তৎপর থাকেন তারা। বিশেষত মেয়েদের কাছে বাবার স্থান অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। টলিউড (Tollywood) অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তের (Rituparna Sengupta) কাছেও তার বাবা ছিলেন সবথেকে কাছের মানুষ। যার অভাব দীর্ঘ প্রায় ১১ বছর ধরে অনুভব করছেন তিনি।

আজ থেকে ১১ বছর আগে ঋতুপর্ণার বাবার মৃত্যু হয়েছে। আজ, অর্থাৎ ১৮ই জুলাই তার বাবার মৃত্যুদিন। বাবার মৃত্যুবার্ষিকীতে তাকে আরও বেশি মনে পড়ছে অভিনেত্রীর। এক দশক পেরিয়ে গিয়েছে, ঋতুপর্ণা তার বাবাকে হারিয়েছেন। তবে তিনি আজও বাবাকে নিজের আশেপাশেই অনুভব করেন। সর্বদাই যেন বাবার হাসির আওয়াজ শুনতে পান। তার মনে হয় না যে বাবা তাকে ছেড়ে খুব বেশি দূরে কোথাও চলে গিয়েছেন। আজ বাবার মৃত্যুবার্ষিকীতে তাই সোশ্যাল মিডিয়ায় বাবার উদ্দেশ্যে খোলা চিঠিতে নিজের মনের কথা লিখলেন ঋতুপর্ণা।

আজকের এই বিশেষ দিনে বাবার সঙ্গে নিজের একটি ছবি পোস্ট করেছেন অভিনেত্রী। বাবার উদ্দেশ্যে আবেগঘন বার্তায় তিনি জানিয়েছেন, “আজও তার বাবাকে তিনি কতটা মিস করেন। অভিনেত্রী তার ইনস্টাগ্রাম ওয়ালে বাবার উদ্দেশ্যে লিখেছেন, আমি আজও তোমার খিলখিল করে হেসে ওঠার শব্দ শুনতে পাই। আমার জন্য তোমার চিন্তা-উদ্বেগ, আমি আজও যেন স্পষ্ট অনুভব করি। যদিও আজ তোমার ফোন আসা বন্ধ হয়ে গিয়েছে”।

অভিনেত্রী আরও লিখেছেন, “আমি যখন অন্য শহরে থাকতাম তখন বারবার তোমার ফোন আসত, আমার তখন নিজেকে ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ বলে বোধ হতো। আমার কান আজও তোমার খিলখিল করে হেসে ওঠার শব্দ শুনতে পায়। জীবনের বহু ক্ষেত্রে তুমি আমায় উপদেশ দিতে। কিন্তু তুমি কখনো বলোনি যে তুমি এত তাড়াতাড়ি আমাদের ছেড়ে চলে যাবে। এখন আর আমার দৈনন্দিন জীবনের গল্প, আমার সারাদিনের খারাপ-ভালো অভিজ্ঞতার কথা শোনার মতো কেউ নেই আমার সঙ্গে”।

অভিনেত্রী তার বাবাকে জানিয়েছেন তিনি আজও প্রতিনিয়ত তার অভাব অনুভব করেন। “আমি তোমার কৌতুহলী প্রশ্নগুলিকে মিস করি, আমার যত প্রলাপ শোনার মতো সেই দুটি কানকে মিস করি, যারা পরের দিনের প্রলাপ শোনার জন্য তৈরিই থাকতো। যখন আমাদের সেভাবে দেখা হতো না, তখন তুমি উদ্বিগ্ন হয়ে বাচ্চা ছেলের মতো মুখ ফুলিয়ে বসে থাকতে। আমাকে দেখেই যেন কান্নায় ফেটে পড়তে তুমি। আজ তোমার আমার মাঝের পথটা সংকীর্ণ হতে হতে আচমকাই যেন দুর্গম হয়ে গিয়েছে”।

“আমার জীবনের কঠিন দিনগুলিতে তুমি আমার পাশে ছিলে, তুমি সবসময় আমার যা ইচ্ছে আমাকে সেটাই করতে বলতে, আমার বাচ্চাদের আদর করতে, আমি আজও সেই দিনগুলিকে মিস করি। একা বারান্দায় দাঁড়িয়ে তোমার রাস্তার দিকে তাকিয়ে থাকার দৃশ্যটা আমি মিস করি। তোমার প্রিয় চেয়ারে বসে আপেলে কামড় বসানোর দৃশ্যটাও আমি মিস করি”। ঋতুপর্ণা জানিয়েছেন, তিনি এবং তার ভাই মিলে এই সন্ধ্যায় বাবার পছন্দের মিষ্টি এবং অন্যান্য খাবার আনিয়ে নিয়েছেন।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Rituparna Sengupta (@rituparnaspeaks)

বাবাকে উদ্দেশ্য করে তিনি আরও লিখেছেন, “আমরা আজও তোমার সাথে কথা বলি, তোমার জ্ঞানসমৃদ্ধ কথা শুনতেও পাই। তুমি কি আমাদের কথা শুনতে পাও বাবা? আমি নিশ্চিত তুমি শুনতে পাও। তোমার অভাব আমরা সর্বদা অনুভব করি। তুমি কথা বলো, বা নাই বলো, তোমার কথা যেন আমাদের আশেপাশে সর্বত্রই ভেসে বেড়ায়। তোমার কড়া শাসন আর আদর আমাদের সর্বদা ঘিরে রেখেছে। তুমি আমাদের সবথেকে সেরা বাবা। আমাদের নিরব অশ্রু আর আমাদের আনন্দ সর্বদা তোমার সঙ্গে থাকবে”।