‘ছিঃ কি জঘন্য লাগছে’,’ঠোঁটে কি মৌমাছি কামড়েছে’, কুমন্তব্যে জর্জরিত নুসরাত

বৃহস্পতিবার, দুপুর তখন ঠিক ১২.৪৫ মিনিট, টলিউড (Tollywood) অভিনেত্রী নুসরাত জাহানের (Nusrat Jahan) কোল আলো করে জন্ম নিল ফুটফুটে এক নবজাতক। পুত্র সন্তানের জন্ম দিয়ে নিজের জীবনে মাতৃত্বের নতুন ইনিংস শুরু করলেন টলিউডের এই অভিনেত্রী। সন্তানের জন্ম দেওয়ার জন্য বুধবারেই কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন তিনি। আর হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পরপরই নেট মাধ্যমে নিজের একটি ছবি আপলোড করেছিলেন নুসরাত।

হাসপাতালের বেডে বসে বৃহস্পতিবার সকালে ইনস্টাগ্রামে একটি ছবি পোস্ট করেছেন নুসরাত। সাধারণ পোশাকে, নো মেকআপ লুকেই ছবিটি তুলেছেন তিনি। চোখে মুখে যেন এক অদ্ভুত প্রশান্তি বিরাজ করছে তার। সন্তান জন্মের আগে শান্তভাবে হবু সন্তানের আগমনের জন্য যেন অপেক্ষা করছেন নুসরাত। হবু মায়ের এই ছবিটিতে অনুরাগীরা ভালোবাসার প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। নুসরাতকে শুভেচ্ছাবার্তাও দিয়েছেন। তবে নেটিজেনদের একাংশ আবার তার এই ছবিটি নিয়েও সমালোচনা করতে শুরু করেছেন।

এই ছবিতে সমালোচকদের চর্চার প্রধান বিষয়বস্তু হয়ে দাঁড়িয়েছে নুসরাতের ঠোঁট। সকলেই জানেন, আগের তুলনায় নুসরাতের ঠোঁট দুটি অনেকটা মোটা হয়ে গিয়েছে। লিপ সার্জারি করিয়েই কার্যত নিজের ঠোঁটদুটিতে এমন আমূল পরিবর্তন এনেছেন টলিউডের এই অভিনেত্রী। এই কথা প্রায় সকলেরই জানা। যদিও নুসরাত সে কথা প্রকাশ্যে স্বীকার করেন না। বৃহস্পতিবার সকালের ওই ছবিতে ঠোঁট নিয়ে ফের ট্রোল করা হয় অভিনেত্রীকে।

“আগের ঠোঁটা ভালোই তো ছিল… এইরকম করে ঠোঁটটা বাজে করবার কি দরকার ছিল? বাজে লাগছে”, একাধিক নেটিজেনের মন্তব্যে উঠে এসেছে এমনই সব কথা। একজন তো স্পষ্ট বলেই দিয়েছেন, “এটাই আসল রূপ… বাকি তো সব মেকআপ আর ফি্ল্টারের কামাল”! একজন আবার নুসরাতের মোটা ঠোঁট প্রসঙ্গে কটাক্ষ ছুঁড়ে লেখেন, “ঠোঁটে কি মৌমাছিতে কামড়ে দিয়েছে?”

নুসরাতের এই পোস্ট নিয়ে যতই সমালোচনা হোক না কেন, তার অনুরাগীরা কিন্তু হবু মায়ের প্রশংসা করছেন। তার জীবনের নতুন ইনিংসের জন্য তাকে শুভকামনা জানিয়েছেন। সাহেব ভট্টাচার্য, রানা সরকার, অনিন্দিতা রায়চৌধুরীর মতো টলিউড ব্যক্তিত্বরা তার এই পোস্টে তার জন্য শুভকামনার বার্তা দিয়েছেন। ছবির ক্যাপশনে নুসরাত লিখেছেন, “Faith Over Fear”।

অর্থাৎ প্রথমবার সন্তান জন্ম দেওয়া নিয়ে বিন্দুমাত্র ভীত নন তিনি। বদলে তার মনে রয়েছে অগাধ বিশ্বাস। তিনি নিশ্চিত, ব্যক্তিগত জীবনের ঝড়ঝাপটা সামলে যেভাবে তিনি সকল বাধা-বিপত্তিকে জয় করে নিয়েছেন, তেমনি প্রসবের সময়কালীন ঝুঁকিও সামলে নিতে পারবেন তিনি। তাইতো প্রসবের আগে মোটেও ভীত না হয়ে বরং হবু সন্তানের মুখ দেখার অপেক্ষায় অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছিলেন নুসরাত।