জমির মিউটেশন করুন বাড়িতে বসেই, জেনে নিন পদ্ধতি

জমি কেনার পর সবথেকে বড় ঝামেলা হলো জমির মিউটেশন। ক্রেতাকে এযাবৎ যেতে হতো B.L. & L.R.O. অফিসে এবং সেখানে আবেদনের ভিত্তিতে হত জমির মিউটেশন। কিন্তু এবার এই দীর্ঘ পদ্ধতি ও ছোটাছুটির অবসান ঘটল। এবার জমির রেকর্ড সংশোধন করা হবে বাড়িতে বসেই, কোনরকম আবেদন ছাড়াই ও সম্পূর্ণ Online-এ। তবে অনলাইনে এই অটোমেটিক মিউটেশনের ক্ষেত্রে রয়েছে কতগুলি শর্ত।

১) নথিভূক্ত রায়ত ও জমির বিক্রেতা যদি একই ব্যক্তি হন ও জমির রেকর্ড সংশোধনের অন্যান্য শর্ত পূরণ হয়, তাহলে কোনরকম আবেদন ও শুনানী ছাড়াই ক্রেতার নামে রেকর্ড তৈরী হয়ে যাবে। ( এই কেস বিএলআরও অফিসে বাফারিং কেস নামে পরিচিত)

২) নথিভুক্ত রায়ত ও জমির বিক্রেতা যদি আলাদা আলাদা ব্যক্তি হন ও জমির রেকর্ড সংশােধনের অনান্য শর্ত পূরণ হয়। পাশাপাশি ৩০ দিনের মধ্যে কোন অভিযােগ যদি জমা না পড়ে, তবে কোনরকম আবেদন ও শুনানী ছাড়া ক্রেতার নামে রেকর্ড তৈরী হয়ে যাবে।

৩) (১) ও (২) এই দুটি ক্ষেত্রেই জমির রেকর্ড সংশােধনের অন্যানা শর্ত পূরণ না হলে বা কোনরকম অভিযােগ জমা পড়লে শুনানীর মাধ্যমে রেকর্ড সংশােধিত হবে।

৪) শুনানীর নােটিশের জন্য অফিসিয়াল ওয়েবসাইট (https://banglarbhumi.gov.in) লক্ষ্য রাখতে হবে।

৫) যে সব জমির বেচাকেনা আইন বিরুদ্ধ সেই সকল জমির ক্ষেত্রে এই সুবিধা পাওয়া যাবে না।

৬) বিএল, অ্যান্ড এলআরও অফিস থেকে দেওয়া জমির রেকর্ডে কোন ভুল থাকলে তা সংশােধনের জন্য জেলা ভূমি ও ভূমি রাজস্ব আধিকারিক ভূমিলেখ্য ও জরীপ অধিকর্তা/ভূমি সংস্কার কমিশনার ও প্রধান সচিব, সরকারের কাছে আবেদন করতে পারেন।

এই সুবিধা পাওয়ার জন্য ক্রেতাকে কি করতে হবে?

নথিভূক্ত রায়ত ও জমির বিক্রেতাকে একই ব্যক্তি হতে হবে।

জমি রেজিস্ট্রেশনের সময় মিউটেশন ফি (কৃষিজমি ছাড়া অন্য জমিতে) দিতে হবে।

রেজিষ্ট্রেশনের আগে রিকুইজিশন ফর্ম পূরন করার সময় ক্রেতা, বিক্রেতা ও তাদের পিতার নাম সঠিক দিতে হবে।

আরও পড়ুন :- কিভাবে অনলাইনে আবেদন করবেন জমির মিউটেশন (রেকর্ড)?

ঠিকানা ও মোবাইল নম্বর সঠিক দিতে হবে। কোন ই-মেল আই ডি থাকলে সেটা দিতে হবে।

ক্রেতার ঐ মৌজায় কোনও জমি থাকলে তার খতিয়ান নম্বর দিতে হবে।

এই সুবিধা আপাতত যেখানে মৌজার নথির চূড়ান্ত প্রকাশ হয়েছে ও যেখানে হোল্ডিং নম্বরের ভিত্তিতে জমির কেনাবেচা হয় না সেখানে প্রযােজ্য।