পিতৃপরিচয়হীন অনাগত সন্তানের মা হলেন নুসরাত জাহান

অবশেষে সেই বহু প্রতীক্ষিত সময়টা এসেই গেল। যার জন্য এতদিন অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছিলেন টলিউড (Tollywood) অভিনেত্রী নুসরাত জাহান (Nusrat Jahan), পৃথিবীতে পা রাখলো সে। আজ অর্থাৎ বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা ৪৫ মিনিট নাগাদ কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে নুসরাত পুত্রসন্তানের জন্ম দিয়েছেন। হাসপাতালের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, মা এবং নবজাতক, উভয়েই সুস্থ আছেন।

বুধবারই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন নুসরাত। অভিনেত্রীর জীবনের এই বিশেষ মুহূর্তে তার পাশে রয়েছেন তার বিশেষ বন্ধু যশ দাশগুপ্ত (Yash Dasgupta)। নুসরাত যখন অন্তঃসত্ত্বা, তখন থেকেই যশ তার সবরকমভাবে খেয়াল রেখেছেন। এদিন দুপুরে নুসরাত যখন সন্তানের জন্ম দিয়েছেন, তখনও হাসপাতালেই উপস্থিত ছিলেন অভিনেতা। যদিও প্রকাশ্যে সে কথা স্বীকার করেননি যশরত।

আসলে নুসরাতের সন্তানসম্ভাবনার খবর প্রকাশ পাওয়ার পর থেকেই তার সন্তানের পিতৃপরিচয় নিয়ে ব্যাপক শোরগোল পড়ে যায় নেটমাধ্যমে। নেটিজেনরা যখন এই নিয়ে সরব তখন নুসরাতের সন্তানের পিতৃত্ব অস্বীকার করে রীতিমতো যেন বোমা ফাটালেন তার স্বামী নিখিল জৈন। সংবাদমাধ্যমের সামনে নিখিল স্পষ্ট বলে দেন, বিগত কয়েক মাস ধরে তারা আলাদা রয়েছেন। অতএব এই সন্তানের পিতা তিনি নন।

নিখিল নুসরাতের সন্তানের পিতৃত্ব অস্বীকার করলে নেটিজেনদের প্রশ্নের মুখে পড়তে থাকেন যশ। কারণ বিগত কয়েক মাসে নিখিলের থেকে বিচ্ছিন্ন নুসরাত যশের সঙ্গে লিভ-ইন সম্পর্কে রয়েছেন বলে গুঞ্জন উঠেছিল। সেই গুঞ্জনে সীলমোহর দিয়েছে তাদের ইনস্টাগ্রামের বিভিন্ন পোস্ট, যেখানে বহুবার একত্রে দেখা গিয়েছে তাদের। তাই নুসরাতের সন্তানের বাবা যে যশ, সে সম্পর্কে প্রায় নিশ্চিত নেটদুনিয়া।

তবে এই নিয়ে যতই জলঘোলা হোক না কেন, নুসরাত তার সন্তান প্রসঙ্গে প্রকাশ্যে একটি কথাও বলেননি। তিনি শুধু তার সন্তানের আগমনের অপেক্ষায় দিন গুনে গিয়েছেন। মাতৃত্ব প্রসঙ্গে তার বক্তব্য, ‘‘মাতৃত্ব আশীর্বাদ, সেটা অস্বীকার করার জায়গা নেই, কিন্তু নিজের শরীর ও মন প্রস্তুত না হলে মা হওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত নয়।’’ এছাড়াও নিখিলের সঙ্গে তার সম্পর্কের অবনমন প্রসঙ্গে সরাসরি কিছু না বললেও পরোক্ষে তিনি বলেন, দাম্পত্য ‘বিষাক্ত’ হয়ে গেলে তা থেকে বেরিয়ে আসাই উচিত।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Nusrat (@nusratchirps)

 আজ থেকে কার্যত নুসরাতের জীবনের নতুন এক অধ্যায় শুরু হতে চলেছে। যে অধ্যায়ে তার সন্তান তার সফরসঙ্গী হতে চলেছে। অন্তঃসত্ত্বা থাকাকালীন সমাজে মহিলাদের অধিকার ছিনিয়ে নেওয়ার লড়াই লড়েছেন নুসরাত। এখন নিজের সন্তানকে নিজের পরিচয়েই বড় করে তুলতে চান তিনি। তাইতো সমাজের সমস্ত সমালোচনাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে নুসরাত আজ একজন সিঙ্গেল মাদার হিসেবে নিজের নতুন পরিচয় গড়ে তুললেন।