পেট্রোলের দাম কখনো ৯৯.৯৯ টাকার বেশি পৌঁছাতে পারবে না, জানুন কেন

দিন দিন যে হারে মহার্ঘ হচ্ছে পেট্রোল তাতে সাধারণ মানুষের চিন্তার কোন শেষ নেই। যেন নিলামের দর উঠছে কোন জিনিসের। তাই প্রতিদিনই তার দাম সকল কিছুকে ছাপিয়ে চলছে। তার লক্ষ্য যেন এখন একটাই, যেভাবেই হোক এই সুযোগে সেঞ্চুরি হাঁকাতে হবে। কিন্তু এই অবস্থার মধ্যে দিয়ে যাওয়ার ফলে সাধারণ মানুষের জীবনে যে নাভিশ্বাস অবস্থা উঠছে, তার দিকে কারো কোন ভ্রূক্ষেপ নেই। না সরকারের কোন সদিচ্ছা দেখা যাচ্ছে, আর না তেল সরবরাহকারী কোম্পানি গুলির। কিন্তু এরই মধ্যে একটা আসার বাণী শুনতে পাওয়া যাচ্ছে।যা হল পেট্রোল বা ডিজেল এই সব জ্বালানির দাম লিটার প্রতি ১০০ টাকার ঊর্ধ্বে যেতে পারবে না। আমরা এই অদ্ভুদ ভবিষ্যৎবাণীর একপর্যায়ে কিছুটা হলেও সত্যি। আজকের এই প্রতিবেদনে আমরা তা বলার চেষ্টা করছি।

পেট্রোলের বর্তমান ক্রমবর্ধমান মূল্যবৃদ্ধির তুলনা টানতে গিয়ে সারা দেশ জুড়েই নানা চিত্র উঠে আসে। কোথাও রাজ্য সরকার ১ টাকা বা ২ টাকা ছাড় দিয়ে তাদের মতো করে জনসাধারণকে কিছুটা স্বস্তি দেওয়ার চেষ্টা করছে। আবার কোথাও দামের আগুনে সাধারণ মানুষ থেকে সমাজের সকল শ্রেণীর মানুষ পুড়ছে। দিল্লিতে আজ পেট্রোলের দাম লিটার প্রতি ৮১.৬৩ টাকায় পৌঁছে গিয়েছে। যেখানে মুম্বাইয়ে লিটার প্রতি দাম ৮৯.০১ টাকায় সর্বোচ্চ স্তরে পৌঁছে গিয়েছে। কিন্তু উচ্চ কোয়ালিটির অক্টেন পেট্রোলের ক্ষেত্রে এই দাম ১০০.৩৩ টাকা প্রতি লিটারে পৌঁছে গিয়েছে।

আরও পড়ুন : পেট্রোল কিনলে ৭,৫০০ টাকার ক্যাশ ব্যাক দিচ্ছে PayTm, বিস্তারিত জানুন

পেট্রোলের দাম কখনো ৯৯.৯৯ টাকার বেশি পৌঁছাতে পারবে না, জানুন কেন

আরও পড়ুন : পেট্রোল পাম্প খুলতে চান ? জেনে নিন লাইসেন্স পেতে কি কি লাগবে

কিন্তু দাম ১০০ টাকার বেশি বাড়তে পারে না হিসাবে যা বলা হচ্ছে তা একপ্রকার হাস্যকর। কারন আমাদের পেট্রোল বা ডিজেল ফিলিং স্টেশন গুলিতে যে মিটার ব্যবহার করে দাম বা মূল্য দেখা যায় তাতে লিটার প্রতি পেট্রোলের সর্বোচ্চ মূল্য দেখানোর জন্য দুটি ডিজিটের ঘর দেওয়া থাকে টাকার জন্য এবং বাকিটা পয়সার জন্য। অর্থাৎ দাম যদি ৯৯.৯৯ টাকা পর্যন্ত হয় তাহলে তা দেখাবে তার বেশি বাড়লে তা আর মিটারে দেখাবে না। তাই একপ্রকার বলা হচ্ছে দাম ১০০ টাকার বেশি লিটার প্রতি হতে পারবে না।

আরও পড়ুন : পেট্রোল পাম্পে এই ৪টি পদ্ধতিতে আপনাকে ঠকানো হয়

পেট্রোলের দাম কখনো ৯৯.৯৯ টাকার বেশি পৌঁছাতে পারবে না, জানুন কেন

এই অবস্থা থেকে উদ্ধার করতে হলে নতুন করে মিটারের রিডিং সেট করতে হবে। সারা দেশ জুড়ে ৬০,০০০ এর বেশি পেট্রোল বা ডিজেল ফিলিং পাম্পে এই কাজ একসাথে করা প্রায় অসম্ভব তাই এই যুক্তি দেওয়া হচ্ছে বলে সবাই নিজের মতো করে ব্যাখ্যা করছে। এখন দেখার বিষয় সত্যিই যদি তেলের দাম ৯৯.৯৯ টাকার উর্দ্ধে যায় তাহলে কীভাবে পেট্রোল ও ডিজেল ফিলিং স্টেশনে তা বিক্রি করা হবে।