মাছ ভাজার সময় মেনে চলুন এই নিয়মগুলো, তেল ছিটকে গায়ে ফোস্কা পড়বে না

মাছ ভাজার সময় আর তেল ছিটকে ফোস্কা পড়বে না, মেনে চলুন এই কয়েকটি নিয়ম

মাছে-ভাতে বাঙালির পাতে প্রতিদিন মাছ না হলে খাওয়াটাই যেন অসম্পূর্ণ থেকে যায়। সাধারণত মাছ ভেজে তবেই তা রান্না করা হয়। মাছ ভাজা খেতে যতটা মজা ঠিক ততটাই আবার বিপদজনক, তেল ছিটকে গায়ে পড়তে পারে। আবার অনেক সময় দেখা যায় ঠিকমতো ভাজা না হতেই উল্টে দিলে আস্ত মাছ ভেঙে যায় বা মাছের চামড়া কড়াইতে লেগে থেকে যায়। এই সমস্যা দূর করতে কী করবেন (How To Fry Fish Safely)? জেনে নিন –

কিভাবে মাছ ভাজলে কড়াইতে লেগে যাবে না : মাছ ভাজার আগে মাছের জল ভাল করে ঝরিয়ে নিন। কিচেন টিস্যু ব্যবহার করে মাছের গা শুকনো করে মুছে ফেলতে হবে। তা না হলে মাছ ভেঙে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই কিচেন টিস্যু দিয়ে মাছ ভালো করে মুছে নিয়ে তবেই হলুদ, নুন, লঙ্কার গুঁড়ো মাখিয়ে নিন।

মাছ ভাজার সময় বার বার নাড়া যাবে না। মিনিট পাঁচেক অপেক্ষা করার পর তবেই একপিঠ উল্টে অন্য পিঠ ভাজতে হবে। মাছ ভাজার আগে অবশ্যই তেলটা ভালমতো গরম করে নিতে হবে। অল্প তেলে মাছ ভাজা যাবে না। যতটা পরিমাণ ততটা তেল ব্যবহার করুন। তাহলে মাছ কড়াইতে লেগে যাবে না।

কীভাবে মাছ ভাজলে কড়াইয়ের তেল ছিটকে গায়ে লাগবে না : প্রথমে মাছ কেটে ভাল করে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিন। যে পাত্রে মাছ দিয়েছেন সেই পাত্রে মাছ রাখবেন না। নতুন পাত্রে মাছের টুকরো নিয়ে লবণ, হলুদ, লঙ্কার গুঁড়ো ভাল করে ম্যারিনেট করে রেখে দিন। চাইলে নরমাল ফ্রিজেও ১৫ থেকে ২০ মিনিটের মত রাখতে পারেন।

এবার ম্যারিনেট করা মাছ ফ্রিজ থেকে বের করে নিন। তারপর একটি ফ্রাইং প্যান বা কড়াই ভাল করে গরম করে তার মধ্যে তেল দিন। এই সময় গ্যাসের আঁচ মিডিয়াম থেকে হাই রাখতে হবে। মনে রাখবেন কড়াইতে বেশি তেল দিলেও তা নষ্ট হবে না। মাছ ভাজার সময় মাছের শরীর থেকেও কিছু তেল বেরবে। মাছ ভাজার পর এই তেল আপনি ব্যবহার করতে পারেন রান্নাতে।

তেল ভাল করে গরম করে তবেই মাছ তার মধ্যে দিতে হবে। নইলে মাছ ভাজা হবে না। তেল ঠান্ডা থাকতে থাকতে মাছ দিলে সেই মাছ কড়াইয়ের তলাতে লেগে যাবে এবং পুড়ে যাবে। তেল গরম হলে এর মধ্যে কিছুটা লবণ ছিটিয়ে নিন। মাছ তেলের মধ্যে ছাড়ার সময় গ্যাসের আঁচ একেবারে কমিয়ে দেবেন। মাছ কখনও ঢেকে ভাজবেন না। যারা নতুন নতুন রান্না শিখছেন তারা রান্নার আগে অ্যাপ্রন এবং হাতে গ্লাভস পরে নেবেন।