ফের বাড়লো গ্যাসের দাম, জেনে নিন সিলিন্ডার পিছু নতুন দাম

চলতি মাসে দ্বিতীয়বার বাড়লো রান্নার গ্যাসের দাম। বাজারে সবকিছুর দামই যেন আগুন। বেড়ে চলেছে পেট্রোল ডিজেলের দাম। এমন অবস্থায় আবার রান্নার গ্যাসের দাম বৃদ্ধিতে রীতিমত মাথায় হাত পড়েছে মধ্যবিত্ত সমাজের। দাম বেড়েছে বাড়িতে ব্যবহৃত ভর্তুকিহীন ১৪.২ কেজি সিলিন্ডার এবং বানিজ্যিক কাজে ব্যবহৃত ১৯ কেজি সিলিন্ডার উভয়েরই।

করোনা আবহে দেশের অর্থনৈতিক কাঠামো ভেঙে পড়ায় বিরাট সংখ্যক মানুষ কাজ হারিয়েছেন।অনেক মানুষ দারিদ্র্য সীমার নীচে চলে গিয়েছেন। মানুষের হাতে বর্তমানে টাকার অভাব। এককথায় কোনওভাবে তারা এই কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে লড়ে যাচ্ছেন। এমন ভয়াবহ পরিস্থিতিতে সিলিন্ডারের দাম এত বৃদ্ধি পাওয়ায় সাধারণ মানুষের ক্ষোভ তৈরি হয়েছে মোদী সরকারের ওপর।

কেন একই মাসে দ্বিতীয়বার সিলিন্ডারের দাম বৃদ্ধি? সাধারণত প্রতি মাসের শেষে ডিস্ট্রিবিউটর ডার গ্যাসের দাম জানায় তেল সংস্থাগুলি এবং সেই হিসেবেই আগামী মাসে গ্যাসের দাম ঠিক করা হয়। ডিসেম্বরে কলকাতায় ১৯ কেজি সিলিন্ডারের দাম ৫৫.৫০ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছিল তবে ১৪.২ কেজি গ্যাসের দাম একই রাখা হয়েছিল যা ছিল ৬২০.৫০ টাকা।

কিন্তু এর এক দু দিন পরে আচমকাই ৫০ টাকা বেড়ে ১৪.২ লিটার গ্যাসের দাম গিয়ে দাড়ায় ৬৭০.৫০ টাকায়।কিন্তু সিলিন্ডারের দাম বৃদ্ধি পেলেও বাড়েনি প্রাপ্য ভর্তুকির পরিমাণ। কলকাতায় এই ভর্তুকি মাত্র ১৯.৫৭ টাকা।এই অবস্থায় কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ তৈরি হয়েছে সাধারণ মানুষের।

বাড়িতে ব্যবহৃত ভর্তুকীহীন সিলিন্ডারের দাম বাড়লো আরও ৫০ টাকা। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য ২ সপ্তাহ আগেও এই দাম ৫০ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছিল। অর্থাৎ চলতি মাসে মোট ১০০ টাকা বৃদ্ধি পেল এই সিলিন্ডারের দাম।বর্তমানে ভর্তুকীহীন সিলিন্ডারের দাম গিয়ে দাড়ালো ৭২০.৫০ টাকা।

অন্যদিকে ১৯ কেজির সিলিন্ডারের দাম আজ আরও ৩৬ টাকা বৃদ্ধি পেল। এই সিলিন্ডারের দাম দু দফায় চলতি মাসে মোট ৯১.৫০ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে গিয়ে দাড়িয়েছে ১৩৮৭.৫০ টাকা।এই সিলিন্ডার সাধারণত হোটেল বা রেস্তোরায় ব্যাবহার হয়।অর্থাৎ সেক্ষেত্রে ব্যবসা টিকিয়ে রাখার খরচ আরও বৃদ্ধি পেল।

তৈল সংস্থাগুলোর সূত্রে দাবি করা হয়েছে বিশ্ব বাজারে আচমকা রান্নার গ্যাসের দাম বাড়ার জন্যই দেশেও এই দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। এই প্রসঙ্গে নিয়ে বিরোধী দলের কটাক্ষের শিকার হতে হচ্ছে মোদী সরকারকে। বিরোধীদের প্রশ্ন, এত কম সময়ের ব্যবধানে কোরোনা আবহে তৈরি হওয়া আর্থিক সংকটের মধ্যে কিভাবে দাম বাড়লো কেন্দ্রীয় সরকার?

তারা মনে করছেন এর ফলে দেশের মধ্যবিত্ত ও দরিদ্র্য শ্রেণীর মানুষেরা অথৈ জলে পড়বে। দাম বাড়ানোর সাথে সাথে ভর্তুকির অঙ্ক বাড়ানোর দাবিতে সরব হচ্ছেন বিরোধীরা।গত তিনমাস ধরে ভর্তুকির অঙ্ক বাড়েনি এবং সেই টাকার পরিমাণ সাগরে এক বিন্দু জলের মতন, কটাক্ষ বিরোধীদের।

উচ্চবিত্ত শ্রেণীর মানুষদের ভর্তুকির প্রয়োজনীয়তা নেই বুঝে তা ছাঁটাই করে কম রোজগারের মানুষদের জন্য ভর্তুকি ব্যবস্থা চালু রেখেছে সরকার। কিন্তু সিলিন্ডারের দাম যেভাবে বৃদ্ধি হচ্ছে তাতে সামান্য ভর্তুকিতে বিশেষ লাভ পাচ্ছেন না সাধারণ মানুষ। গত আগস্ট মাস থেকেই দেশ জুড়ে ভর্তুকির সিলিন্ডারের দাম এবং ভর্তুকির অঙ্ক ঘোষণা করা বন্ধ করে দিয়েছে সরকার।সম্প্রতি তেল মন্ত্রক জানায়

চলতি বছরে জুলাই থেকে এখনও পর্যন্ত সিলিন্ডারের দাম ৪৯৪.৩৫ থেকে বেড়ে ৫৯৪ হয়েছে।ফলে এক বছরে ১০০ টাকা কমেছে ভর্তুকির দাম। মধ্যবিত্তদের মনে এখন একটাই প্রশ্ন, ভর্তুকির অঙ্ক কি বাড়ানো হবে নাকি ভর্তুকি দেওয়া এবার সম্পূর্ন বন্ধ করে দেবে কেন্দ্রীয় সরকার?এই চিন্তায় রীতিমত ঘুম উড়েছে সাধারণ মানুষের