ট্রেনের কামরা থেকে কীভাবে ছড়াতে পারে করোনা, দেখুন বিশেষজ্ঞরা কী বলছেন

ট্রেনে সফর করার ক্ষেত্রে কোরোনা ভাইরাস সংক্রমনের সম্ভাবনা থাকে খুব বেশী। এই বিষয় চীনের এবং ব্রিটেনের গবেষকদের দাবি যে ট্রেনের সফরে একজন ব্যক্তিও যদি আক্রান্ত থাকেন তার থেকে অনেকেই আক্রান্ত হতে পারেন। তারা এও বলেন যে ট্রেনের সফর ঘণ্টা খানেকের হলেও যাত্রীদের মধ্যে কম করে এক মিটার দূরত্ব বজায় রাখতে হবে।

চীনের সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের বিজ্ঞানীরা তাদের গবেষণা সংক্রান্ত রিপোর্ট ‘ক্লিনিকাল ইনফেকশিয়ান ডিজিজ’ জার্নালে প্রকাশ করেছেন। গবেষণায় জানা গেছে, পাশাপাশি থাকা তিনটি সারিতে এবং দৈর্ঘ্য বরাবর পাঁচ সারির মধ্যে যদি একজন ব্যাক্তিও কোরোনা ভাইরাসে আক্রান্ত থাকেন তবে তার থেকে সম্পূর্ণ কামরায় মানুষ আক্রান্ত হতে পারেন।

তারা জানাচ্ছেন ট্রেনে পাশাপাশি সারিতে বসে থাকা যাত্রীদের মধ্যে ০.৩২ শতাংশ গড়ে ভাইরাস সংক্রমিত হতে পারে এবং গা ঘেষাঘেষি করে পাশাপাশি বসলে সংক্রমন ৩.৫% হারে ছড়াতে পারে তবে প্রতি মুহূর্ত সময় বাড়ার সাথে সাথে এই হার বৃদ্ধি পাবে।

এই হিসেবটা নির্ভর করে আক্রান্ত রোগীর এক সারিতে কতজন সফর করছেন এবং তাদের মধ্যে কতজন রোগীর পাশাপাশি আছেন, এই দুই বিষয়ের ওপর। এই হিসেব থেকেই দেখা যাচ্ছে ট্রেন সফরের ক্ষেত্রে প্রতি ঘণ্টায় কমপক্ষে একজন ব্যাক্তি আক্রান্ত হতে পারেন।

আরও পড়ুন : আপনার স্যানিটাইজারটি ভাইরাস মারছে কিনা কীভাবে বুঝবেন

তবে শুধু পাশাপাশি নয়, আক্রান্ত ব্যাক্তির পরের সিটে বসা ব্যাক্তির মধ্যেও ভাইরাসের ড্রপলেটের মাধ্যমে সংক্রমন ছড়িয়ে পড়তে পারে। তাছাড়াও আক্রান্ত ব্যাক্তির নাক মুখ থেকে নিঃসৃত ভাইরাল স্ট্রেন যদি ব্যাক্তির সিটে বা হাতলে থাকে তবে পাঁচ থেকে সাত দিন পর্যন্ত সেই ভাইরাস সক্রিয় থাকে।

অর্থাৎ ট্রেনের কামরা় যদি সঠিক ভাবে স্যানিটাইজ না করা হয় সেক্ষেত্রে ওই নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কোনো ব্যাক্তি সেই ভাইরাসের সংস্পর্শে আসতে পারে এবং তার মধ্যেও ভাইরাস প্রবেশ করবে।

আরও পড়ুন : করোনার জন্য বদলে যাচ্ছে ট্রেনের কামরা, দেখে নিন ছবি

ব্রিটেনের সাদাম্পটন ইউনিভার্সিটির গবেষক শেংজি লাই জানিয়েছেন যে জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত ট্রেনে সফর করেছেন এমন ৭০ হাজার মানুষের ওপর একটি সমীক্ষা চালানো হয়েছে। সমীক্ষায় দেখা গেছে সফরের পর ২৩৩৪ জন যাত্রী কোরোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এই আক্রান্ত ব্যাক্তিদের মাধ্যমে আবার আরও অনেক ব্যাক্তিদের মধ্যে সংক্রমন ছড়িয়েছে।

বিশেষজ্ঞদের মতে সংক্রমণের বিষয়টি মূলত তিনটি বিষয়ের ওপর নির্ভরশীল। সেগুলি হলো ১) ট্রেনে সফরের সময় কতক্ষণ, ২) সফরের সময় কতজন আক্রান্ত ব্যাক্তির সংস্পর্শে আসা হচ্ছে,  ৩) ট্রেনের যাত্রীরা কিভাবে বসছেন।