আপনার কাছে ছেঁড়া, ফাটা নোট আছে? জেনে নিন কীভাবে পরিবর্তন করবেন

অনেকেই জানেন না যে, ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্কের নির্দিষ্ট নির্দেশ আছে ছেঁড়া, কাটা, নোংরা নোট যদি আপনার কাছে থাকে তাহলে তা আপনি যেকোন ব্যাঙ্কে গিয়ে নির্দ্বিধায় পরিবর্তন করতে পারেন। আর এই পরিবর্তন করার সময় আপনাকে কোনরূপ হেনস্থার স্বীকার হতে হবে না। এইরকম অনেকগুলি নির্দেশাবলী ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্কের তরফ থেকে দেশের প্রতিটি সরকারি ও বেসরাকরি ব্যাঙ্কের প্রতি পাঠানো হয়েছে। আজ আপনাদের সেইসব বিষয় নিয়ে জানাবো এই প্রতিবেদনে।

ভারতের সকল ব্যাঙ্কের কাজকর্মের উপর নজর রাখা, এবং কাজে স্বচ্ছতার জন্য নানা সময়ে নানা নির্দেশ পাঠায় ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাংক।আর এমনই এক নির্দেশে ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক সাধারণের ছেঁড়া,কাটা ,ময়লা লাগা নোট নিয়ে যে অসুবিধার সম্মুখীন হতে হয় তা দূর করার চেষ্টা করেছেন।

রিজার্ভ ব্যাঙ্কের নির্দেশ

রিজার্ভ ব্যাঙ্কের নির্দেশে একটি  নোটকে নোংরা বা ময়লা যুক্ত বলা যাবে যখন সেই নোটটি বারবার ব্যবহারের ফলে তার স্বাভাবিক রং হারাবে।এছাড়াও যদি কোন কারনে কোন নোট ছিঁড়ে যায় বা দু টুকরো হয়ে যায়,কিন্তু টুকরো দুটো যদি একই নোটের হয় তাহলে তা পরিবর্তন যোগ্য হবে। রিজার্ভ ব্যাঙ্ক স্পষ্ট নির্দেশ দিয়েছে প্রতিটা সরকারি ও বেসরকারি ব্যাংককে যে তারা যেন জনসাধারণের কাছ থেকে এইরকম ছেঁড়া, কাটা, দুটুকরো হওয়া, বা ময়লা লাগা নোট নিয়ে ভালো নোট দিতে উদ্যত হন।

নোট বদলাতে ব্যাংকে কি অ্যাকাউন্ট থাকতেই হবে ?

প্রতিটি ব্যাঙ্ক যেন তাদের শাখাগুলিতে “এখানে ছেঁড়া ,কাটা, ময়লা লাগা নোট পরিবর্তন করা হয়” এইরকম লেখা বোর্ড রাখতে স্পষ্ট নির্দেশ দিয়েছে। আপনি ওই ব্যাঙ্কের গ্রাহক হন আর নাই বা হন আপনি ছেঁড়া ,কাটা, ময়লা লাগা নোট পরিবর্তন করতে পারবেন।

ব্যাঙ্ক ছাড়া আর কোথায় টাকা জমা দেওয়া যাবে ?

এমনকি আপনি ওই ছেঁড়া কাটা নোট দিয়ে বিভিন্ন সরকারি পরিষেবা যেমন জলের বিল, বিদ্যুৎ বিল,বাড়ির ট্যাক্স,বা অন্য কিছু ট্যাক্স আপনি দিতে পারবেন। এমনকি আপনি আপনার নামে খাতা আছে এমন ব্যাঙ্কে গিয়ে আপনার একাউন্টে ওই ছেঁড়া বা কাটা বা ময়লা লাগা নোটকে জমা করতেও পারেন। আর সেইসব নোট ব্যাংক নিতে বাধ্য থাকবে। তবে সেইসব নোট ব্যাংক আর অন্য কাউকে দিতে পারবে না ব্যাঙ্কের পরিষেবার মধ্যে। সেইসব নোট ব্যাংক রিজার্ভ ব্যাঙ্কের নির্দেশ মতো আলাদা করে রেখে পরবর্তী সময়ে তা রিজার্ভ ব্যাঙ্কের নির্দিষ্ট শাখা থেকে উপযুক্ত পদ্ধতি অবলম্বন করে পরিবর্তন করবে। আর এটা সম্পূর্ন ব্যাঙ্কের নিজস্ব কাজ,তাতে আপনার কোন ভূমিকা থাকবে না।

নোট পরিবর্তন করতে কত দিন সময় লাগবে ?

