বাংলা সিরিয়ালের ইতিহাসে এই প্রথম, যুগান্তর ঘটালেন লেখিকা লীনা গাঙ্গুলী

বাংলা টেলিভিশনের ইতিহাসে এই প্রথম, নজির গড়লেন লীনা গাঙ্গুলী

শুধু রূপান্তরকামী (Transgender) চরিত্রেই কেন রূপান্তরকামীদের নেওয়া হবে? মহিলা চরিত্রে কেন অভিনয় করতে পারবেন না তারা? রূপান্তরকামীদের নিয়ে যদি গল্প লেখা না হয় তাহলে কি তারা সুযোগ পাবেন না? ইন্ডাস্ট্রির কাছে প্রশ্ন তুলেছিলেন সুজি ভৌমিক (Suji Bhowmik)। সেই প্রশ্নের উত্তর এবার দিলেন বাংলা সিরিয়ালের জনপ্রিয় লেখিকা লীনা গাঙ্গুলী (Leena Ganguly)। তার সিরিয়ালে মহিলা চরিত্রে ঠাঁই পেলেন একজন রূপান্তরকামী।

একটা সময় ছিল যখন সমাজে, কাজের জগতে তো দূরের কথা, রূপান্তরকামীরা তাদের বাড়িতেই ঠাঁই পেতেন না। তবে এখন সমাজের মানসিকতা তাদের জন্য একটু একটু করে বদলাচ্ছে। এই বদলে গতি আনবে লীনা গাঙ্গুলীর সিদ্ধান্ত। জি বাংলার ‘ফিরকি’ ধারাবাহিকে প্রথমবার রূপান্তরকামীদের নিয়ে গল্প রচনা হয়েছিল। সেখানে অভিনয় করেছিলেন এমন অনেক রূপান্তরকামী শিল্পীরা।

এই ধারাবাহিকেরই অন্যতম সদস্য ছিলেন সুজি ভৌমিক। কিন্তু ‘ফিরকি’র পর তার হাতে আর কাজের সুযোগ আসেনি। এবার লীনা গাঙ্গুলী হলেন তার সহায়। স্টার জলসার ‘একাদোক্কা’ ধারাবাহিকে এক মহিলা নার্সের চরিত্রে অভিনয় করবেন সুজি। এই সুযোগ পেয়ে দারুণ খুশি অভিনেত্রী সুজি। আনন্দবাজার অনলাইনের কাছে তিনি জানালেন তার মনের কথা।

সুজি আনন্দবাজারকে বলেছেন, “মনে হচ্ছে আমার এত দিনের লড়াই সার্থক। শুধু রূপান্তরকামীর চরিত্র ছাড়া আর সুযোগ পাব না, সেই ধারণা যে ভাঙতে পেরেছি, এটাতেই আমি খুশি।” আপাতত তিনি আসছেন পোখরাজ এবং রাধিকার জীবনের ঝড় তুলতে। তবে এখানেই থেমে থাকলে চলবে না। পরবর্তী দিনেও তিনি এরকমই আরও অনেক কাজের সুযোগ পেতে চান।

অন্যদিকে লেখিকা লীনা গাঙ্গুলী আনন্দবাজারকে বলেছেন, “ও নিজেও এমনই মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করতে চেয়েছিল। সুজির অভিনয় দেখে আমার ভালও লাগে। এখানে কারও লিঙ্গ দেখে কাজের সুযোগ দেওয়া হয় না, এখানে প্রতিভা থাকলে কাজ মেলে।”