ঘরে বানানো হ্যান্ড স্যানিটাইজার জীবানু নাশ করে? কি বলছেন বিশেষজ্ঞরা

বাড়িতে স্যনিটাইজার তৈরি করেছেন? নিশ্চিন্তে হাত ধুচ্ছেন? কিন্তু বাড়িতে বানানো স্যনিটাইজার জীবানু নাশ করছে কি? উত্তর দিলেন বিশেষজ্ঞরা।

ঘরে বানানো হ্যান্ড স্যানিটাইজার আর বাজারে কেনা স্যানিটাইজারের মধ্যে কোনটা ভালো

করোনা ভাইরাসে প্রকোপ সারা বিশ্ব জুড়ে। করোনা থেকে রক্ষা পেতে দীর্ঘদিন লকডাউনের পথে হেটেছিল বেশ কয়েকটি শহর। কিন্তু অর্থনীতির কথাও ভেবে দেখতে হবে। তাই করোনার উপস্থিতি মেনে নিয়েই স্বাভাবিক হওয়ার পথে সকলে। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অলক্ষ্য শত্রুর কথা ভুলে গেলে চলবে না।

তাই সাবধানে থাকতে মাস্ক, ও সামাজিক দূরত্বের পাশাপাশি হাত ধুতে হবে সারা দিনে অন্তত ২০ বার। কিন্তু রাস্তায় থাকলে জল সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার পরিকাঠামো নেই। তাই সেক্ষেত্রে অ্যালকোহল যুক্ত স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে হবে।

এর পরই শুরু হয় স্যানিটাইজারের চাহিদা। কোথাও চড়া দামে স্যানিটাইজার বিকোতে থাকে আবার কোথাও স্যনিটাইজারই পাওয়া যায় না। এরই মধ্যে ইন্টারনেটে ভাইরাল হতে থাকে বাড়িতেই স্যনিটাইজার বানানোর কেমিস্ট্রি। অনেকেই বাড়িতে তৈরীও করে ফেললেন স্যনিটাইজার। সেই স্যানিটাইজার দিয়ে নিশ্চিন্তে হাত ধুচ্ছেন। কিন্তু আদৌ বাড়িতে বানানো স্যনিটাইজার জীবানু নাশ করছে কি! উত্তর দিলেন বিশেষজ্ঞরা।

সম্প্রতি নিউ ইয়র্ক টাইমস্‌ এর একটি প্রতিবেদন অনুযায়ী বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাড়িতে স্যনিটাইজার বানানো খুব একটা কঠিন ব্যপার নয়। প্রয়োজনীয় সবরকম উপাদান পাওইয়া যায়। কিন্তু সে সব একসাথে মিশিয়ে ফেললে আদতে কোনো লাভ হয় না। অনেকেই উপাদান গুলি মেশানোর মাপ জানেন না। সব থেকে গুরুত্বপূর্ন যে উপাদান অ্যালকোহল , এর মাত্রায় ভুল হলে স্যনিটাইজারের কোনো উপকারিতা থাকে না।

আরও পড়ুন :- কবে বিদায় নেবে করোনা জানিয়ে দিল করোনার ভবিষ্যৎবাণী করা কিশোর

আমেরিকার টেক্সাস ও লুইজিইয়ানার উল্লেখযোগ্য স্বাস্থ্য কেন্দ্রের ডারমেটোলজির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ টেড লেইন বলছেন, ‘বাড়িতে নিজে নিজে স্যনিটাইজার বানাতে গেলে অ্যালকোহলের মাত্রায় ভুল হতে পারে। এমনকি মিশ্রনটি যার সাহায্যে মেশানো হবে সেই বস্তুটি সঠিকভাবে পরিশুদ্ধ নাও থাকতে পারে। ফলে স্যানিটাইজারে হয়তো ছত্রাক, ব্যাকটেরিয়া বা ভাইরাস মিশে যায়।‘

লেইন আরও বলেন,’ বাড়িতে স্যানিটাইজার বানাতে গিয়ে অনেকেই সুগন্ধি তেল, বা আরও অনেক কিছু মেশাচ্ছেন এর ফলে ত্বকের সমস্যাও দেখা দিতে পারে। এর থেকে সাবান জল দিয়ে হাত ধুয়ে লোশন বা ক্রিম মেখে নেওয়া ভালো। আর সঠিক পদ্ধতিতে বিশেষজ্ঞ দিয়ে তৈরী স্যনিটাইজার ভালো।‘

আরও পড়ুন :- করোনা ছাড়াও এই ১২টি মহামারীর কোপে পড়েছিল ভারত

নিউ ইয়র্ক টাইমসের ওই প্রতিবেদনে বলে হচ্ছে, ‘অনেকেই ৯১ শতাংশ অ্যালকোহল ও অ্যালোভেরা জেল মিশিয়ে স্যানিটাইজার বানানোর পরামর্শ দিচ্ছেন। এই দুটি মেশানোর পর দেখা যাচ্ছে মিশ্রনে অ্যালকোহলের পরিমাণ হচ্ছে ৬০ শতাংশ। আবার অনেকে ৭০ শতাংশ আইসো প্রোপাইল অ্যালকোহল দিয়ে স্যানিটাইজার বানানোর নির্দেশ দিচ্ছেন। সেক্ষেত্রে মিশ্রনে বাকি উপকরন মেশানোর পর দেখা যাচ্ছে অ্যালকোহলের মাত্রা দাঁড়াচ্ছে ৪৭ শতাংশ। ফলে অ্যালকোহলের ঘাটতির জন্য এতে জীবানু ধ্বংস করার ক্ষমতা থাকছে না।‘

আরও পড়ুন :- করোনা ভাইরাস কোথায় কতদিন বেঁচে থাকে গবেষণা উঠে এল নতুন তথ্য

স্যানিটাইজার কেনার আগে খেয়াল রাখুন

  • অ্যালকোহলযুক্ত স্যানিটাইজার সব জীবাণু মারতে পারে না। ৬০ থেকে ৯৫ শতাংশ অ্যালকোহল রয়েছে, এমন স্যানিটাইজারই সবচেয়ে ভালো। অ্যালকোহল নেই, এমন স্যানিটাইজার কিনবেন না।
  • প্রয়োজনের তুলনায় বেশি স্যানিটাইজার কিনবেন না কারণ বেশি দিন ঘরে রেখে দিলে স্যানিটাইজারের অ্যালকোহলের পরিমাণ কমে যায়।
  • স্যানিটাইজার কেনার আগে বোতলের গায়ে কম্পোজিশন জেনে নিন। এতে অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল, অ্যান্টিভাইরাল ধর্ম থাকতেই হবে।
  • স্যানিটাইজার দিয়ে অন্তত ২০ সেকেন্ড কচলে কচলে হাত ধুতে হবে। সবচেয়ে ভালো হয় সাবান দিয়ে হাত ধোয়া। কিন্তু সব সমতল ছোঁয়ার পর হাত যদি ধোয়া সম্ভব না হয়, তবে ধুতে হবে স্যানিটাইজার দিয়ে।