লালন-ফুলঝুরির বিয়েতে ছিল স্পেশাল আইটেম, বিয়ের মেনু শেয়ার করলেন মানালি

লালন-ফুলঝুরির বিয়েতে জমিয়ে হল ভুরিভোজ, মেনু দেখে জিভে আসছে জল

অবশেষে সাত পাক ঘুরলো লালন এবং ফুলঝুরি। স্টার জলসার (Star Jalsha) ‘ধূলোকণা’ (Dhulokona) ধারাবাহিকে এসে গেল সেই বহু প্রতিক্ষিত মুহূর্ত। অঙ্কুরের প্রচেষ্টায় চড়ুইয়ের ষড়যন্ত্র ভেস্তে গিয়ে শেষমেষ এক হলো নায়ক-নায়িকা। স্বভাবতই জমাটি সেলিব্রেশনের মুডে রয়েছেন সেটের কলাকুশলীরা। হোক না নকল বিয়ে, আসল বিয়ের চাইতে কিছু কম মজা করছেন না সেটের সদস্যরা।

নায়ক-নায়িকার মিলন হতেই ধারাবাহিকের টিআরপি বেড়েছে। লালন-ফুলঝুরির বিয়ের সপ্তাহে তো বেঙ্গল টপারও হয়েছিল এই ধারাবাহিক। অর্থাৎ বিয়ের আমেজে গা ভাসিয়েছেন দর্শকরাও। শঙ্খ-উলুধ্বনির মাঝেই শুভদৃষ্টি, মালা বদল, সাত পাক, সিঁদুর দানে এক হল লালন এবং ফুলঝুরি।

LALON FULJHURI DHULOKONA

 

এই পর্বের শুটিংয়ের জন্য সেটে সাত দিন ধরে বিয়ের আয়োজন চলেছে। রীতিমতো ঘটা করেই বিয়ের আয়োজন করা হয়েছিল। ফুল-মালা আর আলোর মোড়কে মুড়ে ফেলা হয়েছিল সেট। সঙ্গে সেটের সদস্যদের জন্য জমিয়ে খাওয়া-দাওয়ার ব্যবস্থাও করা হয়। বিয়ের মেনুতে কোন কোন আইটেম ছিল? জানালেন অভিনেত্রী মানালি দে।

সংবাদমাধ্যমের কাছে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে মানালি বলেছেন, ‘এই ধারাবাহিকেই আমি তিন-চারবার বউ সেজে ফেললাম!’ খুশি উপচে পড়ছে তার কথায়। খুশি হয়েছেন দর্শকরাও। মানালি জানিয়েছেন, “আমরা প্রত্যেকেই খুব পরিশ্রম করে কাজ করি। দর্শকের ভালোবাসা পেলে তো ভালই লাগবে। লালন-ফুলঝুরির বিয়ে নিয়ে তাদের উচ্ছাস দেখে সত্যিই খুশি।”

dhulokona

এর সঙ্গেই মানালি বলেছেন, “বিয়ে হোক বা না হোক, এখানে প্রায় প্রত্যেক দিনই ভুরিভোজ হয়। তবে বিয়ের দিন আমরা সবাই মিলে বিরিয়ানি খেয়েছিলাম। তাছাড়া বাড়ি থেকে আনা টিফিনও ভাগাভাগি করে খাই আমরা। একদম স্কুলের মত!” লালন-ফুলঝুরি এবার তাদের নতুন জীবন শুরু করতে চলেছে। ভবিষ্যতে তাদের জন্য কী অপেক্ষা করছে তা সময় বলবে।