হিজড়েরাও বিয়ে করে কিন্তু তাদের বিয়ের পদ্ধতি কেউই জানে না

হিজড়েদেরও বিয়ে হয় কিন্তু তাদের বিয়ের পদ্ধতি আপনাকে চমকে দেবে

সাধ-আহ্লাদ সবই আছে। ঘরবাঁধার স্বপ্নও দেখেন তারা। হিজড়েদের (Hijra) নিজস্ব সামাজিক জীবন আছে। তাঁরাও বিয়ে করেন। হ্যাঁ, তবে সেটা মাত্র এক রাতের জন্য। শারীরিকভাবে মিলিত হলেও সন্তানের মুখ দেখতে পান না তারা। তবু ঘর পাতেন। একসঙ্গে সংসার করেন। কিন্তু তাদের সংসার, ঘরবাঁধা ভিন্ন রকমের।

প্রত্যেক হিজড়াই (transgender) একজন পুরুষ সঙ্গী খোঁজেন। পুরুষ সঙ্গীরা তাদের বন্ধু হিসেবে পরিচিত। হিজড়াদের কাছে এই বন্ধু ‘পারিক’ নামে পরিচিত। হিজড়েদের আরাধ্য দেবতা ইরাভান (Iravan)। এক রাতের জন্য তাঁর সঙ্গেই বিয়ে হয় হিজড়েদের (Kinnar)।

মহাভারতের (Mahabharata) ছোট্ট চরিত্র ইরাভান (Iravan) বা ইরাবত (Iravat)। মধ্য পাণ্ডব অর্জুন এবঙ্গ নাগকন্যা উলুপীর সন্তান (Naga princess Ulupi)। তাহলে ইরাভান হিজড়েদের দেবতা হলেন কীভাবে?

মহাভারতের (Mahabharata) ক্রুক্ষেত্রের যুদ্ধে কৌরব সেনার বিরুদ্ধে পাণ্ডবদের জয় সুনিশ্চিত করতে আত্মত্যাগ করেন ইরাভান। তার আগে, একরাতের জন্য সুন্দরী নারীর কন্ঠলগ্না হতে চান তিনি।

কৃষ্ণ নিজেকে মোহিনী রূপে পরিবর্তণ করে একরাত কাটান ইরাভানের সঙ্গে। পরদিন ইরাভান চলে গেলে শাঁখা-সিঁদুর মুছে বিধবার বেশ নেন মোহিনী।

হিজরাদের বিয়ে হয় কীভাবে?

প্রতি বসন্তে ভারত এবং প্রতিবেশী দেশের হিজড়েরা সমবেত হন দক্ষিণ ভারতের কোভাগাম গ্রামে। তামিল লুনার ক্যালেন্ডার মতে নববর্ষের দিন ওই গ্রামের কোথাণ্ডভার মন্দিরে হয় তাঁদের বার্ষিক অনুষ্ঠান।

হিজড়াদের বিয়ের পদ্ধতি

হিজড়ারা মোহিনী ভাবে মন্দিরের পুরোহিতকে ইরাভান ভেবে বিয়ে করেন। পরেরদিন মহাভারতের গল্প অনুযায়ী সবাই নাচে অংশ নেয় তারপর নিজেদের চুড়ি ভেঙে ইরাভানের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেন।