‘ত্রিনয়নী’র পর আবার জুটি বেঁধে ফিরলেন গৌরব-শ্রুতি, এল নতুন ধারাবাহিকের প্রোমো

আসছে গৌরব-শ্রুতির নতুন ধারাবাহিক, প্রকাশ্যে এল প্রোমো

Gourab Roy Chowdhury and Shruti Das tie a not for upcoming mega serial Ranga Bou

ফের দর্শকদের জন্য মহাচমক উপহার দিল জি বাংলা (Zee Bangla)। জি বাংলার এককালীন জনপ্রিয় জুটি ফের এক নতুন সিরিয়াল নিয়ে আসছেন টেলিভিশনের পর্দায়। দর্শকদের দাবি মেনে বহু সময় বাদে আবার পর্দায় ফিরছেন ‘ত্রিনয়নী’ জুটি অর্থাৎ গৌরব রায় চৌধুরী (Gourab Roy Chowdhury)এবং শ্রুতি দাস (Shruti Das)। একসময় জি বাংলাতে এই সিরিয়ালটি দারুণ হিট হয়েছিল। এবার গৌরব এবং শ্রুতি নতুন সিরিয়াল হাজির জি বাংলার পর্দায়।

ইদানিং বিভিন্ন বাংলা চ্যানেলে দেখা যাচ্ছে পুরনো জনপ্রিয় জুটিদের উপর ভর করে আবার নতুন সিরিয়াল আনা হচ্ছে। এরই মধ্যে স্টার জলসা নীল এবং তিয়াসাকে ফিরিয়েছে, এবার পালা জি বাংলার। জি বাংলার আসন্ন এই নতুন সিরিয়ালের নাম রাঙ্গা বউ (Ranga Bou)। সিরিয়ালে প্রোমো ইতিমধ্যেই টেলিভিশনে সম্প্রচারিত হয়েছে।

‘ত্রিনয়নী’র পর ‘দেশের মাটি’ ধারাবাহিকে অভিনয় করেছিলেন শ্রুতি দাস। তবে এই সিরিয়ালটি বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর দীর্ঘ বেশ কয়েক বছর তাকে আর টেলিভিশনের পর্দায় দেখা যায়নি। অন্যদিকে গৌরব ‘ত্রিনয়নী’র পর কিছুদিন ব্রেক নিয়ে জি বাংলার ‘পিলু’ ধারাবাহিকে কাম ব্যাক করেছিলেন। সেই সিরিয়ালটি সদ্য বন্ধ হয়েছে।

‘পিলু’ বন্ধের পরপরই গৌরবের হাতে এসে গেল আরও এক সুবর্ণ সুযোগ। শ্রুতি-গৌরবের জুটিটা জি বাংলাতে একসময় নজর কেড়েছিল। এবার তারা নতুন ধারাবাহিকের হাত ধরে আবার পর্দায় ফিরছেন। যদিও কিছুদিন আগেই গৌরব ও শ্রুতির নতুন ধারাবাহিকের খবর সোশ্যাল মিডিয়াতে ফাঁস হয়ে যায়। সেই সময় অবশ্য গৌরব সরাসরি এই বিষয়টা অস্বীকার করেছিলেন।

ইনস্টাগ্রামে একটা স্টোরি শেয়ার করে গৌরব লিখেছিলেন, “এই মুহূর্তে আমি কোনও ধারাবাহিক করছি না। দয়া করে গুজবে কান দেবেন না। ধন্যবাদ।” কিন্তু আচমকাই ভক্তদের চমকে দিয়ে চলে এল ‘রাঙ্গা বউ’ এর নতুন প্রোমো। প্রোমোতে শ্রুতিকে একটি গ্রামের মেয়ের চরিত্রে দেখানো হয়েছে। নায়ক-নায়িকার বিয়ে দেখিয়ে শুরু হয়েছে প্রোমো।

এদিকে গৌরব-শ্রুতির নতুন ধারাবাহিক আসার খবর আসতেই দর্শকরা মনে মনে বেশ কৌতুহলী হয়ে পড়েছেন এটা জানার জন্য যে এবার এই নতুন ধারাবাহিক কোন পুরনো ধারাবাহিকের উপর কোপ বসাতে চলেছে? দর্শকদের অনুমান, ‘রাঙা বউ’ এসে হয়তো ছিনিয়ে নিতে পারে ‘বোধিসত্বের বোধবুদ্ধি’, ‘উড়ন তুবড়ি’ কিংবা ‘এই পথ যদি না শেষ হয়’ এর জায়গা।