‘সহবাস করেছি বিয়ে নয়’, আদালতে উঠলো নুসরতের মামলা, কি বলছে মামলার শুনানি

Nusrat Jahan Marriage Legal or Not

নুসরাত জাহান (Nusrat Jahan) এবং তার স্বামী নিখিল জৈনের (Nikhil Jain) বিবাহ-বিচ্ছেদের (Divorce Case) মামলাটি আজ আদালতে উঠবে। অভিনেত্রী যদিও তাদের সম্পর্ককে বৈবাহিক সম্পর্ক বলে স্বীকারই করেন না। তবুও আদালতের উপস্থিতিতে উভয় তরফের সম্মতিতেই নুসরাত এবং নিখিলের আইনসিদ্ধ বিচ্ছেদনামায় আদালতের সিলমোহর পড়বে। তার জন্য উভয় তরফের উপস্থিতি বাধ্যতামূলক। যদিও নিখিল জৈন আজকের শুনানিতে উপস্থিত থাকতে পারবেন না।

স্ত্রী তার সঙ্গে আর থাকতে চান না, একথা জেনেই স্ত্রীর থেকে বিচ্ছেদ চেয়ে আদালতে বিবাহবিচ্ছেদের মামলা দায়ের করেছিলেন নিখিল। আজকেই সেই মামলার শুনানির দিন ধার্য হয়েছে। তবে নিখিল জৈন তার বিশেষ প্রয়োজনে শহরের বাইরে রয়েছেন। তাই তিনি আদালতে উপস্থিত থাকবেন না। তবে তার পক্ষের আইনজীবী আদালতে উপস্থিত হবেন। এমনটাই জানিয়েছেন নিখিল।

Nusrat Jahan Nikhil Jain

আনন্দবাজারকে এক সাক্ষাৎকারে নিখিল জানিয়েছেন, ‘‘এখন আমি খুবই ব্যস্ত। কলকাতায় নেই। বারাণসীতে আছি। সামনে পুজো আসছে। কাজ ছাড়া কিছু ভাবতে পারছি না।’’ স্বভাবতই বারাণসী থেকে আজ আদালতে উপস্থিত হওয়া সম্ভব নয়। তবে তিনি আরও জানিয়েছেন, ‘‘আজ আমার প্রতিনিধি ওখানে থাকবে। আমার উপস্থিতির প্রয়োজন পড়বে না। নুসরতকে আদালতে গিয়ে বলতে হবে, আমার সঙ্গে ও আর কোনও সম্পর্ক রাখতে চায় না।’’

নুসরত আর নিখিলের সঙ্গে থাকতে চান না, এ কথা বুঝতে পেরে নিখিল আলিপুর আদালতে দেওয়ানি মামলা দায়ের করেছিলেন। মঙ্গলবার সেই মামলার শুনানির দ্বিতীয় তারিখ ছিল। আদালত সূত্রে খবর, করোনা আবহে প্রত্যেক দিন সব বিচারপতি আদালতে এসে উপস্থিত হচ্ছেন না এবং বেঞ্চ গঠন হচ্ছে না। যার ফলে মঙ্গলবার নুসরতের বিরুদ্ধে নিখিলের করা দেওয়ানি মামলার শুনানি হল না।

নুসরাত যেহেতু এই সম্পর্কটাকেই স্বীকার করেন না, অতএব অ্যানালমেন্ট করেই তাদের বিচ্ছেদ হবে আদালতে। এদিকে নুসরাত সন্তানসম্ভবা। আগামী মাসেই তার সন্তানের আগমনে হতে চলেছে। অতএব এই পরিস্থিতিতে আদালতে আজ নুসরাতও উপস্থিত নাও থাকতে পারেন। এ প্রসঙ্গে নিখিলের জবাব, ‘‘এই বিষয়টি এখন আদালতের বিচারাধীন। আদালত যদি দু’পক্ষকেই উপস্থিত হতে বলে, তা হলে দু’জনকেই থাকতে হবে।’’

Tollywood Actress Nusrat Jahan Nikhil Jain Divorce

উল্লেখ্য, বিবাহিত জীবন শুরু করা ঠিক ১ বছরের মাথাতেই নুসরাত এবং নিখিলের সম্পর্কে ফাটল ধরে। আলাদা থাকতে শুরু করেন নুসরাত। এবং এই সময়কালের মধ্যেই টলিউডের অপর এক অভিনেতা যশ দাশগুপ্তের সঙ্গে সম্পর্কেও জড়িয়ে পড়েন অভিনেত্রী। তাদের সম্পর্কের গভীরতা ক্রমশ সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশ পেতে শুরু করে। তারই মধ্যে আচমকা নুসরাতের সন্তান সম্ভাবনার কথা প্রকাশ হয়ে যায়। যাকে কেন্দ্র করে অভিনেত্রী ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে বিতর্ক নতুন মাত্রা লাভ করে।

এর পরেই জানা যায় যে নিখিল জৈন নুসরাতের থেকে বিচ্ছেদ চেয়ে আদালতে মামলা দায়ের করেছেন। একইসঙ্গে নুসরাতের সন্তানের পিতৃত্বের দায়ও অস্বীকার করেন। যদিও নিখিলের দাবি, তিনি নুসরাতের সন্তানসম্ভাবনার খবর পাওয়ার আগেই বিচ্ছেদের দাবি নিয়ে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন। তাই এই খবরের সঙ্গে বিচ্ছেদের মামলার কোনও সম্পর্ক নেই বলে তিনি দাবী করেছিলেন।

নিখিল-নুসরাত বিতর্ক ক্রমশ আরও বাড়তে থাকে। যদিও সে সব গায়ে না মেখে নুসরাত হবু সন্তানের আগমনের অপেক্ষায় এখন অধীর আগ্রহে দিন গুনছেন। সন্তানের আগমনের দিন যত এগিয়ে আসছে, হবু মা নুসরাতের চেহারাতে প্রেগন্যান্সি গ্লো যেন ততবেশিই ধরা পড়ছে। তাকে কেন্দ্র করে নেট দুনিয়ায় যত নেতিবাচক মন্তব্য ছড়াক না কেন, নুসরাত কিন্তু মানসিক দৃঢ়তা নিয়েই ইতিবাচক ভঙ্গিতে জীবনযাপন করছেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় তার বিভিন্ন পোস্ট সেই মানসিক দৃঢ়তারই প্রমাণ রাখে।