পেঁয়াজ-রসুন ছাড়া আলু-পটলের এই তরকারি একবার খেলে আজীবন জিভে লেগে থাকবে

গরম ভাত হোক বা রুটি, পেঁয়াজ-রসুন ছাড়া আলু-পটলের এই তরকারির কাছে মাছ-মাংসও ফেল

বাঙালির পাতে যদি মাছ, মাংস বা ডিম থাকে তাহলে খাওয়া নিয়ে আর বিশেষ কোনও টেনশন থাকে না। তবে বাড়িতে আমিষের যোগান না থাকলে বা নিরামিষের দিনগুলোতে কী রান্না হবে, তা বাড়ির গৃহিণীদের কাছে অনেক বড় মাথাব্যথার কারণ। তবে বাড়িতে যদি স্রেফ আলু আর পটল থাকে তাহলেই কিন্তু জমে যাবে রান্নাটা। আলু পটলের তরকারি (Alu Potoler Torkari) তো সকলেই খেয়েছেন। তবে আজ এই প্রতিবেদনে রইল একটু আলাদা রকমের আলু পটলের দুর্দান্ত রেসিপি যা ভাত-রুটির সঙ্গে অনায়াসেই খাওয়া চলে।

আলু-পটলের তরকারি বানানোর জন্য প্রয়োজনীয় উপকরণ : পটল, নুন, হলুদ গুঁড়ো, লঙ্কা গুঁড়ো, আদা বাটা, জিরে গুঁড়ো, ধনে গুঁড়ো, সেদ্ধ আলু, বেসন, টমেটো, কাঁচালঙ্কা, চিনে বাদাম, গরম মসলা, ঘি, সাদা তেল।

আলু-পটলের এই তরকারি রান্নার পদ্ধতি : প্রথমে পটলের খোসা ছাড়িয়ে জল দিয়ে ভালো করে ধুয়ে গোল করে কেটে নিন। তারপর পটলের টুকরো থেকে বীজ আলাদা করে বের করে নিন।

এদিকে কড়াইতে ১ চামচ সরিষার তেল গরম করে তার মধ্যে সামান্য আদা বাটা, জিরে গুঁড়ো, ধনে গুঁড়ো, হলুদ গুঁড়ো, লঙ্কাগুঁড়ো একসঙ্গে মিশিয়ে ভেজে নিন। তারপর দুটো সেদ্ধ আলু কড়াইতে দিয়ে ভালো করে স্মাশ করে মিশিয়ে নিন।

এবারে রান্নার মধ্যে স্বাদ অনুযায়ী নুন মিশিয়ে নিন। অন্যদিকে একটি বাটিতে চার চামচ পরিমাণ বেসন, স্বাদ অনুযায়ী নুন, সামান্য হলুদ গুঁড়ো ও জল দিয়ে মিশিয়ে ঘন ব্যাটার তৈরি করুন। রান্নার পরের ধাপে পটলের টুকরোর মধ্যে আগে থেকে তৈরি করে রাখা আলুর পুর ভরে নিন। তারপর বেসনের ব্যাটারে ডুবিয়ে সাদা তেলে ভেজে তুলে নিন।

এবার কড়াইতে অল্প তেল গরম করে তার মধ্যে নুন, আদা বাটা, জিরেগুঁড়ো, ধনেগুঁড়ো, সামান্য হলুদ গুঁড়ো এবং লঙ্কার গুঁড়ো মিশিয়ে নিন। রান্নার মধ্যে কিছুটা জল দিয়ে ভালো করে কষিয়ে একটা টমেটো কেটে ১ মিনিট রান্না হতে দিন।

এবার এই রান্নার মধ্যে চিনা বাদামের পেস্ট দিয়ে ভালো করে কষিয়ে নিন। তারপর ভেজে রাখা পটলের টুকরোগুলো এর মধ্যে দিয়ে পরিমাণমতো জল, কয়েকটা কাঁচা লঙ্কা, সামান্য চিনি মিশিয়ে মিনিট পাঁচেক রান্না হতে দিন।

সবশেষে উপর থেকে সামান্য গরম মশলা এবং ১ চামচ ঘি মিশিয়ে মিনিট দুয়েক রান্না হতে দিন। তারপর নামিয়ে নিয়ে গরম গরম ভাত কিংবা রুটির সঙ্গে খান। নিরামিষের দিনগুলোতে আর রান্না এবং খাওয়া নিয়ে চিন্তা থাকবে না।