হানিমুনে করিশ্মাকে নিলামে তুলেছিলেন স্বামী, বন্ধুদের সঙ্গে শুতে বাধ্য করা হয় অভিনেত্রীকে

হানিমুনে বন্ধুর সঙ্গে শুতে বাধ্য করা হয় করিশ্মাকে, দেওয়া হয় যৌনতার প্রস্তাব

৯০ এর দশকে বলিউডে (Bollywood) করিশ্মা কাপুর (Karishma Kapoor) ছিলেন সেরার সেরা অভিনেত্রী। ওই সময় জনপ্রিয়তার নিরিখে করিশ্মাকে টেক্কা দেওয়ার মত খুব কম জনই ছিলেন ইন্ডাস্ট্রিতে। তখন তার কেরিয়ার ছিল তুঙ্গে। তার অভিনীত সিনেমা মানেই তা হত সুপারহিট। অভিনয়গুণে তিনি বহু মানুষের থেকে ভালবাসা, খ্যাতি, নাম-যশ সবই পেয়েছেন। পাননি শুধু দাম্পত্য সুখ এবং শান্তি।

অভিষেক বচ্চনকে ভালবাসতেন করিশ্মা। তাদের বাগদানও হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু শেষ মুহূর্তে ২ পরিবারের মধ্যে মনোমালিন্যের জেরে সেই সম্পর্কটা ভেঙে যায়। এরপর করিশ্মা বিয়ে করেন দিল্লির ব্যবসায়ী সঞ্জয় কাপুরকে। ২০০৩ সালে মহা ধুমধাম করে তাদের বিয়েটা হয়েছিল। কিন্তু বিয়ের পর একদিনের জন্যেও শ্বশুরবাড়িতে শান্তি পাননি করিশ্মা। সঞ্জয়ের থেকে প্রতিনিয়ত নিগ্রহ এবং নির্যাতন সহ্য করতে হয়েছে তাকে।

Karisma Kapoor shares the reasons behind her separation with Sanjay Kapur

তাও সবকিছু সয়ে ১০ বছর দাম্পত্য টিকিয়ে রেখেছিলেন করিশ্মা। এরই মধ্যে তাদের দুই সন্তানেরও জন্ম হয়। তাদের নাম সামাইরা এবং কিয়ান। কিন্তু ২০১৩ সালে আর সহ্য করতে না পেরে সঞ্জয়ের বিরুদ্ধে বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা করেন তিনি। তখন তিনি তার স্বামীর সম্পর্কে বেশ কিছু গুরুতর অভিযোগ আনেন যা জানলে শিউরে উঠতে হয়। বলিউডের এই দাপুটে অভিনেত্রী ব্যক্তিগত জীবনে শ্বশুরবাড়িতে বিশেষ করে স্বামীর কাছে চরম অত্যাচার সহ্য করেছিলেন।

করিশ্মা জানান বিয়ের পরপরই নাকি সঞ্জয় তার উপর অত্যাচার করতে শুরু করেন। এমনকি মধুচন্দ্রিমাতে গিয়েই করিশ্মাকে নিজের বন্ধুদের কাছে নিলামে তুলেছিলেন সঞ্জয়। তার এক বন্ধুর সঙ্গে সহবাসের জন্য জোর করা হয়েছিল তাকে। এমনকি বন্ধুর সঙ্গে স্ত্রীর সহবাসের দাম নিয়ে নাকি দর কষাকষিও করেছিলেন সঞ্জয়। স্বামীর কুকীর্তি মেনে নিতে পারেননি করিশ্মা। তিনি প্রতিবাদ করলে উল্টে তাকে মারধর করা হয়।

স্বামীর সঙ্গে শাশুড়িও তার উপর অত্যাচার চালাতেন বলে অভিযোগ করেন অভিনেত্রী। করিশ্মাকে বিয়ে করেও সঞ্জয় তার প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে লিভ ইন সম্পর্ক চালিয়ে যাচ্ছিলেন। বিষয়টি জেনে করিশ্মা প্রতিবাদ করলে সঞ্জয় এবং তার মা দুজনে তার গায়ে হাত তুলেছিলেন। এমনকি অন্তঃসত্ত্বা অবস্থাতেও করিশ্মার গায়ে হাত তুলতে বাঁধত না তার স্বামী এবং শাশুড়ির।

জামাইয়ের কুকীর্তির কথা জানিয়ে রণধীর কাপুর সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, ‘‘উনি একটা তৃতীয় শ্রেণির মানুষ। আমি কোনও দিন ওঁর সঙ্গে মেয়ের বিয়ে দিতে চাইনি। অন্য মহিলাদের সঙ্গে থাকতেন। গোটা দিল্লি জানে উনি কেমন। আর কোনও কথা বলতে চাই না।’’ করিশ্মার সঙ্গে ডিভোর্সের পরেও সঞ্জয় কাপুর আরও একবার বিয়ে করেন। তবে করিশ্মা একা থেকেই দুই সন্তানকে মানুষ করার সিদ্ধান্ত নেন।