অনলাইনে দুর্গাপুজোর অনুমতি নেওয়ার পদ্ধতি, জেলাভিত্তিক ওয়েবসাইটের তালিকা

Online Durgapuja Application

আর মাত্র হাতে গোনা কয়েকটা দিন। তারপরে শুরু হচ্ছে বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গাপুজো। করোনা আবহে এই বছর বাঙালির দুর্গাপূজা হবে জৌলুসহীন। ইতিমধ্যেই প্রশাসনের তরফ থেকে কিভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দুর্গোৎসব পালন করা যাবে সেই নিয়ে নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে।

নির্দেশিকায় বলা হয়েছে ঠাকুর দেখা যাবে তৃতীয় থেকেই। প্যান্ডেল হবে খোলামেলা এবং প্যান্ডেলের ৫০০ মিটারের ধারে কাছে গেলে মাস্ক ও স্যানিটাইজার বাধ্যতামূলক। দর্শনার্থী মাস্ক না পরে এলে দর্শনার্থীকে প্যান্ডেল কর্তৃপক্ষেকে মাস্ক দিতে হবে। পাশাপাশি হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে হবে। প্যান্ডেল এবং তার পার্শ্ববর্তী এলাকা স্যানিটাইজ করতে হবে।

প্যান্ডেল প্রবেশ এবং প্রস্থানের জন্য আলাদা আলাদা গেটের ব্যবস্থা করতে হবে। প্যান্ডেলের ভিতর সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে গোল দাগ কাটতে হবে। পুজো মণ্ডপে বা আশেপাশে করা যাবেন কোনও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করা যাবে না। পুজোর উদ্বোধন থেকে বিসর্জন হবে হাতেগোনা লোক নিয়ে।

গত ১০ বছর ধরে পূজো করে আসছে এই রকম কমিটিগুলোকে এই বছর পুজো করার অনুমতি দেবে প্রশাসন। ২অক্টোবর থেকে এই পুজো কমিটি গুলি অনলাইনে পুজো করার অনুমতি চাইতে পারে। শনিবার রাজ্য পুলিশ টুইট করে জানিয়েছে, “মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ  অনুযায়ী অনলাইনে দর্গাপুজোর অনুমতি প্রদান শুরু হলো শনিবার থেকে।” অর্থাৎ শনিবার থেকেই পুজো উদ্যোক্তরা তাদের নিজেদের নিজেদের জেলার নির্দিষ্ট ওয়েবসাইট থেকে পুজোর আয়োজন এবং বিসর্জনের অনুমতির জন্য আবেদন করতে পারবেন।

অনলাইনে দুর্গাপুজোর অনুমতি নেওয়ার পদ্ধতি

দুর্গাপূজার অনুমতির জন্য পুজো কমিটিকে নিম্নলিখিত এই ওয়েবসাইটগুলোতে গিয়ে মোবাইল নাম্বার সাবমিট করে ওটিপি ভেরিফিকেশন করে অনুমতি নিতে হবে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য রাজ্য সরকার ঘোষণা করেছে এই বছর পুজো কমিটি গুলিকে ৫০,০০০ টাকা করে অনুদান দেওয়া হবে। শুধু তাই নয় এবছর পুজো কমিটির গুলি থেকে নেওয়া হবে না দমকল ফী এবং দিতে হবে না কোনও কর। পাশাপাশি রাজ্য বিদ্যুৎ পর্ষদ থেকে বিদ্যুতের বিল ৫০%  ছাড় দেওয়া হয়েছে।