‘তাড়াহুড়ো করে বিয়ে করেছিলাম’, এখন পস্তাচ্ছেন মধুমিতা সরকার

টলিউড (Tollywood) অভিনেত্রী মধুমিতা সরকার (Madhumita Sarcar) এবং টলিউডের পরিচালক ও অভিনেতা সৌরভ চক্রবর্তীর (Sourav Chakraborty) দাম্পত্য সম্পর্ক যে বহুকাল আগেই ভাঙ্গনের মুখে পড়েছে, সে কথা সকলেরই জানা। ২০১৫ সালে গাঁটছড়া বেঁধেছিলেন তারা। তবে ২০১৯ সালে জানা যায় সৌরভ এবং মধুমিতা নাকি বেশ কিছুকাল ধরেই আলাদা থাকছেন। এর পরেই জানা যায় আইনত আলাদা (Divorce) হয়ে যাওয়ার জন্য আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন তারা।

ছোটপর্দার ‘পাখি’ ‘বোঝে না সে বোঝে না’ ধারাবাহিকের শুটিং চলাকালীনই সৌরভকে বিয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। বলতে গেলে টলিউডের মোস্ট ‘হ্যাপেনিং কাপল’ ছিলেন তারা। তবে সম্পর্কের তাল কাটলো ২০১৯ এ এসে। তাদের সম্পর্ক ভাঙ্গার খবর শুনে মন ভেঙেছিল অনুরাগীদের। যদিও খাতায়-কলমে তারা আজও স্বামী-স্ত্রী। কিন্তু আইনি প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলেই সেই সম্পর্কে ছেদ পড়বে। আজ জীবনের এই পর্যায়ে এসে নিজের সেদিনের সেই সিদ্ধান্ত নিয়ে আফসোস করেন মধুমিতা।

আজ তার মনে হয়, “খুব অল্প বয়সে বিয়েটা করে ফেলবার একটা আফসোস তো রয়েইছে। যদি আমি তাড়াহুড়ো করে তখন বিয়েটা না করতাম তবে আমি কেরিয়ারে আরও বেশি করে ফোকাস করতে পারতাম”। যদিও সৌরভের সঙ্গে কাটানো ভালো কিছু মুহূর্তের স্মৃতিও রয়েছে। তা অস্বীকার করেন না অভিনেত্রী। “সৌরভের সঙ্গে কাটানো মুহূর্তগুলো নিয়ে আমার কোনও আফসোস নেই, আমাদের কিছু ভালো স্মৃতি রয়েছে”, জানালেন মধুমিতা।

একসময় যাদের প্রেম নিয়ে স্টুডিও পাড়া এত চর্চা ছিল, সেই প্রেমের সম্পর্ক বিয়েতে পরিণতি পাওয়ার পরেই কেন ভেঙে গেল? মধুমিতা মনে করেন, “হয়ত আমাদের প্রেফারেন্সটা আলাদা ছিল, আমি সত্যি বলতে পারব না। আমি খুব রোম্যান্টিক মানুষ, একদম খাদের কিনারায় না চলে যাওয়া অবধি ওই সম্পর্কটা টিকিয়ে রাখবার চেষ্টা আমি করেছিলাম। এখন মনে হয় ওই বিয়েটা ভেঙে আরও আগে বেরিয়ে আসা উচিত ছিল”।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি তার স্বামী সৌরভ চক্রবর্তীর একটি সাক্ষাৎকারে অভিনেতা জানিয়েছিলেন প্রাক্তনের সঙ্গে কাজ করতে তার আপত্তি রয়েছে। ভবিষ্যতে যদি কোনও প্রজেক্টে একসঙ্গে কাজ করার সুযোগ আসে, তাহলে তা তিনি এড়িয়ে যাবেন। তিনি আরও বলেছিলেন, তার কাছে আড়াই ঘন্টার ছবির সাফল্যের তুলনায় আড়াই বছরের বিবাহিত জীবন অনেক বেশি গুরুত্ব রাখে। মধুমিতারও তার সঙ্গে কাজ করতে অস্বস্তি হবে বলে মনে করেন সৌরভ।

তবে একজন পেশাদার অভিনেত্রী হিসেবে প্রাক্তনের সঙ্গে কাজ করতে মধুমিতার কিন্তু কোনও আপত্তি নেই। অভিনেত্রীর কথায়, “ওর প্রতি যে অনুভূতিগুলো ছিল এখন সেটা হারিয়ে গিয়েছে, তাই পেশাদার অভিনেত্রী হিসাবে সৌরভের মতো একজন মারাত্মক ট্যালেন্টেড অভিনেতার সঙ্গে কাজ করতে আমার কোনও অসুবিধা হবে বলে মনে হয় না”। উল্লেখ্য, হালফিলে টলিউডের অপর এক অভিনেতা সৌরভ দাসের (Sourav Das) সঙ্গে নাম জড়িয়েছে মধুমিতার।

এ সম্পর্কে অভিনেত্রীর বক্তব্য কী? তিনি অবশ্য এই গুজব হাওয়াতে উড়িয়ে দিয়ে বললেন, “আমি সিঙ্গল বলে লোকজন যে কারুর নাম আমার সঙ্গে জুড়ে দেয়। আজকাল এইসব ব্যাপার নিয়ে আমি আর বেশি কিছু ভাবি না। সৌরভের সঙ্গে আমার প্রেম নিয়ে সংবাদমাধ্যমে বেকারই এতো লেখালেখি হল।  সত্যি বলছি আমি এমন একজন মানুষের খোঁজ করছি, যে আমাকে মন থেকে ভালোবাসবে, বিশ্বাসী হবে। তবে ইন্ডাস্ট্রির কারুর সঙ্গে আমি প্রেম করব না”।