‘মহিলা আমলার শাস্তি হোক’, তোপ দাগলেন নবান্ন কর্মীর স্ত্রী, ফুঁসছে বাংলা

‘মহিলা আমলার শাস্তি হোক’, তোপ দাগলেন নবান্ন কর্মীর স্ত্রী, ফুঁসছে বাংলা

পুরো দেশে বন্ধ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মানুষ আতঙ্কিত। বিশ্ব মহামারী কোরোনা ভাইরাসের প্রকোপ থেকে বাঁচার জন্য মানুষ চেষ্টা করছে যারপরনাই। এরকম অবস্থাতে প্রধান অস্ত্র মানুষের সতর্কতা এবং দায়বদ্ধতা। এরকম অবস্থায় নবান্নে কর্মরত মহিলার দায়িত্ব জ্ঞানহিনতা রীতিমত বিভীষিকা তৈরি করেছে নবান্নের অভ্যন্তরে।

লন্ডন ফেরত সেই ছেলের মা কাজ করেন নবান্নের হোম ডিপার্টমেন্টে এবং সেখানেই কর্মরত এক কর্মচারীর স্ত্রী এর ফেসবুক পোস্ট মানুষের সামনে তুলে ধরেছে নবান্ন কর্মী এবং তাদের পরিবার পরিজনদের আতঙ্ক। এই পোস্টের মধ্যে দিয়ে সোশ্যাল মিডিয়া নড়েচড়ে বসেছে।

নবান্নে স্বরাষ্ট্র দফতরে কাজ করা ইন্দ্রনীল বাগচীর স্ত্রী কোয়েলা বাগচি সেন গুপ্ত নিজের ফেসবুক পোস্টে কালকে লেখেন “লন্ডন ফেরত রুগীর আমলা মা এবং আমার হাসব্যান্ড ইন্দ্রনীল বাগচী একই ডিপার্টমেন্ট এর চাকুরে। গতকাল ওই মহিলা রাইটার্স এ বসে মিটিং করেছেন। আজ পুরো অফিস ডিসইনফেকটেড করা হচ্ছে। গত পরশু ইন্দ্র লাইব্রেরিতেও যান, সেখানে এক লাইব্রেরিয়ান এর সাথে যোগাযোগ হয়। আর অফিস যাওয়া মাত্র বয়স ও ডায়বেটিস থাকায় সহকর্মীরা সাবধানতার কথা ভেবে বাড়ি চলে আসতে বলেন। কিন্তু ইতিমধ্যেই কোনো বিপদ ঘটে গেল কি না জানিনা। এখন আইডি হাসপাতালে নিয়ে যাচ্ছি ইন্দ্রনীল কে। এই মহিলার শাস্তি হোক, এই আশা করি।”

“নবান্নের আমলা ও করোনা আক্রান্ত ছেলের পরিচয় জানাক মমতা, মানুষ সাবধান হবে।”

এই পোস্টে ইতিমধ্যেই হাজার হাজার মানুষের লাইক এবং কমেন্ট পড়েছে। তারা সকলেই সহমর্মিতা দেখিয়েছেন তার সাথে। সেই মহিলা উচ্চ পদস্থ আমলার নির্বুদ্ধিতার কথা তিনি প্রকাশ করেছেন নিজের ফেসবুক পোস্টে।

অনেকের মতে উচ্চ পদস্থ কর্মচারীর নির্বুদ্ধিতা নিয়ে প্রকাশ্যে এই পোস্টে সমস্যায় পড়বেন তারা, তার ওপর ওই মহিলা স্বামীর সিনিয়র। কিন্তু এই পোস্টের মাধ্যমে তিনি তার স্বামীর প্রতি চিন্তা কে তুলে ধরেছেন ফলে বর্তমানে নবান্ন কর্মীদের অবস্থা ফুটে উঠেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় তাদের শাস্তির দাবিতে মুখর নেটিজেন রা।