প্রকাশ্যে এলো সুশান্ত ও রিয়ার চাঞ্চল্যকর কল ডিটেইলস, তদন্তে নতুন মোড়

অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু রহস্য দুটি নাম বারবার সামনে উঠে এসেছে। প্রথম, সুশান্ত সিং রাজপুতের প্রেমিকা রিয়া চক্রবর্তী এবং দ্বিতীয় মহেশ ভাট। এই দুজনের বিরুদ্ধেই একাধিক অভিযোগে সরব হয়েছেন নেটিজেনরা। উঠে এসেছিল রিয়া চক্রবর্তীর সাথে মহেশ ভাটের সম্পর্ক নিয়ে নানান প্রশ্নও।

এবার পুলিশের হাতে এলো নতুন তথ্য। প্রকাশ্যে এলো রিয়া চক্রবর্তীর গত ১ বছরের কল ডিটেলস যেখানে সেই সময়ের মধ্যে তিনি কার কার সাথে কথা বলেছেন সেই সব তথ্যই উঠে এসেছে এবং সেখানেই দেখা যাচ্ছে গত এক বছরে বহুবার মহেশ ভাটের সাথে কথা বলেছেন তিনি।

রিয়ার ফোন কল থেকে ইডি সূত্রে যে তথ্য পাওয়া গিয়েছে তাতে দেখা যাচ্ছে, ৮ জুন থেকে ১৩ জুন রিয়া পরিচালক মহেশ ভট্টকে ১৬ বার ফোন করেন। যার মধ্যে ন’টা কল ছিল আউটগোয়িং। বাকি ইনকমিং। ৮ জুন সুশান্তকে ছেড়ে সুশান্তের বাড়ি থেকে বেড়িয়ে যান রিয়া। ব্লক করেন সুশান্তের ফোন। অথচ দেখা যাচ্ছে মহেশ ভট্টের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে আরম্ভ করেন তিনি।

তার আগে রিয়া ফেব্রুয়ারি মাসে শেষ মহেশকে ফোন করেন। ইডি-র ডিজিটাল তথ্য থেকে এ ও জানা যায় যে ওই সময় শুধু ফোন নয়, অনেক টেক্সট মেসেজ করেছিলেন রিয়া আর মহেশ যা কিনা তাঁরা মুছে দেন। কেন মুছে দিতে হল টেক্সট মেসেজ?কেন মহেশের সঙ্গে রিয়াকে এতবার কথা বলতে হল?

তবে শুধু এটুকুই নয়, আরও একটি প্রসঙ্গ নজর কেড়েছে তদন্তকারীদের। সুশান্তের মনোবিদ কেরসি ছাবরার সাথেও ১৫ বার কথা হয় রিয়ার যার মধ্যে ১০ টি ফোন রিয়ার নম্বর থেকেই গেছে এবং বাকি ৫ টি এসেছে অন্যদিক থেকে।

এছাড়াও আরও একটি বিষয় হচ্ছে যে সম্পর্কে থাকলেও রিয়ার সাথে সুশান্তের কথা হয় ১৪৫ বার কিন্তু সুশান্তের হাউস ম্যানেজারের সাথে রিয়ার ২৮৭ বার কথা হয়।এছাড়াও রিয়ার সাথে ১,১৯২ বার তার বাবার, ১,০৬৯ বার তার ভাই সৌমিকের সাথে তার কথা হয়।

কর্মক্ষেত্রে ২৩ বার আদিত্য রায় কাপুরের সাথে, ২২ বার ট্যালেন্ট ম্যানেজার উদয় সিং গৌরীর সাথে এবং ২৩ বার ড্রিম হোম রিয়েল এস্টেট কোম্পানির সাথে কথা হয় রিয়ার। সুশান্তের ফোন থেকে কোন নম্বরে কতবার ফোন এসেছে এবং গেছে। সর্বভারতীয় একটি সংবাদ মাধ্যম সেই তথ্য প্রকাশ করেছে। তাদের তথ্য অনুযায়ী ৮ই জুন থেকে ১৩ই জুন পর্যন্ত রিয়ার সাথে কোনো ফোন বা এসএমএস এর আদান প্রদান হয়নি সুশান্তের ফোন থেকে।

সুশান্ত এর ফোন ডিটেলস অনুযায়ী ২০ই জানুয়ারি থেকে ২৫শে জানুয়ারি পর্যন্ত রিয়ার সাথে ১৯ বার কল হয় সুশান্তের। আবার আরও একটি চমকপ্রদ তথ্য হল ১৩ ই জুন রাত ২ টোর সময় সুশান্তের নম্বরে একজনের ফোন আসে এবং প্রায় ৬ মিনিট কথা হয়। কিন্তু সেই ব্যাক্তির নাম প্রকাশ করেনি সংবাদ মাধ্যম।

সুশান্তের মানসিক অবসাদের কথা জেনেও তাঁকে ছেড়ে কেন বাড়ি থেকে চলে এলেন তাঁর সবচেয়ে কাছের মানুষ?৮ জুন সুশান্তের প্রাক্তন ম্যানেজার দিশা আত্মহত্যা করেন। দুটি ঘটনার মধ্যে কোনও মিল আছে কিনা, তা এখনও তদন্তে জানা যায়নি। শেষ সময়ে সুশান্তের সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ ছিলেন রিয়া। তিনি তদন্তে সহযোগিতা করছেন না কেন? প্রশ্ন সেখানেই।