সাড়ে তিন লক্ষ কোটির সম্পত্তি বাড়িয়ে বিশ্বের ১৩ তম ধনী মুকেশ আম্বানি

538

সস্তার ডেটা প্ল্যান নিয়ে বাজারে এসে যা ভারতের তথ্যপ্রযুক্তির দুনিয়াতেই এক বিশাল বিপ্লব এনে ফেলেছিল, এবং, আরেক অর্থে বদলে দিয়েছিল বারতের একেবারে সাধারণ মানুষের জীবনও, সেই রিলায়েন্স জিও এবার মুকেশ আম্বানির মাথায় তুলে দিল আরেক বড় শিরোপা।

মুকেশ আম্বানী আরও ছয় ধাপ এগিয়ে বিশ্বের ১৩ তম ধনীর তালিকায় জায়গা করে নিলেন।  এক জরিপ অনুযায়ী, বিশ্বের ১০০ জন ধনী ব্যক্তির মধ্যে ১৩ তম অবস্থানে রয়েছে রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের চেয়ারম্যান মুকেশ আম্বানি।

বিশ্বের শীর্ষ ১০০ জন ধনী ব্যক্তির তালিকা প্রকাশ করেছে ফোর্বস ম্যাগাজিন। আগের বছরের তুলনায় সম্পদ বেড়ে ছয় ধাপ এগিয়েছেন মুকেশ আম্বানি। ২০১৮ সালে তিনি ছিলেন বিশ্বের ১৯ তম ধনী ব্যক্তি। সে সময় তার মোট সম্পত্তির পরিমাণ ছিল ৪০ দশমিক ১ বিলিয়ন ডলার। কিন্তু গত বছরের তুলনায় তার সম্পত্তির পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়িয়েছে ৫০ বিলিয়ন ডলার।

একধাক্কায় কয়েক ধাপ এগিয়ে এলেন রিলায়েন্সের কর্ণধার মুকেশ অম্বানি। সদ্য প্রকাশিত ফোর্বসের ধনী ব্যক্তিদের তালিকায় ছয় ধাপ এগিয়ে বিশ্বের মধ্যে ১৩ নম্বর স্থানে রয়েছেন তিনি। তাঁর মোট সম্পত্তির পরিমাণ ৫০ বিলিয়ন ডলার অর্থাৎ ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ কোটি।

তালিকায় এক নম্বর স্থানে রয়েছেন আমাজনের কর্ণধার জেফ বেজোস। তাঁর সম্পত্তির পরিমাণ ১৩১ বিলিয়ন ডলার। ২০১৯-এর ফোর্বস তালিকা অনুযায়ী, ২০১৮-তে তাঁর সম্পত্তির পরিমাণ ছিল ৪০.১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। তিনি ছিলেন ১৯ তম স্থানে। সেখান থেকে সম্পত্তি বেড়েছে প্রায় ১০ বিলিয়ন ডলার।

আরও পড়ুন : বিশ্বের মহামূল্যবান এই ১০টি সম্পদ আছে মুকেশ আম্বানির কাছে

ফোবর্স অম্বানি সম্পর্কে বলেছে, ‘মুকেশ অম্বানি ৬০ বিলিয়ন ডলার রেভিনিউ পাওয়া রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রির মালিক। ২০১৬-তে টেলিকম মার্কেটে আলোড়ন ফেলে দিয়ে জিও 4G ফোন সার্ভিস শুরু করেন তিনি। জিও ইতিমধ্যেই ২৮০ গ্রাহক পেরিয়েছে বলেও উল্লেখ করা হয়েছে পত্রিকায়।’

আরও পড়ুন : ভারতের সবথেকে ধনী খনি মাফিয়া! সোনার থালায় খান, পড়েন হীরের মুকুট

ভারতীয় হিসেবে ওই তালিকায় অম্বানির পর রয়েছেন উইপ্রো চেয়ারম্যান আজিম প্রেমজি। বিশ্বে ৩৬ নম্বর স্থানে রয়েছেন তিনি। তাঁর মোট সম্পত্তির পরিমাণ ২২.৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এছাড়াও ভারতীয়দের মধ্যে ফোর্বসের তালিকায় রয়েছেন আদিত্য বিড়লা গ্রুপের চেয়ারম্যান কুমার বিড়লা, আদানি গ্রুপের চেয়ারম্যান গৌতম আদানি, ভারতীয় এয়ারটেলের কর্তা সুনিল মিত্তল ও পতঞ্জলির সহ প্রতিষ্ঠাতা আচার্য বালকৃষ্ণ। তালিকায় তিনটি স্থান পিছিয়ে আট নম্বরে রয়েছেন ফেসবুক কর্তা মার্ক জুকারবার্গ। বিল গেটস রয়েছেন দ্বিতীয় স্থানে।