নজরে ছিল সুন্দরী শালিও, শিল্পা ঘুমিয়ে পড়লে শমিতার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ মুহূর্ত কাটাতেন রাজ কুন্দ্রা

পর্ন কান্ডে গুরুতরভাবে ফেঁসে গিয়েছেন বলিউড অভিনেত্রী শিল্পা শেট্টির (Shilpa Shetty) স্বামী তথা ভারত-ইংল্যান্ডের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী রাজ কুন্দ্রা (Raj Kundra)। বলিউডের মডেল-অভিনেত্রী এবং উঠতি অভিনেতা-অভিনেত্রীদের নিয়ে নীল ছবি (Pornography) বানিয়ে বিশেষ অ্যাপ্লিকেশন মারফত তা বিদেশের গ্রাহকের কাছে পৌঁছে দিয়ে মোটা অংকের অর্থ উপার্জন করছিলেন রাজ এবং তার সহকর্মীরা। রাজ কুন্দ্রা সম্পর্কে একের পর এক বিস্ফোরক তথ্য ফাঁস করেছেন মুম্বাই পুলিশের তদন্তকারী অফিসাররা।

শুধু বলিউডের নামকরা মডেল-অভিনেত্রীরাই নন, রাজের নজরে ছিলেন তার আপন শ্যালিকা তথা শিল্পা শেট্টির বোন শমিতা শেট্টি (Shamita Shetty)। রাজ তাকে তার পরবর্তী প্রজেক্টে লঞ্চ করার কথা ভেবেছিলেন। নিজের একটি ওয়েব সিরিজে শমিতাকে রাখার পরিকল্পনা ছিল রাজের। শ্যালিকার কাছে তিনি এই প্রস্তাবও রাখেন। পর্ন কাণ্ডের অপর আরেক অভিযুক্ত অভিনেত্রী গহনা বশিষ্ঠ (Gehana Vasisth) এই তথ্য ফাঁস করেছেন।

সম্প্রতি একটি সংবাদমাধ্যমের কাছে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে গহনা জানিয়েছেন ‘হটশট’ এর পর ‘বলিফেম’ নামের আরেকটি অ্যাপ্লিকেশন লঞ্চ করার পরিকল্পনা ছিল রাজের। সেই অ্যাপ্লিকেশনের জন্যই অভিনয়ের প্রস্তাব গিয়েছিল শমিতার কাছে। শমিতা এই প্রস্তাবে রাজিও হয়ে গিয়েছিলেন বলে দাবি করছেন গহনা। গহনার কথায়, “আমার গ্রেপ্তারির কয়েকদিন আগে আমি রাজের অফিসে গিয়েছিলাম। সেখানে গিয়ে জানতে পারি রাজ ‘বলিফেম’ নামে একটি নতুন অ্যাপ তৈরি করছিলেন।”

তিনি আরও জানালেন, “সেই অ্যাপের এক ছবির জন্য শমিতা শেট্টিকে অভিনয়ের অফারও দিয়েছিলেন রাজ। সেই ছবি পরিচালনার দায়িত্ব আমার উপর ছিল। শমিতা রাজিও হয়েছিলেন ছবিটি করার জন্য। এমনকী, পারিশ্রমিক নিয়ে শমিতার সঙ্গে কথাও হয়েছিল। রাজ গ্রেপ্তার না হলে এই অ্যাপ লঞ্চ হতো।” উল্লেখ্য, কয়েক মাস আগেই বলিউড মডেলদের দিয়ে পর্ন ছবি বানানোর অভিযোগের ভিত্তিতে মুম্বাই পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হতে হয়েছিল গহনাকে।

শিল্পা শেট্টির বোন শমিতা শেট্টিও বলিউডে অভিনয় করতে চেয়েছিলেন। তবে বলিউডে তিনি দিদির মতো জায়গা গড়ে তুলতে পারেননি। ২০০০ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ছবি ‘মোহাব্বতে’ মারফত বলিউডে ডেবিউ করেন তিনি। বলাবাহুল্য, এই ব্লকবাস্টার ছবিই তার কেরিয়ারের মাইলস্টোন হতে পারতো। তবে পরবর্তী দিনে তাকে আর সেভাবে বলিউডে দেখা যায়নি। ২০০৯ সালে ‘বিগ বস সিজন ৩’ এর একজন প্রতিযোগীনী ছিলেন শমিতা। বড় পর্দায় সেভাবে তাকে দেখা না গেলেও ছোটখাটো রিয়েলিটি শো’য়ে অংশগ্রহণ করতেন তিনি।

তবে তিনি ছিলেন তার জামাইবাবু রাজ কুন্দ্রার ফেভারিট। লেট নাইট পার্টি হোক কিংবা নাইট ক্লাব, শ্যালিকাকে সঙ্গী করতেন রাজ। তিনি নিজে মুখেই একবার স্বীকার করেছিলেন যে এইসব পার্টি কিংবা নাইট ক্লাবের ব্যাপারে শিল্পা ভীষণ ব্যাকডেটেড! তাই শ্যালিকার সঙ্গে বেশী স্বছন্দ ছিলেন রাজ। তাই হয়তো আগামী প্রজেক্টে জামাইবাবুর হাত ধরেই নতুনভাবে শমিতার কেরিয়ার শুরু হতে চলেছিল। রাজ গ্রেপ্তার না হলে এতদিনে নতুন প্রজেক্টের কাজ শুরুও হয়ে যেত।

‘দ্য কপিল শর্মা’ শোয়ে গিয়ে করা মজার ছলে একটি মন্তব্য ঘিরেও তোলপাড় হয় সোশ্যাল মিডিয়া। যেখানে রাজ জানিয়েছিলেন, শিল্পার থেকে বেশি তিনি শমিতার সঙ্গে পার্টি করেন। কপিল শর্মার প্রশ্নের উত্তরে মজার ছলে রাজ জানিয়েছিলেন, ‘শিল্পা ৭টায় খাবার খেয়ে রাত ৯টার মধ্যে বই পড়ে ঘুমিয়ে পড়ে। আর তারপর আমি পার্টি করতে হলে সোজা ফোন লাগাই শমিতাকে। আমরা দু’জনেই পার্টি করতে ভালোবাসি। এই কারণেই তো ওকে বিয়ের জন্য আমি এখনও জোর করছি না।’ একথা শুনে শিল্পা আর শমিতা দু’জনেই হেসে ওঠেন।

কিন্তু রাজের করা এই মন্তব্য নিয়েই এখন নিন্দার ঝড়। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে এই ভিডিয়ো ক্লিপ। শ্যালিকার দিকে কেন এরকম নজর ছিল তাঁর, বউয়ের উপস্থিতিতে কেন পার্টি করতেন থেকে শুরু করে একাধিক কুরুচিকর মন্তব্যে ভরে গিয়েছে সেসব ভিডিয়ো। শিল্পার ‘হাঙ্গামা ২’ মুক্তির আগে সোশ্যাল মিডিয়ায় দিদির পাশে থাকার বার্তা দিয়েও ট্রোলড হয়েছিলেন শমিতা।