দেশের সবথেকে বড় মলের মালিক এখন Jio, ঘুরে দেখুন অন্দরমহল

দেশের সবথেকে বড় মলের মালিক এখন রিলায়েন্স জিও, ঘুরে দেখুন কেমন সাজানো হয়েছে অন্দরমহল

Jio World Plaza : চলতি বছরের ৩১শে অক্টোবর মুম্বাইতে চালু হয়েছে দেশের সবচেয়ে ধনী শিল্পপতি মুকেশ আম্বানি (Mukesh Ambani) -র সংস্থা রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ (Reliance Industries)মল ‘জিও ওয়ার্ল্ড প্লাজা’ (Jio World Plaza)। এটি দেশের প্রথম বৃহত্তম বিলাসবহুল মল। এই বিলাসবহুল মলটি ১লা নভেম্বর থেকে সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করা হয়েছে। জিও ওয়ার্ল্ড প্লাজার উদ্বোধনে চোখ ধাঁধানো অনুষ্ঠানের আয়োজন করে আম্বানিরা।

বলিউডের তাবড় তারকারা সেখানে উপস্থিত ছিলেন। ভারতের অন্যতম নামী এই শিল্পপতির জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দেখা গেছে মাধুরী দিক্ষীত থেকে আলিয়া ভাট প্রমুখ। লাইমলাইট কেড়ে নেন দীপিকা-রণভীর জুটি। বিশ্বের সেরা ব্র্যান্ডগুলিকে ভারতে নিয়ে আসা এবং সেরা ভারতীয় ব্র্যান্ডগুলির দক্ষতা এবং কারিগরি প্রদর্শন করাও এর অন্যতম উদ্দেশ্য।

Jio World Plaza

চোখ ধাঁধানো অন্দরসজ্জার এই শপিং মলে মিলবে নামী-দামি ব্র্যান্ডের সামগ্রী। এই জিও ওলার্ল্ড প্লাজাতে এমন অনেক ব্র্রান্ডের সামগ্রী পাওয়া যাবে, যা এতদিন পর্যন্ত কেবলমাত্র অনলাইনেই পাওয়া যেত। ভারতের বাইরে যে সমস্ত নামী দামি ব্র্রান্ড রয়েছে, যেগুলি এতদিন ভারতীয় বাজারে প্রবেশ করতে পারেনি, তবে সেগুলিও এবার দেখা যাবে এই শপিং মলে। গ্রাহকরা রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের এই সবচেয়ে বড় লাক্সারি শপিং মলে তাবড় তাবড় ব্র্রান্ডের জিনিস পাবেন এক ছাদের তলায়।

জিও ওয়ার্ল্ড প্লাজা মুম্বাইয়ের বান্দ্রা কুরলা কমপ্লেক্সে তৈরি করা হয়েছে। এই মলটি মোট ৭ লক্ষ ৫০ হাজার বর্গফুট জায়গা জুড়ে বিস্তৃত। চার তলা এই শপিং মলে রয়েছে মোট ৬৬টি বিলাসবহুল ব্র্যান্ড। এটি মূলত বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে থাকা বিভিন্ন ব্র্যান্ড এবং দেশীয় বিভিন্ন ব্র্যান্ডের একত্রীকরণ করার জন্য রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের ডিরেক্টর ইশা আম্বানি যে পরিকল্পনা গ্রহণ করেছিলেন তা বাস্তবায়িত করেছেন এই মলটি তৈরির মাধ্যমে।

Jio World Plaza

পদ্মফুল এবং প্রাকৃতিক অন্যান্য উপাদান দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়ে এই মলটি তৈরি করা হয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক আর্কিটেকচার, ডিজাইন ফার্ম টিভিএস এবং রিলায়েন্সের সহযোগিতায় এই মলটি তৈরি করা হয়েছে। এখানে সুন্দর কলাম, মার্বেল দিয়ে ঢাকা মেঝে, উঁচু খিলান যুক্ত ছাদ এবং উন্নতমানের আলোর ব্যবস্থা রয়েছে। মলে কেনাকাটা থেকে শুরু করে মাল্টিপ্লেক্স থিয়েটার এবং দুর্দান্ত রেস্তোরাঁ সবই রয়েছে।

আরও পড়ুন : কত টাকা বেতন পায় মুকেশ আম্বানি ও নীতা আম্বানি? শুনলে বিশ্বাস হবে না আপনার

আরও পড়ুন : মুকেশ আম্বানির থেকেও ধনী ছিলেন এই ব্যক্তি, আজ স্ত্রীর গয়না বেচে চালাচ্ছেন সংসার

প্লাজার কাঠামো পদ্ম ফুল এবং প্রকৃতির অন্যান্য উপাদান দ্বারা অনুপ্রাণিত। এই প্লাজায় পাওয়া যাবে অন্ততপক্ষে ৬৬ রকমের বিলাসবহুল ব্র্যান্ড, যার মধ্যে কয়েকটি হলো স্যামসাং এক্সপেরিয়েন্স সেন্টার, জর্জিও আরমানি ক্যাফে, জর্জিও আরমানি, ডিওর, ওয়াইএসএল, বুলগারি, পটারি বার্ন কিডস, ব্যালেন্সিয়াগা, ইএলএন্ডএন ক্যাফে, রিমোওয়া, মুম্বই ভ্যালেন্টিনো, টোরি বুর্চ, ওয়াইএসএল, ভার্সেস, টিফানি, লাডুরি, পোটারি বার্ন, লুই ভিটন, গুচি, কার্টিয়ের, ব্যালি। এছাড়াও জিও ওয়ার্ল্ড প্লাজায় পাওয়া যাবে মণীশ মালহোত্রা, আবু জানি-সন্দীপ খোসলা, রাহুল মিশ্র, ফাল্গুনী অ্যান্ড শ্যেন পিকক এবং ঋতু কুমারের ডিজাইন করা পোশাক এবং অন্যান্য সামগ্রী। এখানে ব্যক্তিগত কেনাকাটার পাশাপাশি প্লাজায় আসা মানুষেরা মাল্টিপ্লেক্স থিয়েটার, গুরমেট ফুড এম্পোরিয়ামের মতো পরিষেবা পাওয়া যাবে।

আরও পড়ুন : দুস্থ-মেধাবীদের বার্ষিক ২ লক্ষ টাকা দেবে মুকেশ আম্বানি, রইল আবেদন পদ্ধতি