হাতে নেই কাজ, টাকার জন্য ‘ভুয়ো ওষুধের’ বিজ্ঞাপন দিচ্ছেন ইন্দ্রানী হালদার

'লোক ঠকিয়ে' 'ভুয়ো ওষুধের' বিজ্ঞাপন! সোশ্যাল মিডিয়ায় চরম অপমানিত ইন্দ্রানী হালদার

অভিনয় জগৎ বড়ই অনিশ্চিত। সব সময় ধারাবাহিকভাবে হাতে কাজ থাকবেই তেমন নিশ্চয়তা নেই। সিনে দুনিয়ার তারকাদের উপার্জনের একটা বড় অংশ জুড়ে থাকে বিজ্ঞাপন (Advertisement)। বিভিন্ন কোম্পানির ব্র্যান্ডের মুখ হিসেবে মোটা অঙ্কের অর্থ উপার্জন করেন তারা। তারকাদের উপর বিশ্বাস করেই সেই সামগ্রী কেনেন ভক্তরা। এতে লাভ হবে না ক্ষতি, সেই দায়ভার তারকাদের থাকে না।

ইতিপূর্বে বহু তারকাই বিনা বিবেচনায় উল্টোপাল্টা সামগ্রীর বিজ্ঞাপনী প্রচারের মুখ হয়ে অপদস্থ হয়েছেন। তালিকায় রয়েছেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ও যিনি হনুমান চল্লিশা যন্ত্রের বিজ্ঞাপন করে সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন। এবার নেটিজেনদের কটাক্ষের শিকার ইন্দ্রানী হালদার (Indrani Halder)। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আরও গুরুতর। কারণ তিনি মেডিকেল সার্টিফিকেট ছাড়াই এক সামগ্রীর বিজ্ঞাপনের মুখ হয়েছেন!

সন্ধি অমৃত নামের একটি ব্যথার ওষুধের বিজ্ঞাপন করে ট্রোলের সম্মুখীন হয়েছেন ইন্দ্রানী। সংস্থার দাবি এটি হাঁটু এবং জয়েন্টের ব্যথার জন্য উপকারী। তবে এমন ওষুধের কোনো মেডিকেল সার্টিফিকেট থাকে না যা এটিকে রোগীদের ব্যবহারের জন্য ছাড়পত্র দেয়। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া এমন ওষুধ ব্যবহার করা উচিত নয়। কারণ এতে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থাকতে পারে। ইন্দ্রানী তেমনই একটি ওষুধের বিজ্ঞাপনের মুখ হলেন।

ইন্দ্রানীর এমন কাজের জন্য তার উপর বেজায় ক্ষুব্ধ হয়েছেন নেটিজেনরা। ইন্দ্রানী হালদার একজন সম্ভ্রান্ত অভিনেত্রী। তার বেশ নামডাক রয়েছে। তিনি এমন সামগ্রীর প্রচার করলে তা গ্রাহকদের উপর খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে। বিশেষত এমন ওষুধ ব্যবহার করলে গ্রাহকের যে কোনও ক্ষতি হবে না সেই দায় ইন্দ্রানী নেবেন কি? প্রশ্ন উঠছে নেটিজেনদের মধ্যে। স্রেফ টাকার লোভে পড়েই তারকারা এমন অবিবেচকের মত কাজ করে ফেলেন! অভিযোগ নেটিজেনদের। যার উত্তর জানা নেই কারোরই।

উল্লেখ্য, ‘শ্রীময়ী’ ধারাবাহিকের পর আপাতত কিছু দিনের জন্য ধারাবাহিকের পর্দা থেকে ব্রেক নিয়ে নিয়েছেন ইন্দ্রানী। সম্প্রতি তার অভিনীত সিনেমা ‘কুলের আচার’ মুক্তি পেয়েছে। আপাতত কিছুদিন সিনেমার পর্দা‌তে কাজ করতে চান তিনি।