সাত পাকে বাঁধা পড়লো ঋষিরাজ-পিহু, পর্দার প্রেম গড়ালো বাস্তবেও, মনে বইছে প্রেমের ফাগুন

Mon Phagun Rishi Pihu Wedding

পারিবারিক চাপে পড়ে নিতান্ত অনিচ্ছাসত্ত্বেও বিয়েটা শেষমেষ করতেই হলো‌ ঋষিরাজ ও পিহুকে। মনফাগুনজুড়ে (Mon Phagun) এখন বিয়ের সানাই শোনা যাচ্ছে। টুবাইদাকে ভালবাসলেও মাসি-মেসোর কথা ভেবে ঋষিরাজকেই বিয়ে করতে বাধ্য পিহু। আবার প্রিয়দর্শিনীকে আজীবন মনে মনে স্ত্রী হিসেবে মেনে পিহুর সিঁথিতে সিঁদুর তুলে দেয় ঋষিরাজ।

তবে ধারাবাহিকে যাই হোক না কেন, বাস্তবে কখনও এইভাবে বিয়ে হওয়া উচিত নয় বলেই মনে করেন ধারাবাহিকের ঋষিরাজ ওরফে শন ব্যানার্জি (Sean Banerjee)। তার মতে, দুজন মানুষের মধ্যে মনের এবং মতের মিল হলে তবেই বিয়ে করা উচিত। গল্পে যাই হোক না কেন, বাস্তবে কখনও জোর করে বিয়ে দিয়ে দেওয়ার পক্ষপাতী নন তিনি।

মহিলা দর্শকের হার্টথ্রব শন ব্যানার্জি জানালেন, স্কুলে পড়াকালীন তিনি একটি মেয়ের প্রেমে পড়েছিলেন। তবে বড় হয়ে সম্পর্কের সেই অনুভূতি বদলে গিয়েছে। বর্তমানে একে অপরের সঙ্গে যোগাযোগ থাকলেও প্রেমের সেই অনুভূতি আর নেই। বাস্তবে শন ব্যানার্জির জীবনে কোনও মহিলার উপস্থিতি আছে কিনা তা জানতে উদগ্রীব তার অনুরাগীরা। তবে অভিনেতা অবশ্য ব্যক্তিগত তথ্য ফাঁস করেননি।

পিহু ওরফে সৃজিলা গুহের প্রথম প্রজেক্ট ‘মন ফাগুন’। দার্জিলিংয়ের মেয়ে সৃজিলার (Srijila Guha) জন্ম মেক্সিকোতে। বলা হয়, মেক্সিকোর মহিলাদের সৌন্দর্য নাকি হাতে আঁকা! তবে বাংলা বলতে কোনও অসুবিধা হয় না তার। বড় হয়ে মডেলিং করতে চেয়েছিলেন সৃজিলা। মডেলিং করার জন্যেই ৫ বছর আগে দার্জিলিং থেকে কলকাতায় এসেছিলেন সৃজিলা গুহ।

বাংলা ধারাবাহিকের হাত ধরেই কেরিয়ার শুরু করলেন মেক্সিকান সুন্দরী সৃজিলা গুহ। ইনস্টাগ্রামে ইতিমধ্যেই তার ফলোয়ার্সের সংখ্যা ৪০ হাজারের কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছে। ধারাবাহিকে ঋষিরাজ এবং পিহুর সম্পর্কের ভবিষ্যত কী হতে চলেছে? সৃজিলার জবাব, “দুজনের অমতেই বাধ্য হয়ে পর্দায় এই বিয়েটা হয়েছে, এরপর কী হবে তার উত্তর দেবে ধারাবাহিকের গল্পের মোড়”।

ধারাবাহিকে রুশা এবং পিহুর সম্পর্কে দিদি-বোনের রসায়ন দর্শকের নজর কাড়ে। বাস্তবে গীতশ্রী এবং সৃজিলার সম্পর্ক কেমন? সৃজিলা জানালেন, কালিম্পংয়ের শুটিংয়ের সময় হোটেলে গীতশ্রীর সঙ্গে একই ঘরে থেকেছিলেন তিনি। মাত্র কয়েকদিনের মধ্যেই জমে ওঠে তাদের আলাপ। এই কদিনের মধ্যেই তারা একে অপরের সম্পর্কে অনেক কথাই জেনে ফেলেছেন।