এই ৭টি ঘটনা চোখে আঙুল দিয়ে দেখাচ্ছে মমতা দেশের সেরা ক্ষমতাশালী মুখ্যমন্ত্রী

0

একুশের নির্বাচনী লড়াই সম্প্রতি শেষ হয়েছে। এই লড়াইয়ে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে তৃণমূল। লড়াইয়ের ফলাফল থেকে স্পষ্ট এই যে একুশের নির্বাচনের হাড্ডাহাড্ডি লড়াই ছিল কার্যত তৃণমূল এবং বিজেপির মধ্যে। তবে বিজেপি কিন্তু মমতা-ম্যাজিকের কাছে রীতিমতো কুপোকাত। সারা ভারতবর্ষ জুড়ে যারা রাজত্ব করছেন, বাংলার একা এক মহিলা দলনেত্রীর কাছে পরাজয় স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছেন তারা।

এই নির্বাচনী ফলাফল বিশ্লেষণ করে অনেকেই এক বাক্যে বলছেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নাকি দেশের একমাত্র শক্তিশালী মুখ্যমন্ত্রী! রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, দেশের অন্যতম শক্তিশালী মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার যদি কেউ দাবী রাখেন তাহলে তিনি হলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এমন মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বেশ কিছু কারণ উল্লেখ করছেন তারা।

১. দেশের তাবড় তাবড় বিজেপির নেতাদের ব্যর্থ করা

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে হটিয়ে রাজ্যের ক্ষমতায় আসার জন্য বিজেপির হেভিওয়েট কেন্দ্রীয় নেতৃত্বরা বারংবার বাংলায় এসেছেন। মোদী-শাহ-নাড্ডাদের নেতৃত্বে রাজ্যে বারবার রাজনৈতিক প্রচার সভা, জনসভা, র‍্যালির আয়োজন করা হয়েছে। তবুও বাংলার মানুষের মধ্যে তেমনভাবে সাড়া ফেলতে পারেনি বিজেপি। তাদের সকল প্রচেষ্টাকে ব্যর্থ করে দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

২. দেশের একমাত্র মহিলা মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে সমর্থন

বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বর্তমানে দেশের একমাত্র মহিলা মুখ্যমন্ত্রী। তামিলনাড়ুতে জয়ললিতার পর বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই দেশের রাজনৈতিক ইতিহাসে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে এই ভাবে সাড়া ফেলতে পেরেছেন। মুখ্যমন্ত্রী মহিলা হওয়ার দরুণ মহিলা ভোটারদের একটি বড় অংশের সমর্থনও রয়েছে তার দিকে।

৩. মোদী বিরোধী জোটের অন্যতম সেরা মুখ

এই মুহূর্তে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরোধী দলগুলির মধ্যে অন্যতম হলো তৃণমূল। বিশেষত একুশের লড়াইয়ে বিজেপিকে কার্যত গো হারান হারিয়ে তৃণমূল দল সেই অবস্থানে পৌঁছে গিয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে তৃণমূল দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রাজনৈতিক অবস্থানও তাই আরও পোক্ত হয়েছে।

৪. নরেন্দ্র মোদী ও অমিত শাহ জুটিকে হারানোর ক্ষমতা

সারা দেশ জুড়ে যেখানে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে বিজেপি। নরেন্দ্র মোদী ও অমিত শাহের যৌথ উদ্যোগে একের পর এক রাজ্য বিজেপির বশ্যতা স্বীকার করছে। এমনকি বাংলাতেও যেখানে “মোদি ঝড়” উঠেছিল সেখানে মুখ্যমন্ত্রীর একার লড়াইয়ে বিজেপিকে পরাস্ত করতে সমর্থ হয়েছে তৃণমূল। ফলে স্বভাবতই ভবিষ্যতে বিজেপি বিরোধীশক্তি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করার সম্ভাবনা রয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের।

৫. কেন্দ্রের বিতর্কিত নীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ

ইতিপূর্বে কেন্দ্রীয় সরকারের নোটবন্দির সিদ্ধান্ত থেকে শুরু করে কেন্দ্রের প্রণীত সিএএ, নতুন কৃষি বিলের বিরুদ্ধে মোদি সরকারের চরম সমালোচনা করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাই মোদি বিরোধী জোটের অন্যতম মুখ হয়ে ওঠার সম্পূর্ণ সম্ভাবনা রয়েছে মমতার।

Mamata Banerjee vs BJP, Bengal wants its Own Dughter

৬. সবসময় মোদি বিরোধী ঝড় তোলা

এই মুহূর্তে লোকসভা এবং রাজ্যসভাতেও কেন্দ্রীয় সরকারের বিরোধী হিসেবে তৃণমূলের বহু সদস্য সাংসদ হিসেবে রয়েছেন। ফলে মোদি বিরোধী শক্তি হিসেবে সংসদেও উপস্থিত তৃণমূল।

৭. বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলির সমর্থন

একুশের লড়াইয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জেতার পর থেকেই তৃণমূল বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতা-নেত্রীরা কিন্তু এক বাক্যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে স্বাগত এবং শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন। মমতা বরাবরই বিরোধী রাজনৈতিক শিবিরের নেতা নেত্রীদের যথেষ্ট প্রাধান্য দেন। এর আগে ব্রিগেডেও তার প্রমাণ মিলেছে।

আরও পড়ুন : পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির হারের জন্য দায়ী এই ৫টি কারণ

এই কারণগুলির জন্যই প্রধানত রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের ধারণা ২০২৪ এর লোকসভা নির্বাচনে মোদির বিরুদ্ধে বেশ শক্তিশালী অবস্থান নিতে পারেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে মমতার পরবর্তী পদক্ষেপ কী হবে, তা সময়ই বলবে।

আরও পড়ুন : এই ৫টি কারণে নন্দীগ্রামে মমতাকে হারিয়ে জিতলেন শুভেন্দু অধিকারী