‘বাবা যেন তাড়াতাড়ি চলে আসে’, চোখের জলে নিখোঁজ জওয়ানের ছোট্ট মেয়ের আকুতি

গত শনিবার ছত্তিশগড়ের সুকমা বিজাপুর সীমানায় সিআরপিএফের সাথে মাওবাদীদের সংঘর্ষ চলাকালীনই মাওবাদীদের দ্বারা বন্দি হয়ে যান কমান্ডো রাকেশ্বর সিংহ মনহাস। এছাড়াও জঙ্গলে সিআরপিএফ ও মাওবাদীদের গুলির লড়াই চলাকালীন জ‌ওয়ানদের মধ্যে ২২ জন শহীদ হন ও ৩২ জন মারাত্মকভাবে জখম হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন।

এরপর দুজন সাংবাদিকের কাছে রহস্যজনক ফোন আসে এবং সেই ফোনে জানানো হয় যে গুলির লড়াই চলার পর মাওবাদীরা এক সিআরপিএফ জ‌ওয়ানকে  বন্দি করে রেখেছেন। সেই খবর জওয়ানের স্ত্রী জানতে পেরে তিনি প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের কাছে স্বামীকে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য চিঠি লিখে একটি আর্জি করেন।

বাবাকে ফিরে পেতে সিআরপিএফ জওয়ানের মেয়ে শ্রাঘবী ও কান্নাকাটি শুরু করেছে। সাংবাদিকের ক্যামেরায় সেই মুহূর্তের দৃশ্য ধরা পড়েছে, যেখানে দেখা যাচ্ছে জলভরা চোখে  শ্রাঘবী বলছে, ‘বাবা যেন তাড়াতাড়ি ফিরে আসে।’ কোথায় কোন অবস্থার মধ্যে রয়েছেন কমান্ডো রাকেশ্বর সিংহ তা জানতে মরিয়া হয়ে উঠেছে কমান্ডোর পরিবার।

তবে বিজাপুর প্রেস ক্লাবের প্রেসিডেন্ট গণেশ মিশ্রর কথা অনুসারে অপর একটি ফোনে মাওবাদীরা জানিয়েছে, তারা দু-তিন দিনের মধ্যেই জ‌ওয়ানকে ছেড়ে দেবেন। অন্য এক সাংবাদিক রাজা সিংহ রাঠোরকে মাওনেতা হিদমা ফোন করে জানান, “নিখোঁজ জ‌ওয়ান আমার হেফাজতে রয়েছে। আমি জ‌ওয়ানের ক্ষতি করব না এবং তিনি নিরাপদে আছেন। শীঘ্রই তার ছবি পাঠানো হবে।”জ‌ওয়ানকে সুস্থ-স্বাভাবিকভাবে ফিরে পাওয়ার আশায় রয়েছেন তার পরিবার এবং সমগ্র দেশ ও তাকিয়ে আছে সেই দিকে।