নিকোটিন মানুষকে করোনা সংক্রমণ থেকে ‘রক্ষা’ করতে পারে, বলছে গবেষণা

বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাসের ত্রাস। করোনা ভাইরাসের হাত থেকে কিভাবে বাঁচা যেতে পারে এর প্রতিষেধক আবিস্কার হল কিনা সেইদিকে তাকিয়ে সকলে। করোনা ভাইরাসের প্রতিষেধক আবিষ্কার করতে হলে জানতে হবে এর চরিত্র তাই সারা বিশ্বের প্রতিটি দেশের বিজ্ঞানীরা করোনা ভাইরাস নিয়ে দিনরাত গবেষনা করছেন।

এর আগে গবেষনায় উঠে এসেছিল ধূমপায়ী মানুষের করোনা আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। এই খবরে আতঙ্কিত হয়ে গিয়েছিলেন ধূমপায়ীরা। কিন্তু সম্প্রতি ফ্রান্সের গবেষকেরা অন্য দাবি করছেন।

ফ্রান্সের গবেষকদের দাবি নিকোটিন মানুষকে করোনা সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচাতে পারে। প্যারিসের হাসপাতালে সম্প্রতি গবেষকদল একটি গবেষনা করেন। ৩৪৩ জন করোনা আক্রান্তদের নিয়ে এই গবেষনা করা হয়। এছাড়াও আরও ১৩৯ জন করোনা আক্রান্ত ছিলেন, যাদের শরীরে করোনার সামান্য লক্ষণ দেখা গিয়েছিল।

যাদের নিয়ে গবেষণা করা হয় তাঁরা বেশিরভাগই ধূমপান করেন। দেখা গিয়েছে ফ্রান্সের মোট জনসংখ্যার ৩৫ শতাংশ ধূমপায়ীদের মধ্যে ৫ শতাংশ করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। যারা ধূমপান করেননা তাঁদের শরীরেই করোনা সংক্রমন হচ্ছে বেশি।

নিউ ইংল্যান্ড জার্নালেও সম্প্রতি এইরকম তথ্য প্রকাশিত হয়েছে। সেই জার্নালে বলা হয় চীনে প্রতি এক হাজার করোনা আক্রান্তের মধ্যে ১২ শতাংশ ধূমপায়ী ছিলেন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও এমনই তথ্য দিয়ে বলেন চীনে ২৬ শতাংশ মানুষ ধূমপান করে থাকেন, চিনে ধূমপায়ীদের মধ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা কম।

কিন্তু নিকোটিনের কোন গুনে এমনটা হচ্ছে? গবেষকরা বলছেন, নিকোটিন আগে থেকেই রেসপিরেটর সিস্টেম দখল করে নেয়। সেই কারণে রেসপিরেটরি সেলে প্রবেশ করার পথ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ভাইরাস সেখানে স্বাভাবিকভাবেই প্রবেশ করতে পারে না। প্যারিসের ওই গবেষক স্বাস্থ্য কর্মীদের শরীরে কৃত্রিমভাবে নিকোটিন দিয়ে পরীক্ষা করে করে দেখবেন। করোনা সংক্রমন রোধ করার জন্য নিকোটিন সাহায্য করতে পারেন কিনা তা খতিয়ে দেখতে চলেছেন গবেষকেরা।

তবে গবেষকেরা বলছেন, তাঁরা কোনোভাবেই করোনা থেকে বাঁচতে সিগারেট খাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন না। বা করোনা থেকে বাঁচতে নিকোটিন যে প্রতিষেধক এ কথাও তাঁরা বলছেন না। করোনা থেকে বাঁচতে নিকটিন কোনোভাবে ঢাল হতে পারে কিনা তা এখনও পরীক্ষা মূলক পর্যায়ে রয়েছে। তবে গবেষকেরা বলছেন, নিকোটিনের খারাপ প্রভাব অস্বীকার করা যায় না। তাই এখনই এই খবরে আশার আলো দেখাচ্ছেন না।