শেষ হয়ে গেল দেশের মাটি! চোখের জলে রাজা-মাম্পিকে শেষ বিদায় জানালো দর্শকরা

দেশের মাটির শুটিং শেষ! কান্নাভেজা চোখে ফ্লোর থেকে লাইভে এলেন রাজা-মাম্পি

মাত্র ২৩৫ টি এপিসোডেই শেষ দেশের মাটি (Desher Mati) ধারাবাহিকের যাত্রা। গতকাল ছিল শুটিংয়ের শেষ দিন। স্বভাবতই শুটিংয়ের শেষে সেট জুড়ে শোনা গেল বিষাদের সুর। প্রাথমিক কান্নাকাটি পর্বের শেষে রাম্পিয়ানদের জন্য শেষবার লাইভে এলেন রাহুল অরুণোদয় ব্যানার্জি (Rahul Arunodoy Banerjee) এবং রুকমা রায় (Rooqma Roy)। তাদের দেখে কেঁদে আকুল ভক্তরাও।

চোখের কাজল ঘেঁটে গিয়েছে রুকমার। রাহুলের চোখ ফোলা। শুটিংয়ের শেষে কোনওরকমে সকলকে শেষ বিদায় জানিয়ে তারা নিজেদের বন্দি করে ফেলেছেন মেকআপ রুমে। লাইভের শুরুতে রুকমা কোনও কথাই বলে উঠতে পারছিলেন না। শেষমেষ ভক্তদের কমেন্ট দেখে স্বাভাবিক হওয়ার চেষ্টা করলেন রুকমা। রুকমার অকপট স্বীকারোক্তি, “আর দেখতে পাবো না! তোমার জন্য খুব মন খারাপ করবে রাহুলদা!”

Raja and Mulpi Desher Maati Serial

রাহুল জানালেন, শুটিংয়ের শেষে দিব্যজ্যোতি দত্ত অর্থাৎ কিয়ান এবং মাম্পি অর্থাৎ রুকমা একে অপরকে জড়িয়ে ধরে ছোট বাচ্চাদের মত কেঁদেছেন। রাহুলের কথায়, “দুটো বাচ্চা বাচ্চা ছেলে মেয়ের রুকমা আর দিব্যজ্যোতি একে অপরকে জড়িয়ে ধরে এমন কেঁদেছে আমাদের বুকটা পুরো মুচড়ে উঠেছে!” রাজার মুখের কথা ছিনিয়ে নিয়ে মাম্পি জানালেন, ধারাবাহিকে তো বটেই, অফস্ক্রিনেও দিব্যজ্যোতিকে নিজের ভাইয়ের মতোই স্নেহ করেন তিনি।

এদিকে নেটিজেনরাও রাজা-মাম্পিকে শেষবারের মতো দেখে চোখের জল ধরে রাখতে পারলেন না। তাদের কাতর আর্জি, “আবারও ফিরে এসো তোমরা। নতুন কোনও ধারাবাহিকে, এক নতুন জুটি হয়ে”। অনেকে আবার রাহুলের ক্যাপশন ‘শেষ সাক্ষাৎকার’ এর বিরোধীতা করে লিখলেন, “শেষ কেন লিখলে? সবকিছুর শেষ হয় না। রাজা-মাম্পির গল্পের শেষ হবে না। আমাদের মনের মধ্যে চীরন্তন হয়ে থাকবে। যত্নসহকারে গুছিয়ে রেখে দেবো সারা জীবনের জন্য।”

ভক্তরা লিখলেন, “তোমরা আবার ফিরে এসো নতুন রূপে নতুন ভাবে! আবার ভালবাসবো!! ততদিন মনটা বন্ধ করে রাখলাম। তোমরা এলে আবার দরজাটা খুলে দেবো!” কেউ লিখলেন, “সব গল্পের শেষ হয় না। তোমরা ভালো থেকো।” ভক্তরা জানিয়েছেন রাজা-মাম্পিকে তারা মনের মনিকোঠা থেকে কিছুতেই যেতে দেবেন না। প্রয়োজনে আবার ধারাবাহিকের রিপিট টেলিকাস্ট দেখতে শুরু করবেন তারা।

রাজা-মাম্পির সম্পর্কের রসায়ন কার্যত ধারাবাহিকের পর্দায় জাদু তৈরি করেছিল। দর্শক অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করেছিলেন তাদের প্রেমের পরিণতি দেখার জন্য। শেষ লাইভে রাজা তার মাম্পির জন্য গেয়ে শোনালেন নচিকেতার ‘নীলাঞ্জনা’। সঙ্গে গাইলেন রুকমাও। রুকমাও এদিন দেশের মাটি ধারাবাহিকের মূল সঙ্গীতটি গেয়ে শোনালেন। তাদের উপস্থিতি ফের একবার ম্যাজিক তৈরি করলো নেট মাধ্যমে। তবে দর্শকের জন্য রয়ে গেলো এভারগ্রীন রাজা-মাম্পি জুটি।