পিপিই কিট পরে কলকাতার হাসপাতালে করোনা রোগীদের সঙ্গে নার্সের নাচ ভাইরাল

শরীর এবং মন একে অপরের পরিপূরক। শরীর যদি ভালো না থাকে, তাহলে তার প্রভাব পড়বে মনের উপর। মানসিক অবসাদ ঘিরে ধরবে রোগীকে। আবার মন যদি খুব খারাপ থাকে তাহলে দ্রুত সুস্থ হয়ে ওঠাও রোগীর পক্ষে মুশকিল হয়ে পড়বে। এই মুহূর্তে সারাদেশ তথা পৃথিবী রোগগ্রস্ত। মারণ ভাইরাসের আক্রমণে জর্জরিত। অদৃশ্য এক মারণ শক্তির বিরুদ্ধে যেন সমগ্র মনুষ্য প্রজাতির অসম লড়াই চলছে। এই লড়াইয়ে মানুষের উপর ভারী হয়ে পড়ছে ভাইরাস।

তবে সাহস হারালে চলবে না। অতিমারি ইতিপূর্বেও পৃথিবীতে আক্রমণ চালিয়েছে। করোনা না হোক, ইনফ্লুয়েঞ্জা, প্লেগ, কলেরার মত ছোঁয়াচে রোগগুলির সঙ্গে লড়াই চালিয়ে মানুষ এক পর্যায়ে তাদের পরাজিত করতে পেরেছিল। আজও সেই প্রত্যাশাতেই রয়েছেন মানুষ। একদিন এই কালো অন্ধকার ঠিক কেটে যাবে। পৃথিবীর সুস্থ হয়ে উঠবে। এই আশাতেই লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী থেকে শুরু করে অন্যান্য করোনা যোদ্ধারা।

মন ভালো রাখার সব থেকে ভালো উপায় নাচ-গান ছাড়া আর কি হতে পারে? হাসপাতাল চত্বরে তো আর টিভি কিংবা স্মার্টফোন ব্যবহার করার অনুমতি নেই। তাহলে উপায়? করোনা রোগীদের মানসিক প্রশান্তি আসবে কিভাবে? সেই উপায়ও বের করে ফেললেন কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালের একজন নার্স। তিনি নিজেই নেচে-গেয়ে রোগীদের মন ভালো রাখার প্রয়াস চালালেন! সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে সেই ভিডিও।

এমনিতেই চিকিৎসকেরা এই কঠিন পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে হিমশিম খাচ্ছেন। তার উপর আবার রোগী যদি মনোবল হারিয়ে ফেলেন তাহলে এই লড়াইয়ে দুর্বল হয়ে পড়বেন স্বাস্থ্যকর্মীরাও। তেমনটা তো আর হতে দেওয়া যায় না। তাই হাসপাতালের কোভিড ওয়ার্ডের মধ্যে এইভাবেই বিনোদনের ব্যবস্থা করলেন কলকাতার উডল্যান্ডস হাসপাতালের নার্স অজিতকুমার পট্টনায়েক।

সোশ্যাল মিডিয়ায় যে ভিডিওটি প্রকাশ পেয়েছে সেখানে দেখা যাচ্ছে, হাসপাতালের একটি ওয়ার্ডে পিপিই কিট পরে একটি হিন্দি গানের তালে তালে নাচছেন ওই নার্স। তার নাচ দেখে রোগীরা সবাই বেশ খুশি। বেডে বসে বসে কিংবা শুয়ে শুয়ে তারা অজিতের নাচ উপভোগ করছেন। সকলের মুখেই আনন্দের হাসি। এদের মধ্যে কেউ কেউ আবার গোটা দৃশ্যটি ভিডিও মারফত ক্যামেরাবন্দি করতে ব্যস্ত।

হাসপাতালের অন্যান্য কর্মীরাও উপস্থিত হয়েছিলেন সেইখানে। অজিতের নাচ দেখে সকলেই খুব খুশি হয়ে হাততালি দিচ্ছিলেন। বলা বাহুল্য, সকলের পরণেই ছিল পিপিই কিট। অজিত পট্টনায়কের নাচের এই ভিডিওটি ‌ক্যামেরাবন্দি করার পর হাসপাতাল কর্মীদের মধ্যে থেকেই কেউ সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দেন। এরপর সেটি দ্রুত নেটদুনিয়ায় ছড়াতে থাকে।

এই সংকটময় মুহূর্তে হাসপাতাল কর্মীর এমন উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাচ্ছেন সকলে। নেটাগরিকরা এক বাক্যে তার প্রশংসা করছেন। করোনা রোগীদের মানসিকভাবে সুস্থ রাখার জন্য যে পন্থা বেছে নিয়েছেন অজিত তা সকলের কাছেই অনুপ্রেরণাদায়ক। এ যেন অনেকটা করোনার বিরুদ্ধে হার না মানার বার্তা, যা তিনি দিতে চেয়েছেন করোনা রোগীদের।