প্রতিদিন ২ টি করে ডিম খেলে শরীরে কি কি পরিবর্তন হয়

মনে আছে সেই জনপ্রিয় বিজ্ঞাপনটি “ সানডে হো ইয়া মানডে, রোজ খাও আন্ডে”। ডিম যে শরীরের জন্য কতখানি উপকারি তা সবাই জানেন। প্রতিদিনের ডায়েটে যদি ডিম রাখা যায় তাহলে শরীরে পুষ্টি যাবে। ডিম সেদ্ধ খাবেন না ওমলেট সেই নিয়ে একটি দ্বন্দ্ব রয়ে গিয়েছে। ডাক্তাররা বলেন ডিম সেদ্ধ খাওয়া শরীরের জন্য বেশি উপকারি তাতে শরীরে এক্সট্রা তেলও গেল না অথচ পুষ্টিও পেলেন। অনেকে আবার হাফ বয়েল্ড ডিম খেতে বেশি পছন্দ করেন। কিংবা হাফ বয়েল্ড ডিমের পোচ। বিশেষজ্ঞদের মতে হাফ বয়েল্ড ডিম না খাওয়ায় ভালো বরং ডিম সঠিকভাবে সেদ্ধ করে খেলে উপকার পাওয়া যায়। কিন্তু কি কি উপকার পাওয়া যায় আসুন জেনে নিই

১) ডাক্তাররা বলেন ডিমে রয়েছে ভিটামিন বি ১২। এই ভিটামিন বি ১২ শরীরের জন্য খুবই ভালো। তাই প্রতিদিনের ডায়েটে একটি করে ডিম রাখলে উপকার পাবেন।

২) ডিমে ভিটামিন এ রয়েছে। এই ভিটামিন এ চোখের জন্য খুবই উপকারী। তাই দৃষ্টিশক্তি ঠিক রাখতে ডিম খান প্রতিদিন।

৩) ডিমে রয়েছে ভিটামিন বি। এই ভিটামিন বি শরীরের শক্তি জোগাতে সাহায্য করে। তাই একটি ডিমসেদ্ধ যদি সকালে খেতে পারেন তাহলে প্রচুর উপকার পাবেন।

৪) ডিম যদি প্রতিদিন একটা করে খেতে পারেন তাহলে আপনার শরীরের পেশি মজবুত থাকে।

৫) ডিমের আর একটি গুন হল ডিম ওজন কমাতে সাহায্য করে। ও একটি ডিমে এত প্রোটিন রয়েছে যা আপনার শরীরে পর্যাপ্ত পরিমাণ পুষ্টি জোগায়।

৬) গবেষনা বলছে ডিম ক্যানসার প্রতিরোধে সক্ষম। দিনে যদি একটি করে ডিম সেদ্ধ খাওয়া যায় তাহলে ব্রেস্ট ক্যানসারের ঝুঁকি অনেকটা কমে যায়। ২০১৩ সালে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের একটা সমীক্ষায় গবেষকরা জানিয়েছেন যে ডিম মেয়েদের ব্রেস্ট ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা কম করে দেয়। সপ্তাহে ৬টি করে ডিম খেলে মেয়েদের এই সমস্যার সম্ভাবনা ৪৪% কমে যায়। তাছাড়াও ডিম হার্টে রক্ত জমাট বাঁধতে দেয়না। হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা অনেকটাই কমিয়ে দেয়। প্রত্যেক নারীর শরীরে রোজ কমপক্ষে ৫০ গ্রাম প্রোটিনের দরকার। একটি ডিমে থাকে ৭০-৮৫ ক্যালোরি বা ৬.৫ গ্রাম প্রোটিন। তাই রোজ ডিম খেলে মেয়েদের শরীরে প্রোটিনের চাহিদা মেটে।

৭) ডিমে আছে আয়রন, জিঙ্ক, ফসফরাসের মতো উপাদান। মেন্সট্রুয়েশনের জন্য মেয়েদের অনেক সময় অ্যানিমিয়া দেখা দেয়। যা শরীর দূর্বল করে দেয়। ডিমে থাকা আয়রন শরীরের এই ঘাটতি মেটায়। জিঙ্ক শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয় আর ফসফরাস হাড় ও দাঁত মজবুত করে।মেয়েদের শরীরের জন্য প্রতিদিন প্রায় ৬০% প্রোটিনের দরকার পরে। প্রোটিনের সব থেকে ভালো উৎস ডিম। তাই প্রতিদিন একটি করে ডিম খাওয়া উচিৎ।

৮) ডিম কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে। অনেকে ভাবেন ডিম খেলে কোলেস্টেরল বাড়ে কিন্তু এই ধারণা ভুল। বরং ডিম কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে। তাই ডিম খান নিশ্চিন্তে।

আরও পড়ুন :- ১ বছর মাংস খাওয়া ছেড়ে দিলে শরীরে কি কি পরিবর্ত হবে

৯) আয়রনের অভাবে চুল পরে যাওয়া, নখ ভেঙে যাওয়া একটি সমস্যা। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে ডিম খান।

১০) ডিমে রয়েছে কোলাইন। এই কোলাইন মস্তিস্ক, স্নায়ু নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। এই ডিমে রয়েছে কোলাইন। এত গুন পেতে তাই রোজ খান ডিম।