বাপ বাপ বলে পালাবে পোকা, এইভাবে চাল রাখলে বছরের পর বছর ভালো থাকবে

এইভাবে চাল রাখলে জীবনে পোকা ধরবে না, রইল কিছু সহজ উপায়

সাদা সাদা চালের মধ্যে কালো কালো পোকা কিলবিল করে বেড়াচ্ছে, দেখতে কারই বা ভালো লাগে? আবার চালের পোকা বেছে ফেলে দিলেও পোকার ডিম আলাদা করা যায় না। এই বর্ষার সময়ে চালে পোকার উপদ্রব বেশি বাড়ে। এমতাবস্থায় কিভাবে রক্ষা পাবেন চালের শত্রু এই পোকাদের হাত থেকে (How To Keep Rice Clean From Insects)? রইল তার কিছু ঘরোয়া সমাধান।

শুকনো লঙ্কা : চালের পাত্রের মধ্যে সাত থেকে আটটা আস্ত শুকনো লঙ্কা রেখে দিন। তাহলে চালে দীর্ঘদিন পর্যন্ত পোকা লাগবে না। দুই সপ্তাহ পর পুরনো লঙ্কা সরিয়ে নতুন লঙ্কা রেখে দিন। পুরনো লঙ্কা রান্নার কাজে ব্যবহার করে নিতে পারবেন। আবার লঙ্কার ব্যবহারে চালে পোকাও লাগবে না।

এয়ারটাইট পাত্র : চাল সব সময় এয়ার টাইট পাত্রে রাখতে হবে। পলিথিন কিংবা প্লাস্টিকের পাত্রে চাল না রাখাই ভালো। এয়ার টাইট পাত্রে চাল রাখলে পোকা ভেতরে প্রবেশ করতে পারে না।

গোলমরিচ : গোলমরিচের ঝাঁঝ চালে পোকা লাগতে দেয় না। গোল মরিচ আবার পাল্টে দেওয়ার দরকারও পড়ে না।। দীর্ঘদিন পর্যন্ত চালের মধ্যে গোলমরিচ রেখে দেওয়া যায়।

নিম পাতা : চালের পাত্রের মধ্যে নিমপাতা রেখে দিলেও পোকা লাগবে না। পাত্রে চাল রাখার পরে তাতে কিছুটা নিম পাতা রেখে দিন। এতে অনেক দিন চাল ভালো থাকবে। মাসে একবার করে নিমপাতা বদলে নতুন নিমপাতা রাখতে হবে।

তেজপাতা : নিম পাতা যদি বাড়িতে না থাকে তাহলে তেজপাতা দিয়েও কাজ হবে। কিছু তেজপাতা চালের মধ্যে রেখে দিন। তেজপাতার গন্ধতে পোকা চালের ধারেকাছেও থাকবে না।

ফ্রিজ : দীর্ঘদিন চাল রেখে দেওয়ার ফলে যদি পোকা ধরে যায় সেক্ষেত্রে একটা এয়ারটাইট পাত্রে ভরে চাল কয়েক দিনের জন্য ফ্রিজের মধ্যে রেখে দিতে পারেন। এতে সমস্ত পোকা মরে যাবে।