জ্বর, সর্দি কাশি নয়, করোনা সংক্রমণে দেখা যাচ্ছে নতুন ৬ উপসর্গ

2950

চিনের উহানে ডিসেম্বরের শুরুর দিকে কোভিড-১৯ ভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া যায়। তখন অবশ্য এই ভাইরাসের ভয়াবহতা বোঝা যায়নি। এর কয়েক মাস পর চিনের সীমানা পেরিয়ে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে এই ভাইরাস। তেমন কোনো জটিল উপসর্গ নয়, সামান্য জ্বর, সর্দি, কাশি। এভাবেই শুরু হয় মৃত্যু মিছিল। বিশেষজ্ঞরা এই কোভিড-১৯ আবহের সাথে মিল পান কয়েক দশক আগের স্প্যানিশ ইনফ্লুয়েঞ্জার।

স্প্যানিশ ইনফ্লুয়েঞ্জার সময় সরকারি হিসেবে মারা গিয়েছিল ৫ কোটি মানুষ, বেসরকারি হিসেবে ১০ কোটি প্রায়। শোনা যায় সেই সময় লাশ তোলার জন্য রাস্তায় ঘুরে বেরাতো ভ্যান। স্প্যানিশ ইনফ্লুয়েঞ্জার ইতিহাসের যাতে পুনরাবৃত্তি না হয় তাই এই কোভিড-১৯ ভাইরাস রোধে প্রতিষেধক তৈরী করতে উঠে পড়ে লাগেন দেশের তাবড় তাবড় গবেষকেরা।

কোভিড-১৯ ভাইরাসের চরিত্র বিশ্লেষণ করতে গিয়ে দেখা যায় করোনা চরিত্র বদলাচ্ছে। প্রথম দিকে করোনা সংক্রমকদের জ্বর, সর্দি কাশির মতো উপসর্গ দেখা দিলেও পরে দেখা যায় বেশ কিছু করোনা সংক্রমকদের শরীরে কোনো উপসর্গই নেই। যাকে চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় বলা হয় সাইলেন্ট কেরিয়ার।

Source : The Economic Times

পরবর্তীকালে দেখা যায় করোনা সংক্রমকদের কিডনি বা হার্টের মতো বিভিন্ন প্রতঙ্গে সমস্যা দেখা দিচ্ছে। আবার বেশ কিছু করোনা সংক্রমকদের পায়ে বা শরীরে যেকোনো জায়গার চামড়ায় ঘা ও সাথে প্রদাহের লক্ষণও দেখা দেয়। এইভাবে বিভিন্ন চরিত্রে ধরা দিয়েও শান্ত হয়নি করোনা। এবার আবারও পাওয়া গেল বেশ কিছু নতুন উপসর্গ।

করোনা রোগীর উপসর্গ লক্ষ্য করে দেখা চিকিৎসকেরা বলছেন, এমন বেশ কিছু করোনা সংক্রমিত ব্যাক্তি খাবারে গন্ধ অনুভব করছেন কিন্তু  তাঁরা খাবারের স্বাভাবিক স্বাদ পাচ্ছেন না। এছাড়াও একাধিক করোনা সংক্রমিত ব্যক্তি রয়েছেন যাদের ঠান্ডা লাগার প্রবণতা দেখা গিয়েছে। এর সাথেই প্রচন্ড মাথা ব্যাথা, গলায় ব্যথা ও পেশিতে ব্যাথার মতো উপসর্গও দেখা দিচ্ছে। এমনকি বেশ কিছু করোনা রোগীদের চোখের সমস্যাও দেখা দিচ্ছে।

Source : Science Focus

বিশেষজ্ঞরা বলছেন যেকোনো ভাইরাসকে কাবু করতে হলে তার চরিত্র সম্পর্কে জানা দরকার। তাই করোনা সম্পর্কে এই সমীক্ষাগুলি যে আগামী দিনে করোনা প্রতিহত করতে কয়েক পা এগিয়ে দেবে তা হলফ করে বলা যায়। তবে এখনও পর্যন্ত করোনার প্রতিষেধক পাওয়া যায়নি। আর ভারতের মতো দেশ করোনার অস্তিত্ব মেনেই স্বাভাবিক হওয়ার চেষ্টা করছে। তাই চিকিৎসকেরা বলছেন এখন একমাত্র নিজস্ব সতর্কতাই বাঁচাতে পারে প্রাণ। তাই স্যনিটাইজার দিয়ে হাত ধোয়া ও সামাজিক দূরত্বকে অভ্যাস বানিয়ে নিন।