পর্ন আর বেশ্যাবৃত্তি আলাদা নয়, গ্রেফতারির পর ভাইরাল শিল্পার স্বামীর টুইট

0

আজ সকাল সকাল একটি খবরে উত্তাল হয়ে উঠেছে বলিউড (Bollywood)। মুম্বাই পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হয়েছেন শিল্পা শেট্টির (Shilpa Shetty) স্বামী তথা মুম্বাইয়ের নামকরা ব্যবসায়ী রাজ কুন্দ্রা (Raj Kundra)। প্রায় কয়েক শো’ কোটি টাকার সম্পত্তির মালিক রাজ। তবে পর্ন ইন্ডাস্ট্রিতে (Porn Industry) বিনিয়োগ করেই শেষমেষ পুলিশের জালে জড়িয়ে গেলেন তিনি। সোমবার গভীর রাতে গ্রেফতার হয়েছেন রাজ। তার বিরুদ্ধে বহু তথ্য প্রমাণ জোগাড় করেছে মুম্বাই পুলিশের ক্রাইম ব্রাঞ্চ, যা থেকে তার বিরুদ্ধে মামলার ভিত আরও মজবুত হয়েছে।

রাজের গ্রেপ্তারির খবর প্রকাশিত হওয়ার পরপরই নেটমাধ্যম উত্তাল হয়ে উঠেছে বলিউডকে নিয়ে। আর তার মাঝেই ভাইরাল হয়েছে রাজের দুটি পুরনো পোস্ট। যে পোস্টে পর্নোগ্রাফি এবং বেশ্যাবৃত্তি নিয়ে কথা বলেছিলেন তিনি। আজ থেকে বেশ কয়েক বছর আগে রাজের করা ওই দুটি সামাজিক পোস্ট আজ সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোড়ন ফেলে দিয়েছে। ২০১২ সালের মার্চ মাসে টুইটারে একটি টুইট করেছিলেন রাজ কুন্দ্রা।

সেই পোস্টে নেটিজেনদের উদ্দেশ্য করে একটি প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়ে রাজ লিখেছিলেন, “পর্ন ফিল্ম বানানোর সময় টাকার জন্য যদি ক্যামেরার সামনে সেক্স করা হয় তবে তা বেশ্যাবৃত্তির থেকে আলাদা হয় কী করে?” তার অপর একটি পোস্টেও এরকমই একটি বার্তা ছিল। এর ঠিক দুই মাস পরেই মে মাসের দিকে তিনি আরেকটি টুইট করে লেখেন, “অভিনেতারা ক্রিকেট খেলছে, ক্রিকেটাররা রাজনীতিতে যোগ দিচ্ছে, রাজনৈতিক নেতারা পর্ন দেখছেন, আর পর্ন তারকারা অভিনয়ে জগতে আসছেন!”

নেটিজেনরা আজ এত বছর পরে এই দুটি পোস্ট বারবার সোশ্যাল মাধ্যমে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে আনছেন। একইসঙ্গে শিল্পা শেট্টিকে ট্যাগ করে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন নেটিজেনদের একাংশ। মুম্বাই পুলিশ রাজকে গ্রেফতার করার পরপরই তার স্মার্টফোনটি বাজেয়াপ্ত করে নিয়েছে। সেই ফোনের মধ্যে বড়দের ছবি দেখার জন্য একটি মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের খোঁজ‌ও পেয়েছে পুলিশ। এই অ্যাপ্লিকেশনেই নীল ছবি আপলোড করে তা গ্রাহকদের কাছে পাঠিয়ে দেওয়া হতো বলে পুলিশের তরফ থেকে জানানো হয়েছে।

মুম্বাই পুলিশ সূত্রে খবর, এই ব্যবসাতে ৮-১০ কোটি টাকার বিনিয়োগ করেছিলেন রাজ কুন্দ্রা। ছবি শুটিংয়ের পর তা নির্দিষ্ট অ্যাপ্লিকেশন মারফত বিদেশে পাঠিয়ে দেওয়া হতো। এর মধ্যে বেশির ভাগ ছবিই আমেরিকাতে পাঠানো হতো বলে খবর পাওয়া গিয়েছে। বিদেশে ওটিটি প্ল্যাটফর্মে বেশ রমরমিয়েই চলছিল ভারতের এই পর্ন ভিডিওগুলি। উমেশ কামাথ নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করার পর এই চক্রের খোঁজ পায় পুলিশ।

এছাড়াও বলিউডের এক অভিনেত্রীকেও গ্রেপ্তার করা হয়েছে এই মামলায়। ওই অভিনেত্রীর ইমেইল অ্যাকাউন্ট থেকেও একাধিক নীলছবি মিলেছে। বিদেশের ওটিটি প্ল্যাটফর্মে এই ছবি মুক্তি দেওয়ার জন্য এক একটি ছবির জন্য ২-২.৫ লক্ষ টাকা নেওয়া হতো বলেও জানা গিয়েছে। প্রসঙ্গত, রাজের এই পর্নোগ্রাফি ইন্ডাস্ট্রির সঙ্গে জড়িত দুই অভিনেত্রী শার্লিন চোপড়া এবং পুনম পান্ডেও এই প্রসঙ্গে রাজের বিরুদ্ধে মুখ খুলে বহু তথ্যই দিয়েছেন। শার্লিন জানিয়েছেন, একটি প্রজেক্ট বাবদ ৩০ লক্ষ টাকা দেওয়া হতো তাকে। তিনি রাজের ১৫-২০ টি প্রজেক্টে কাজ করেছেন।