দুর্গাপুজোয় মুখার্জী বাড়িতে সাহেবের ভাঙ্গা বাংলা শুনে হেসে গড়াগড়ি খাচ্ছে নেটিজেনরা

বাংলাতে উৎসবের মরশুম শেষ। তবে বাংলা ধারাবাহিকে অবশ্য এখনও পুজোর মরশুম কাটেনি। দুর্গাপূজা চলছে খড়কুটোর (Khorkuto) মুখার্জি বাড়িতেও। মুখার্জি বাড়িতে দুর্গা প্রতিমা এনে পাড়ার সকলকে সঙ্গে নিয়ে মহা ধুমধাম করে দূর্গা পূজার আয়োজন করা হয়েছে। এই দুর্গোৎসবে মুখার্জি বাড়ির বিশেষ অতিথি হিসেবে এলেন সৌজন্যের অতিথি সাহেব প্রফেসর।

সৌজন্যের এই বিশেষ অতিথি সুদূর বিদেশ থেকে এসেছেন। তবে ভারতীয় সংস্কৃতি, ঐতিহ্য, অনুষ্ঠান, দুর্গোৎসব নিয়ে তার আগ্রহ বাঙালির তুলনায় কিছু কম নয়। বাঙালি সংস্কৃতি এবং পুজো নিয়ে রিসার্চ করতেই ভারতে এসেছেন তিনি। সৌজন্যের বাড়ির দুর্গা পুজোতে এসে তিনি দুর্গোৎসব নিয়ে বেশ উৎসাহ প্রকাশ করেন।

তবে তার সঙ্গে মুখার্জি পরিবারের সদস্যদের কথোপকথন শুনে দর্শকের পেটে রীতিমতো খিল লেগে যাওয়ার জোগাড় হয়েছে! বাড়ির সকলের সঙ্গে ভাঙ্গা ভাঙ্গা বাংলাতে কথা বলছিলেন ওই সাহেব। তাকে যখন জ্যাঠাই বসতে বলেন তখন তিনি বলে ওঠেন, ‘আমি বসবে না, আমি নাচবে’!

শুধু তাই নয়, তিনি এরপর ঢাকের তালে কোমর দোলাতেও চাইলেন! তিনি জানতে চান ঢাক কোথায়? এরপর ঢাক আনা হলে তিনি ঢাক বাজানোর সঙ্গে নাচতে চান। তবে একা নয়, সাহেবের ইচ্ছা তিনি সকলের সঙ্গে নাচবেন। সেইমতো পটকাকে নিজের দলে টানতে চাইলেন তিনি। এদিকে সৌজন্যে আবার মজা করে পটকার ‘ভারী চেহারা’ নিয়ে কটাক্ষ করে বসে। ব্যাস, পটকাও রেগে আগুন।

এদিকে সাহেব নাচের জন্য তৈরি। তিনি নাছোড়বান্দা, বাড়ির কাউকে তার সঙ্গে নাচতেই হবে। কিন্তু সাহেবের সঙ্গে নাচের সাহস হচ্ছে না কারোর। এদিকে সুযোগ বুঝে গুনগুনের তিন্নি দিদিও হাজির মুখার্জি বাড়িতে। সে সাহেবের সঙ্গে নাচতে প্রস্তুত। কিন্তু পটকা, ঋজু, রুপাঞ্জনরা তা হতে দিতে চায় না। কোনও বাইরের মেয়ে মুখার্জি বাড়িতে সাহেবকে নাচে সঙ্গ দেবেই বা কেন? তাহলে উপায়?

উপায় একমাত্র গুনগুন। সৌজন্যের বিশেষ অতিথির আগমনের খবর পেয়ে সৌজন্যের আবদারে শাড়ি পরে আসরে এসে উপস্থিত গুনগুন। ব্যাস, সাহেবের সঙ্গে এবার নেচে আসর মাতাবে গুনগুন। ধারাবাহিকের আসন্ন এপিসোডে এই দৃশ্য দেখার জন্য মুখিয়ে আছেন দর্শক।