বাড়ছে সংক্রমণ, ৩০ জুন পর্যন্ত বাতিল হল সমস্ত ট্রেনের টিকিট

৩০ জুন পর্যন্ত স্পেশাল ছাড়া বাকি সব ট্রেনের টিকিট বাতিল করল রেল। আপাতত চলবে কেবলমাত্র সব স্পেশাল ও শ্রমিক স্পেশাল ট্রেন, বাকি সব ট্রেনের অনলাইনে কাটা টিকিটের টাকা ফেরত হবে অনলাইনের মাধ্যমেই।

কোথা থেকে কোথায় চলবে ট্রেন, দেখে নিন ১৫ জোড়া স্পেশাল ট্রেনের সময়সূচি

করোনা সংকটের মাঝেই রেল মন্ত্রকের তরফ থেকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় দিল্লি থেকে দেশের ১৫ টি গুরুত্বপূর্ণ শহরে ১৫ জোড়া স্পেশাল প্যাসেঞ্জার ট্রেন চালাবে ভারতীয় রেল। পাশাপাশি প্রয়োজন মত প্রতিদিন ৩০০টি করে শ্রমিক স্পেশাল ট্রেনও চালাবে ভারতীয় রেল। এরপরে অনেকের মধ্যে আশা জেগেছিল, হয়তো নিয়ম মেনে লকডাউনের মাঝেই ট্রেন পরিষেবা চালু হতে পারে। তবে এনিয়ে বৃহস্পতিবার রেল মন্ত্রকের তরফ থেকে ট্রেন চলাচল নিয়ে নয়া সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করা হলো।

রেলের বিজ্ঞপ্তিতে কি বলা হয়েছে?

রেল মন্ত্রকের তরফ থেকে জানানো হয়, জুলাইয়ের আগে চলবে না কোনও সাধারণ প্যাসেঞ্জার ট্রেন। সমস্ত রকম সাধারণ ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকবে ৩০শে জুন পর্যন্ত। ৩০শে জুন পর্যন্ত বুক করা সমস্ত প্যাসেঞ্জার ট্রেনের বুকিং বাতিল করা হবে। শুধুমাত্র শ্রমিক বা বিশেষ ট্রেনই চলাচল করবে। আগে থেকে কেটে রাখা ৩০ জুন অব্দি সমস্ত রকম টিকিট বাতিল বলে ঘোষণা করা হয়।

কোন কোন ট্রেনের টিকিট বাতিল হল?

রেলের তরফ থেকে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ৩০ শে জুন পর্যন্ত কেটে রাখা মেল, এক্সপ্রেস, সাবার্বান-সহ সমস্ত ট্রেনের টিকিটই বাতিল করা হয়েছে। তবে লকডাউনের কারণে বাতিল হওয়া এই সমস্ত টিকিটের পুরো দাম ফেরত পাবেন গ্রাহকরা। অর্থাৎ রেলের ঘোষণা অনুযায়ী ৩০ শে জুন পর্যন্ত চলবে না কোন সাধারণ প্যাসেঞ্জার বা অন্যান্য ট্রেন।

আরও পড়ুন :- চালু হল সরকারি বাস, দেখে নিন ১৩টি রুট ও ভাড়ার তালিকা

শ্রমিক স্পেশাল ট্রেন চলবে?

তবে আগামসূচি অনুযায়ী দেশের বিভিন্ন জায়গায় আটকে থাকা পরিযায়ী শ্রমিকদের ফেরাতে যে সকল শ্রমিক স্পেশাল ট্রেনের আয়োজন করা হয়েছিল সেগুলি চলবে। পাশাপাশি চলবে দিল্লি থেকে দেশের ১৫ টি গুরুত্বপূর্ণ শহরের মধ্যে সদ্য চালু করা স্পেশাল প্যাসেঞ্জার ট্রেনগুলিও। এছাড়াও রেলে তরফ থেকে জানানো হয়েছে, বর্তমান পরিস্থিতিতে আপাতত আরসি বা তৎকাল টিকিট থাকবেনা রেলে। প্রথম শ্রেণীর এসি কোচে ২০, এসি-২ তে ৫০, এসি-৩ এবং চেয়ারকারে ১০০ ও সিলিপার ক্লাসে ২০০ টি ওয়েটিংলিস্ট টিকিট রাখা হবে।

২২ মার্চ থেকে ১৪ এপ্রিলের মধ্যে বুক করা টিকিটের মূল্য হিসেবে ৮৩০ কোটি আরও এক দফায় ফেরত দিয়েছে রেল। গত ২২ মার্চ থেকে অতি-প্রয়োজনীয় ছাড়া সব রকম ট্রেন পরিষেবা বন্ধ রাখা হয়েছে। রবিবারই রেল জানায় এবার দফায় দফায় প্যাসেঞ্জার ট্রেন চালানোর বিষয়ে ভাবনাচিন্তা করা হচ্ছে।