করোনার ধাক্কায় বিশ্বের কোন দেশ কত টাকা খরচ করল, দেখুন তালিকা

কোরোনা ভাইরাসের থাবায় জর্জরিত সমগ্র বিশ্ব। জীবনযাত্রার পাশাপাশি বিশ্বের বড় বড় দেশগুলির অর্থনীতি ভেঙে পড়ছে দিন দিন। বাড়ছে বেকারত্বের সংখ্যা। শুরু হয়ে গেছে বিভিন্ন সংস্থায় কর্মী ছাঁটাই। এমত অবস্থায় বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধানরা দেশের অর্থনীতির হাল ধরতে বিভিন্ন আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করছেন।

মঙ্গলবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দিয়ে একটি বড় আর্থিক প্যাকেজের (২০ লক্ষ কোটি টাকা বা ২৬ হাজার ৫৭০ কোটি ডলারের) ঘোষণা করেন। এই প্যাকেজটি ভারতের গ্রস ডোমেস্টিক প্রোডাক্ট (জিডিপি)-এর একটা বড় অংশ(১০ শতাংশ)। তবে শুধু ভারতই নয়, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করা হয়েছে। এক নজরে দেখে নাওয়া যাক কোন দেশের আর্থিক প্যাকেজ কিরকম।

১. আমেরিকা :-  পৃথিবীতে যে দেশগুলি কোরোনা সংক্রমনে সবথেকে বেশী ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাদের তালিকায় সবার প্রথমে আছে আমেরিকার নাম। প্রায় ১৪ লক্ষ মানুষ এই ভাইরাস সংক্রমনের শিকার হয়েছেন এবং প্রায় ৮৩ হাজার মানুষ এই ভাইরাস সংক্রমনে নিজের প্রাণ হারিয়েছেন।

দেশের শ্রম দফতরের রিপোর্ট থেকে জানা যাচ্ছে, শুধুমাত্র এপ্রিল মাসেই ২ কোটি ৫ লক্ষ মানুষ কাজ হরিয়েছেন। এমন অবস্থায় দেশের হাল ফেরাতে ট্রাম্প সরকার ২ লক্ষ ৬৫ হাজার কোটি ডলারের একটি বড় আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন। এই অর্থ আমেরিকার জিডিপির ১৩ শতাংশ।

আরও পড়ুন :- করোনা সংক্রমণে চিনকে ছাপিয়ে গেল ভারত, প্রকাশ্যে এল পরিসংখ্যান

২. জাপান :- এই দেশে কোরোনা সংক্রমন এখনও ব্যাপক হারে হয়নি। সমগ্র দেশের ১৬ হাজার মানুষ কোরোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। কিন্তু বিশ্ব অর্থনীতির মন্দার প্রভাব সেখানেও ভালোভাবে লক্ষ করা গেছে। এই অবস্থায় জাপান দেশের অর্থনীতির হাল ফেরাতে দেশের জিডিপির ২১.১ শতাংশ অর্থের আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করেছে।

৩. জার্মানি :- এই দেশেই ভালোভাবেই থাবা বসিয়েছে করোনা সংক্রমন। দেশের ১ লক্ষ ৭৩ হাজার মানুষ ইতিমধ্যেই এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন এবং মৃত প্রায় ৮ হাজার। স্বাভাবিক ভাবেই ভেঙে পড়েছে দেশের অর্থনীতি। এই অর্থনীতির হাল ধরতে জার্মানির জিডিপির ১০.৭ শতাংশ অর্থের আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করেছে জার্মানির সরকার।

৪. ফ্রান্স :- ফ্রান্সেও প্রতিনিয়ত বেড়ে চলেছে কোরোনা আক্রান্ত ব্যক্তিদের সংখ্যা। ইতিমধ্যেই প্রায় ২ লক্ষ (১ লক্ষ ৭৮ হাজার) মানুষের শরীরে এই সংক্রমন ছড়িয়ে পড়েছে এবং মৃত্যু হয়েছে ২৬ হাজারেরও বেশী মানুষের। সম্পূর্ণ দেশে চলছে লক ডাউন। এমন অবস্থায় ধ্বসে যাওয়া অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে ফ্রান্সের সরকার জিডিপির ৯.৩ শতাংশ অর্থের আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করেছে।

আরও পড়ুন :- কবে বিদায় নেবে করোনা জানিয়ে দিল করোনার ভবিষ্যৎবাণী করা কিশোর

৫. ব্রিটেন :- ব্রিটেনেও থাবা বসিয়েছে কোরোনা ভাইরাস সংক্রমন এবং মৃত্যুও হয় অনেকের। ব্রিটেনের অর্থনীতির হাল ফেরাতে ব্রিটেনের জিডিপির ৫ শতাংশ অর্থের আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করেছে ব্রিটেন সরকার।

৬. ইতালি :- কোরোনা ভাইরাস সংক্রমণে সবথেকে বেশী ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলির মধ্যে একটি হলো ইতালি। স্বাভাবিক ভাবেই দেশের সমস্ত কর্মকাণ্ড স্থগিত থাকার ফলে ধ্বসে গেছে দেশের অর্থনীতি। অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে ১২ হাজার কোটি ডলারের আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করেছে সরকার যা সেই দেশের জিডিপির ৫.৭ শতাংশ।

৭. দক্ষিণ কোরিয়া :- এই দেশে সংক্রমণের হার বা ক্ষতির হার খুব বেশী না হলেও দেশের অর্থনীতির যাতে ক্ষতি কমানো যায় সেই উদ্দেশ্যে এই দেশের সরকার দেশের জিডিপির ২.২ শতাংশ অর্থের প্যাকেজ ঘোষণা করেছে।

আরও পড়ুন :- ভারতে কত দিনের লকডাউন জরুরি, কি বলছেন বিশেষজ্ঞরা

৮. স্পেন :- কোরোনা সংক্রমনে স্পেনের নাম বারবারই শিরোনামে উঠে এসেছে। স্পেনে এই ভাইরাসে বহু লোক আক্রান্ত এবং অনেক মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে থমকে গেছে অর্থনীতি। সেই কারণেই স্পেনের সরকার সাড়ে ১০ হাজার কোটি ডলারের একটি আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করে যা সেই দেশের জিডিপির ৭.৩ শতাংশ।

৯. সুইডেন :- প্রায় সাড়ে ছয় হাজার কোটি ডলারের আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করেছে সুইডেন। সুইডেনে কোরোনা পরিস্থিতির বাড়াবাড়ি না হলেও পরিস্থিতি সামলাতে দেশের জিডিপির ১২ শতাংশ খরচের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

আরও পড়ুন :- লকডাউন তুলে নিলে ভারতে মৃতের সংখ্যা কোথায় পৌঁছতে পারে

১০. চিন :- এটি সেই দেশ যেখানে কোরোনা ভাইরাস সংক্রমনের সূত্রপাত ঘটে এবং বহু মানুষ সংক্রমিত হয়। মৃত্যুও ঘটে অনেকের। এই অবস্থায় অর্থনীতি সামলাতে দেশের জিডিপির ৩.৮ শতাংশ অর্থাৎ প্রায় পাঁচ হাজার কোটি ডলার খরচ করেছে চিন সরকার।