যদি আপনার কাছে পাচঁটির মতো ছেঁড়া, কাটা বা ময়লা লাগা নোট থাকে আর আপনি তা পরিবর্তন করার জন্য ব্যাংকে গিয়ে থাকেন যেখানে এইরকম সুবিধা দেওয়া হয় না এমন ব্যাংকে তাহলে আপনাকে তারা এইসব নোট নিয়ে একটা রিসিপ্ট জমা দেবেন যাতে আপনাকে দেওয়া হবে একটা নির্দিষ্ট দিনের উল্লেখ থাকবে, যেদিন আপনি আপনার ছেঁড়া , কাটা নোটের পরিবর্তে  আপনি ভালো ব্যবহারযোগ্য নোট পাবেন। আর এই পুরো প্রক্রিয়া হবে আপনার ব্যাংকে নোট জমা দেওয়ার ১ মাসের মধ্যেই। সাধারনত ব্যাঙ্কের সব শাখায় এই সুবিধা পাওয়া যায়।

তবে জেনে রাখবেন আপনি যদি এমন কিছু কাটা নোট নিয়ে আসেন যা দেখে ব্যাঙ্কের অফিসারের মনে হয় এইরকম ভাবে কাটা ইচ্ছে করেই করা হয়েছে। অর্থাৎ অনেকবার বিভিন্ন জায়গায় কাটা হলে। সেইসব নোট ব্যাঙ্কের অফিসার পরিবর্তন না করতেই পারেন। তবে সব ধরনের নোটের ক্ষেত্রেই যে এইভাবে পরিবর্তন করা যাবে তা কিন্তু নয়, ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক স্পষ্ট নির্দেশ দিয়েছেন কোন ধরনের নোট কে “বাতিল নোট” বলা হবে অর্থাৎ তা পরিবর্তন যোগ্য বা ব্যবহারযোগ্য নয়।

কোন নোট পরিবর্তণ হয় না ?

যেসব নোট বহু টুকরো হয়ে গিয়েছে বাআগুনে অনেকটা অংশ পুড়ে গিয়েছে বা আঠা বা অন্য কিছু দিয়ে একে অপরের সঙ্গে জোড়া লেগে গিয়েছে। এমন নোট যা একদমই ব্যবহার করার যোগ্য নয় তা ব্যাঙ্কে গিয়ে পরিবর্তন করা যাবে না।তার পরিবর্তে সেইসব নোটকে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের নির্দিষ্ট শাখায় নিয়ে এসে তা পরিবর্তন করার নির্দিষ্ট নিয়ম মানতে হবে।

যদি কোন নোটের উপর রাজনৈতিক স্লোগান বা রাজনৈতিক কিছু  লেখা থাকে  তাহলে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের স্পষ্ট নির্দেশ আছে সেইসব নোটকে বাতিল নোট বলে চিহ্নিত করতে পারে কোন ব্যাংক। এইরকম নোট ব্যাংকে গিয়ে জমা করা যাবে না।

সাবধান !

যদি দেখা যায় আপনি ইচ্ছাকৃত ভাবে ছেঁড়া, কাটা, বা ময়লা লাগা নোট অনেক বেশি পরিমাণে নিয়ে ব্যাঙ্কে এসে তা পরিবর্তন করার চেষ্টা করছেন তখন আপনার নাম, নোটের নাম্বার ও মূল্য লিখে নিয়ে তা জানানো হবে সেই ব্যাঙ্কের ডেপুটি বা জেনারেল ম্যানেজারের কাছে। এছাড়াও আপনার বিরুদ্ধে থানায়ও অভিযোগ জানানো হতে পারে।তাই অতি চালাক না ভেবে সাধারণ উদ্দ্যেশ্যে ব্যবহার করুন এই পরিষেবা।